একজনকে উদ্ধার করতে গিয়ে অন্যজন অজ্ঞান, ২ শ্রমিকের রহস্যজনক মৃত্যু

বৃহস্পতিবার, মে ১৩, ২০২১

কক্সবাজার : কক্সবাজারের টেকনাফে পাতকুয়া পরিষ্কার করতে নেমে মোহাম্মদ ফরহাদ( ১৭) ও মোহাম্মদ রহমাতুল্লাহ (৩৬) নামে দুইজন শ্রমিকের রহস্যজনক মৃত্যু হয়েছে। বৃহস্পতিবার (১৩ মে) দুপুর দেড়টার দিকে টেকনাফ পৌরসভার কায়ুকখালীয়াপাড়ার মরহুম মোহাম্মদ ইসলামের বাড়িতে এ ঘটনা ঘটে।

নিহত দুইজন হলেন- টেকনাফ পৌরসভার কলেজপাড়ার বাসিন্দা মোহাম্মদ আলম ওরফে বাইলা ছেলে মোহাম্মদ ফরহাদ (১৭) ও পৌরসভার পুরান পল্লানপাড়ার মোহাম্মদ হাসানের ছেলে মোহাম্মদ রহমাতুল্লাহ (৩৬) ।

ঘটনার প্রত্যক্ষদর্শী ও ফায়ার সার্ভিস সূত্রে জানায়, টেকনাফ পৌরসভার কায়ুকখালীয়াপাড়া বাসিন্দা মো মোহাম্মদ ইসলামের ছেলে মোহাম্মদ কায়সার আহমেদের বাড়ির প্রায় ২০-২৫ ফুট গভীরতার একটি পাতকুয়া পরিষ্কার করার জন্য দুইজন শ্রমিকের সঙ্গে তিন হাজার টাকা মজুরিতে কথা হয়।

ফরহাদ পরিষ্কার করতে পাতকূয়ায় নেমে কয়েক বালতি ময়লা-আবর্জনা তুলে আনার প্রায় আধাঘণ্টা পর হঠাৎ করে সে পাতকুয়ার নিচে ধুলে পড়ে গেলে তাকে উদ্ধার করতে নামেন মোহাম্মদ রহমাতুল্লাহ। পরে দুইজনে অজ্ঞান হয়ে পড়ে। ওখানে থাকা লোকজন চিৎকার করলে তাদের উদ্ধার করার মতো কোনো লোকজন সেখানে ছিল না।

পরে খবর পেয়ে টেকনাফ ফায়ার সার্ভিসের উদ্ধারকারী দল ঘটনাস্থলে এসে পুকুর থেকে দুইজনকে উদ্ধার করে। দ্রুত তাদের টেকনাফ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নেওয়া হলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন।

টেকনাফ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের জরুরি বিভাগের চিকিৎসক তন্ময় সরকার বলেন, হাসপাতালে আনার আগেই দুই জনের মৃত্যু হয়েছে। দুজনের শরীরে কোন ধরনের আঘাতের চিহ্ন নেই। তবে ধারণা করা হচ্ছে, বিষক্রিয়ায় তাদের মৃত্যু হয়েছে। ময়নাতদন্তের প্রতিবেদন পাওয়া পর মৃত্যুর সঠিক তথ্য জানা যাবে।

টেকনাফ ফায়ার সার্ভিসের দলনেতা মুকুল কুমার নাথ বলেন, ফায়ার সার্ভিসের উদ্ধারকারী কর্মীরা ঘটনাস্থলে গিয়ে পাতকুয়া থেকে দুইজন শ্রমিকের মৃতদেহ উদ্ধার করেন। তবে পাতকুয়ায় পানিও ছিল না । বিষক্রিয়া হয়ে দুইজনের মৃত্যু হয়েছে বলে প্রাথমিকভাবে ধারণা করা হচ্ছে ।

টেকনাফ মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো হাফিজুর রহমান বলেন, পাতকুয়া পরিষ্কার করতে গিয়ে নিহত দুজনের লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য কক্সবাজার সদর হাসপাতালে পাঠানো প্রক্রিয়া চলছে । এ ঘটনায় আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হচ্ছে।