বিদ্রোহী লিগে রিয়াল-বার্সাসহ ১২ ক্লাব, নতুন ঝড় ইউরোপের ফুটবলে

সোমবার, এপ্রিল ১৯, ২০২১

নিউজ ডেস্ক: গুঞ্জন-শঙ্কা ছিল কয়েক দিন ধরে। ইউরোপের সেরা কয়েকটি দল যোগ দিতে চলেছে বিদ্রোহী লিগ খ্যাত সুপার লিগে। তখনই উয়েফা হুঁশিয়ারি দিয়েছিল, যেসব ক্লাব এই লিগে খেলবে, তাদেরকে নিষিদ্ধ করা হবে ঘরোয়া ও আন্তর্জাতিকভাবে। এমন ঘটনার মধ্যে ইউরোপের শীর্ষ দলগুলো ফাটালো নতুন করে বোমা।

রোববার রাতে ইউরোপের রিয়াল-বার্সাসহ ১২টি ক্লাব বিবৃতি দিয়ে জানিয়েছে, প্রস্তাবিত এই লিগে তারা যোগ দিতে যাচ্ছে। এদিকে কঠোর অবস্থানে উয়েফা। সব মিলিয়ে ফুটবল বিশ্বে নতুন এক ঝড় তৈরি হলো।

এই সুপার লিগের জন্য স্পেন থেকে যোগ দিয়েছে রিয়াল মাদ্রিদ, বার্সেলোনা ও আটলেটিকো মাদ্রিদ, ইংল্যান্ড থেকে ম্যানচেস্টার ইউনাইটেড, ম্যানচেস্টার সিটি, লিভারপুল, আর্সেনাল, চেলসি ও টটেনহ্যাম হটস্পার এবং ইতালি থেকে জুভেন্টাস, এসি মিলান ও ইন্টার মিলান। প্রাথমিকভাবে, ২৩ বছরের জন্য হয়েছে এই চুক্তি। সুপার লিগের প্রথম চেয়ারম্যান হয়েছেন রিয়াল মাদ্রিদের প্রেসিডেন্ট ফ্লোরেন্তিনো পেরেস।

জার্মানি ও ফ্রান্সের কোনো ক্লাবের যোগ দেয়ার খবর এখনো পাওয়া যায়নি। তবে এই ১২ ক্লাবের সাথে আরো তিনটি ক্লাব শিগগিরই যোগ দেবে বলে জানিয়েছে সুপার লিগ কর্তৃপক্ষ। প্রতিষ্ঠাকালীন এই ১৫ ক্লাবের সাথে প্রতি বছর কোয়ালিফাই করে আসা ৫ ক্লাব, মোট ২০ দল নিয়ে হবে এই টুর্নামেন্ট।

সুপার লিগ কতৃপক্ষ বলছে, ভবিষ্যতে উয়েফা ও ফিফার সাথে আলোচনা করে কাজ করতে চায় তারা।

উয়েফা চ্যাম্পিয়ন্স লিগের বিকল্প হিসেবে এই লিগের কথা শোনা যাচ্ছিল অনেক বছর ধরেই। চ্যাম্পিয়ন্স লিগ খেলে উয়েফার কাছ থেকে যে অর্থ পাওয়া যাচ্ছে, এর চেয়ে বেশি অর্থ বড় ক্লাবগুলো প্রাপ্য বলে তাদের দাবি অনেক দিনের। সেই অসন্তুষ্টি থেকেই মূলত নতুন এই সুপার লিগের ভাবনা। এই লিগে স্রেফ অংশ নিলেই বিপুল অঙ্কের অর্থ আয় হবে, এমনই লক্ষ্য ক্লাবগুলোর।

পরিকল্পনা অনুযায়ী, ২০ ক্লাব দুটি গ্রুপে ভাগ হয়ে হোম অ্যান্ড অ্যাওয়ে পদ্ধতিতে খেলবে। প্রতি গ্রুপের শীর্ষ তিন দল উঠবে কোয়ার্টার ফাইনালে। গ্রুপের চতুর্থ ও পঞ্চম হওয়া ক্লাবের প্লে অফ থেকে আসবে শেষ আটের অন্য দুই দল।

আলাদা এই লিগের প্রয়োজনীয়তা তুলে ধরেন সুপার লিগের চেয়ারম্যান ফ্লোরেন্তিনো পেরেস। তিনি জানান, ফুটবলকে প্রতিটি পর্যায়ে সাহায্য করব আমরা এবং এটিকে বিশ্বে সঠিক জায়গায় নিয়ে যাব। ফুটবলই একমাত্র বৈশ্বিক খেলা, যেটির চারশ’ কোটির বেশি সমর্থক আছে এবং বড় ক্লাবগুলোর দায়িত্ব এই সমর্থকদের চাওয়া পূরণ করা।