মুলা কেন খাবেন?

সোমবার, জানুয়ারি ৪, ২০২১

স্বাস্থ্য ডেস্ক: শীতকালে মুলা খাবেন না, তা কি হয়! অথচ অনেকেই আছেন মুলার নাম শুনলেই ভ্রু কুঁচকান। মুলা খেতে চান না। অথচ তরকারি কিংবা সালাদ হিসেবে এই মুলা খেতে পারলে অনেক উপকার পাওয়া যায়। যকৃত ও পাকস্থলি পরিষ্কারে মুলা খুবই কার্যকর। পুষ্টিবিদেরাও মুলার পুষ্টিগুণের কথা বলে থাকেন।

কেন খাবেন মুলা? ভিটামিন ‘সি’ সমৃদ্ধ এই মুলায় কী কী উপকার? নিচে মুলার ১০টি উপকারের কথা তুলে ধরা হলো-
১. মুলা রক্তে অক্সিজেন সরবরাহ বাড়ায় এবং রক্তের রোহিত কণিকা ধ্বংসের হাত থেকে রক্ষা করে।
২. মুলায় থাকা প্রচুর পরিমাণ ফাইবকার হজমে সহায়তা করে। এছাড়াও পিত্ত উৎপাদনকে নিয়ন্ত্রণ, যকৃত ও গল ব্লাডারকে রক্ষা ও শরীরে পানি ধারণ ক্ষমতা বৃদ্ধি করে।
৩. মুলায় থাকা অ্যান্থোসায়ানিনস হৃদযন্ত্রের সুরক্ষা দেয়। মুলা খেলে হৃদরোগেরও ঝুঁকি কমে।
৪. মুলায় থাকা পটাাশিয়াম শরীরে রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণে রাখার পাশাপাশি রক্তপ্রবাহ ঠিক রাখে। যারা উচ্চ রক্তচাপে ভোগের তারা মুলা খেতে পারেন। এছাড়াও মুলায় আছে রক্ত শীতলকারী প্রভাব।
৫. মুলায় প্রচুর পরিমাণ ভিটামিন ‘সি’ থাকায় এটি সর্দিকাশি থেকে সুরক্ষাসহ রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়ায়। নিয়মিত মুলা খেলে প্রদাহ ও অকালবার্ধক্য দূর হয়।
৬. মুলা শরীরে কোলাজেন তৈরিতে দারুণ ভূমিকা রাখে এবং রক্তনালী শক্তিশালী করে।
৭. মুলা শুধু পাচনতন্ত্রই নয়, বিপাকেও ভূমিকা রাখে। মূলা অম্ল, স্থূলতা, গ্যাসট্রিক, মাথাব্যথা, বমিভাগ দূর করে।
৮. উচ্চ পুষ্টিগুণ সমৃদ্ধ মুলায় ভিটামিন ই, এ, সি, বি৬ ও কে থাকে। যা শরীরকে কর্মঠ রাখতে সহায়তা করে।
৯. ত্বক সুন্দর ও সতেজ রাখতে মুলার জুস খেতে পারেন। ত্বকের শুষ্কতা, ব্রণ ও দাগ দূর করতে এবং চুলের খুশকি দূর, চুল পড়া বন্ধ ও চুলের গোড়া শক্ত করতে মুলা খুবই কার্যকরী।
১০. মুলায় প্রচুর জলীয় পরিমাণ থাকায় শরীরকে আর্দ্র রাখতে সহায়তা করে।