করোনা: ২৪ ঘন্টায় বরিশালে শনাক্ত ১০২, মৃত্যু-২

শুক্রবার, এপ্রিল ৯, ২০২১

ঢাকা : বিগত ২৪ ঘন্টায় বরিশাল বিভাগে সর্বোচ্চ ১০২ জন করোনা আক্রান্ত শনাক্ত হয়েছে। আর করোনা পজেটিভ দুইজন রোগীর মৃত্যু হয়েছে। যা নিয়ে মৃত্যুর সংখ্যা দাড়ালো ২২৩ জন।

মৃত্যুবরণকারীদের মধ্যে পটুয়াখালীর বাউফলের শামসুল হক (৭০) ও বরিশাল নগরের নিউ সার্কুলার রোড এলাকার মোঃ দেলোয়ার হোসাইন (৮২) রয়েছেন। এরমধ্যে দেলোয়া হোসাইন বরিশাল শের ই বাংলা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে মৃত্যুবরণ করেন।

এছাড়া গেলো ২৪ ঘন্টায় বরিশাল শের ই বাংলা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের আইসোলেশন ওয়ার্ডে ঝালকাঠির রাজজাপুর সদরের গোরস্থান রোড এলাকার ফুল বানু (১০০), বরিশাল নগরের দক্ষিন আলেকান্দার আফরোজা (৪৮) ও ২৪ নম্বর ওয়ার্ডের আঃ ছত্তার (৭০) করোনার উপসর্গ নিয়ে আরো ৩ জনের মৃত্যু হয়েছে। যাদের নমুনা সংগ্রহ করে পরীক্ষার জন্য ল্যাবে প্রেরণ করা হয়েছে।

স্বাস্থ্য অধিদফতরের বরিশাল বিভাগীয় কার্যালয়ের উপ-পরিচালক ডাঃ বাসুদেব কুমার দাস জানান, সকলকে স্বাস্থ্য বিধি মেনে চলাচলের জন্য আহবান জানিয়ে বলেন, করোনার প্রথম ঢেউয়ে বরিশাল বিভাগে সংক্রমনের হার কম ছিল। কিন্তু দ্বিতীয় ঢেউয়ে সংক্রমনের হার বেশি। এই অবস্থায় শুধু করোনার টিকা গ্রহন করলেই চলবে না স্বাস্থ্য বিধি মেনে চলতে হবে।

বিভাগীয় স্বাস্থ্য দফতর বলছে, ২৪ ঘন্টায় সবচেয়ে বেশি আক্রান্ত শনাক্ত হয়েছে ঝালকাঠি জেলায় ২৫ জন। এরপর ভোলায় ১৮, পিরোজপুরে ১৭, পটুয়াখালীতে ১৫, বরিশালে ১৪ ও বরগুনায় ১৩ জন রয়েছেন। এ নিয়ে ১৩ মাসে মোট আক্রান্ত হয়েছেন ১২ হাজার ২৫০ জন। এরমধ্যে সর্বো্চ্চ বরিশালে ৫ হাজার ৫৬১, এরপর পটুয়াখালীতে ১ হাজার ৮৯৪ জন, পিরোজপুরে ১ হাজার ৩৬৬, ভোলা ১ হাজার ৩০৩ জন, বরগুনা ১ হাজার ১২২ জন এবং ঝালকাঠিতে ১ হাজার ৪ জন।

এই ২৪ ঘন্টায় মাত্র ২০ জন রোগী বরিশাল বিভাগে করোনা সংক্রমন থেকে সুস্থতা লাভ করেছেন। যা নিয়ে মোট সুস্থ হয়েছেন ১০ হাজার ৭৬৭ জন। অর্থাৎ আক্রান্ত শনাক্তের মধ্যে ১ হাজার ৪৮৩ জন করোনা রোগী চিকিৎসাধীন রয়েছেন। এরমধ্যে কিছু রোগী হাসপাতালে, অন্যরা নিজ বাসায় চিকিৎসাধীন।

বিভাগে করোনায় আক্রান্ত হয়ে মৃত্যুবরণকারীদের মধ্যে সবচেয়ে বেশি মারা গেছেন বরিশাল জেলায়। মোট মৃত্যুবরণ করা ২২৩ জনের মধ্যে বরিশাল জেলায় সর্বোচ্চ ৯৫ জন, এরপর পটুয়াখালীতে ৪৬ জন, পিরোজপুরে ২৭ জন, বরগুনায় ২২ জন, ঝালকাঠিতে ২০ জন এবং ভোলায় ১৩ জন ।

প্রসঙ্গত, বরিশাল বিভাগের মধ্যে সর্বপ্রথম ২০২০ সালের ৯ মার্চ নারায়নগঞ্জ ফেরত পটুয়াখালীর দশমিনা উপজেলার এক শ্রমিক আক্রান্ত শনাক্ত হন। সেদিন থেকে আজ পর্যন্ত ৩৯৬ দিনের আপডেটে এই তথ্য জানিয়েছে স্বাস্থ্য অধিদফতর।