বান্দরবানে হত্যা মামলায় দুইজনের যাবজ্জীবন

সোমবার, মার্চ ১, ২০২১

বান্দরবান : বান্দরবানের আলীকদমে শারীরিক প্রতিবন্ধী পাহাড়ী নারীকে হত্যা মামলায় ২ জনের যাবজ্জীবন কারাদণ্ড দিয়েছে বিজ্ঞ আদালত। সঙ্গে হত্যাকারীদের ১ লাখ টাকা করে অর্থদণ্ড অনাদায়ে ৬ মাসের বিনাশ্রম কারাদণ্ডের আদেশ দিয়েছেন নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনাল আদালতের বিচারক মো. এহসানুল হক।

রবিবার আদালত রাষ্ট্রপক্ষের ১৫ জন্য স্বাক্ষীর জবানবন্দিতে এই রায় দেন।

আদালত সূত্রে জানা গেছে, গত ২০১৮ সালের আলীকদম উপজেলার আমতলী অসুথু ত্রিপুরা পাড়া প্রাথমিক বিদ্যালয়ের পূর্বপাশে পাহাড়ের ঢালুতে ঢাক্রুন গাছের সাথে ফাঁস লাগানো ঝুলন্ত অবস্থায় লাকাচিং তঞ্চঙ্গ্যা নামে এক শারীরিক প্রতিবন্ধীর লাশ উদ্ধার করে পুলিশ।

এ ঘটনায় আলীকদম থানায় অপমৃত্যু মামলা নং-৭,২৫/১১/২০১৮ রুজু হয়। কিন্তু পরবর্তিতে পুলিশ বিস্তারিত তথ্যের ভিত্তিতে আলীকদম থানায় একটি হত্যা মামলা দায়ের করেন। আলীকদম থানা মামলা নং ৩,১৫/০৪/২০১৯। পরে রাষ্ট্রপক্ষের নারী ও শিশু আদালতে মামলা নং ৩৬/২০১৯ (জি.আর মামলা নং ১১৯/২০১৯। উক্ত মামলায় পুলিশ পুলিশ সন্দেহ জনক ৩ আসামিকে গ্রেফতার করে।

দীর্ঘ শোনানি শেষে নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনাল আদালতের বিচারক মো. এহসানুল হক ১৫ জনের স্বাক্ষী এবং উভয়পক্ষের আইনজীবীর বক্তব্য শুনে ২ জন আসামীকে যাবজ্জীবন কারাদণ্ড আদেশ দিয়েছে। একসাথে দণ্ডপ্রাপ্তদের ১ লাখ টাকা করে অর্থদণ্ড, অনাদায়ে ৬ মাসের বিনাশ্রম কারাদণ্ডের আদেশ দিয়েছেন আদালত। তবে ১ জন আসামীকে বেখসুর খালাস দিয়েছেন আদালত।

সাজাপ্রাপ্ত আসামিরা হলেন আলীকদমের জ্বলন্তমনি পাড়ার বাসিন্দার জয়কুমার তঞ্চঙ্গ্যা (৩৫) এবং আমতলী পাড়ার বাসিন্দার যহন ত্রিপুরা (৪৩)। অপরদিকে অভিযোগ প্রমানিত না হওয়ায় আবুমং কার্বারী পাড়ার বাসিন্দার ত্রিমথীয় ত্রিপুরা (২৫) কে বেখসুর খালাস দিয়েছেন আদালত।

ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে বান্দরবান জেলা ও দায়রা জজ আদালতের ভারপ্রাপ্ত নাজির বেদারুল আলম জানান, ২০১৮ সালের একটি হত্যা মামলায় আদালত ২ জনকে যাবজ্জীবন কারাদণ্ড এবং ১ জন আসামীকে বেখসুর খালাস দিয়েছেন নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনাল। দণ্ডপ্রাপ্তদের ১ লাখ টাকা করে অর্থদণ্ড, অনাদায়ে আরও ৬ মাসের বিনাশ্রম কারাদণ্ডের আদেশ দিয়েছেন।