গ্রেপ্তার নাসির উদ্দিনের মুক্তি চাইলেন এমপি টিপু

বৃহস্পতিবার, জুন ১৭, ২০২১

ঢাকা : ঢালিউড অভিনেত্রী পরীমনিকে ধর্ষণ-হত্যাচেষ্টার অভিযোগে গ্রেপ্তার নাসির উদ্দিন মাহমুদের মুক্তি দাবি করেছেন জাতীয় পার্টির সংসদ সদস্য গোলাম কিবরিয়া টিপু। সেইসঙ্গে এই অভিযোগ থেকে তাকে অব্যাহতি দেওয়ারও দাবি জানান তিনি।

বৃহস্পতিবার (১৭ জুন) সংসদে ২০২১-২২ অর্থবছরের প্রস্তাবিত বাজেটের ওপর সাধারণ আলোচনায় অংশ নিয়ে নাসির উদ্দিন মাহমুদের মুক্তির দাবি করেন এই সংসদ সদস্য।

অভিনেত্রী পরীমনির ঘটনায় গ্রেপ্তার হওয়া নাসির জাতীয় পার্টির সভাপতিমণ্ডলীর অন্যতম সদস্য। এছাড়া উত্তরা ক্লাবের এই সাবেক সভাপতি ঢাকা বোট ক্লাবের কার্যনির্বাহী কমিটির সদস্য ছিলেন। গ্রেপ্তার হওয়ার পর তাকে বোট ক্লাব থেকে বহিষ্কার করা হয়।

সংসদে দাঁড়িয়ে জাতীয় পার্টির প্রেসিডিয়াম সদস্য টিপু বলেন, ‘গত কয়েকদিন ধরে একজন অভিনেত্রী ও আমাদের প্রেসিডিয়াম সদস্যকে নিয়ে ঘটনা দেখছি। নাসির উদ্দিনকে আমি প্রায় ৩৫ বছর ধরে চিনি। প্রায় ছাত্র অবস্থা থেকে। সে একজন প্রতিষ্ঠিত ব্যবসায়ী এবং সরকারকে খাজনা দেয়।’

এ সময় পরীমনির দিকেই পাল্টা অভিযোগের আঙুল তুলে বরিশালের এই এমপি বলেন, ‘ওই ক্লাবে যে নায়িকা গিয়েছিলেন, তারাতো অভিনয় করতে জানেনা। সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে দেখলাম তাকে কোলে করে একটা গাড়িতে তোলা হচ্ছে। তাদের এই সমস্ত দিকে লক্ষ্য রেখে আমি সরকারের কাছে আবেদন রাখব, আইন আইনের মতো চলবে। অবিলম্বে নাসির মাহমুদকে যাতে এই ইস্যু থেকে অব্যাহতি দেওয়া হয়। তাকে যেন মুক্তি দেওয়া হয়।’

এর আগে গত সোমবার (১৪ মে) পরীমনির অভযোগের পরিপ্রেক্ষিতে সংসদে বিএনপির এমপি হারুনুর রশীদ দোষীদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়ার দাবি তোলেন।

এরপর মঙ্গলবার (১৫ মে) জাতীয় পার্টির জ্যেষ্ঠ সংসদ সদস্য চুন্নু দলের প্রেসিডিয়াম সদস্য নাসিরকে ‘ভালো লোক’ হিসেবে উল্লেখ করেন।

প্রসঙ্গত, নায়িকা পরীমনিকে ধর্ষণ-হত্যাচেষ্টার এক সপ্তাহ পর সোমবার (১৪ জুন) প্রধান আসামিসহ পাঁচজনকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। এ ঘটনায় রোববার (১৩ জুন) নায়িাকার একটি ফেসবুক স্ট্যাটাস ঘিরে তোলপাড় হয় সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে। পরে রাতে বনানীর নিজ বাসায় ধর্ষণ-হত্যাচেষ্টার অভিযোগ এনে সংবাদ সম্মেলন করেন পরীমরি।

সোমবার সকালে সাভার থানায় দায়ের করা মামলার এজাহারে নায়িকা বলেন, ১০ জুন রাতে পারিবারিক বন্ধু অমি ও ব্যক্তিগত কস্টিউম ডিজাইনার জিমির সঙ্গে বোনকে নিয়ে বাইরে গিয়েছিলাম। অমি আমাদের নিয়ে যায় আশুলিয়ায় উত্তরা বোট ক্লাবে। সেখানে মদ্যপানরত কয়েকজন ব্যক্তির সঙ্গে পরিচয় করিয়ে দেন অমি। ওই ব্যক্তিদের মধ্যে একজনের নাম নাসিরউদ্দিন আহমেদ। তিনি নিজেকে ক্লাবটির প্রেসিডেন্ট পরিচয় দেন। নাসিরউদ্দিনসহ উপস্থিত ব্যক্তিরা আমার সঙ্গে বাজে আচরণ করেন।

পরীমনি এজাহারে আরও উল্লেখ করেন, ‘মদপান করতে না চাইলে নাসির উদ্দিন (১ নম্বর আসামি) জোর করে আমার মুখের মধ্যে মদের বোতল প্রবেশ করিয়ে মদ খাওয়ানোর চেষ্টা করে। এতে আমি সামনের দাঁত ও ঠোঁটে আঘাত পাই। সে আমাকে অকথ্য ভাষায় গালিগালাজ করে। আমার শরীরের বিভিন্ন স্থানে স্পর্শ করে এবং আমাকে জোর করে ধর্ষণের চেষ্টা করে।’

তবে এই নায়িকার অভিযোগ অস্বীকার করেছেন নাসির। তিনি বলছেন, ক্লাবে সেদিন পরীমনি ‘জোর করে দামি মদ নিতে গেলে’ বাধা দিয়েছিলেন তিনি, তাতে এই অভিনেত্রী উত্তেজিত হয়ে তাকে ‘আক্রমণ’ করেন। পরে নিরাপত্তা রক্ষীরা এসে তাকে বের করে দেয়।