বাংলাদেশে করোনায় আরও ৯১ জনের মৃত্যু, নতুন শনাক্ত ৪৫৫৯

মঙ্গলবার, এপ্রিল ২০, ২০২১

ঢাকা : করোনা মহামারির তাণ্ডবে টালমাটাল বিশ্ব। বর্তমানে বাংলাদেশসহ বিশ্বের বিভিন্ন দেশে চলছে করোনার দ্বিতীয় ঢেউ। এ অবস্থায় বিগত বেশ কিছুদিন ধরে দেশে করোনা রোগী শনাক্তের হার উদ্বেগজনকভাবে বেড়েছে। সবশেষ গত ২৪ ঘণ্টায় দেশে নতুন রোগী শনাক্ত বেড়েছে, তবে এ সময় মৃত্যু কিছুটা কমেছে।

গত ২৪ ঘণ্টায় দেশে চার হাজার ৫৫৯ জন নতুন রোগী শনাক্ত হয়েছে। গত ৭ এপ্রিল করোনা রোগী শনাক্ত হয় সাত হাজার ৬২৬ জন। যা একদিনে এ যাবতকালের সর্বোচ্চ শনাক্তের রেকর্ড।

আগের সাত দিনে দেশে যথাক্রমে ৪২৭১, ৩৬৯৮, ৩৪৭৩, ৪৪১৭, ৪১৯২, ৫১৮৫ ও ৬০২৮ জন রোগী শনাক্ত হয়।

সর্বশেষ তথ্য অনুসারে দেশে নভেল করোনা ভাইরাসে (কোভিড-১৯) মোট আক্রান্তের সংখ্যা দাঁড়িয়েছে সাত লাখ ২৭ হাজার ৭৮০ জনে।

গত ২৪ ঘণ্টায় দেশে ২৭ হাজার ৫৬টি নমুনা পরীক্ষা করা হয়েছে। আর পরীক্ষাকৃত এসব নমুনার ১৬ দশমিক ৮৫ শতাংশের মধ্যে করোনা ভাইরাসের উপস্থিতি পাওয়া গেছে।

গতকাল দেশে ২৪ হাজার ১৫২টি নমুনা পরীক্ষা করা হয়েছে। এখন পর্যন্ত দেশে মোট ৫২ লাখ ২১ হাজার ২৭৫টি নমুনা পরীক্ষা করা হয়েছে। আর মোট পরীক্ষার ১৩ দশমিক ৯৪ শতাংশ পজিটিভ।

আজ মঙ্গলবার (২০ এপ্রিল) বিকেলে স্বাস্থ্য অধিদফতর থেকে পাঠানো সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এসব তথ্য জানানো হয়েছে।

একনজরে দেশের করোনার চিত্র

নতুন করে শনাক্ত হয়েছেন: ৪৫৫৯ জন

মোট আক্রান্তের সংখ্যা: ৭২৭৭৮০ জন

২৪ ঘণ্টায় মৃত্যু হয়েছে: ৯১ জনের

মোট মৃত্যু হয়েছে: ১০৫৮৮ জনের

২৪ ঘণ্টায় সুস্থ হয়েছেন: ৬৮১১ জন

মোট সুস্থ হয়েছেন: ৬২৮১১১ জন

গত ২৪ ঘণ্টায় করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে ৯১ জন মারা গেছেন। গতকাল সোমবার (১৯ এপ্রিল) করোনায় মারা যান ১১২ জন, যা এযাবতকালের সর্বোচ্চ মৃত্যু। এর আগে রোববার (১৮ এপ্রিল) দেশে করোনায় মারা যান ১০২ জন। শনিবার (১৭ এপ্রিল) ও শুক্রবার (১৬ এপ্রিল) দেশে করোনায় মারা যান ১০১ জন।

গত সাত দিনে করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে মারা গেছেন যথাক্রমে ১১২, ১০২, ১০১, ১০১, ৯৪, ৯৬ ও ৬৯ জন।

সর্বশেষ তথ্য অনুসারে দেশে করোনায় মোট মৃত্যুর সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ১০ হাজার ৫৮৮ জনে। মোট শনাক্তকৃত রোগীর বিপরীতে মৃত্যুর হার এক দশমিক ৪৫ শতাংশ।

গত ২৪ ঘণ্টায় দেশে আরও ছয় হাজার ৮১১ জন সুস্থ হয়েছেন বলে জানানো হয়েছে। দেশে এখন পর্যন্ত করোনা থেকে মোট সুস্থ হয়েছেন ছয় লাখ ২৮ হাজার ১১১ জন। মোট শনাক্ত বিবেচনায় সুস্থতার হার ৮৬ দশমিক ৩১ শতাংশ।