নতুন ঠিকানা খুঁজে নিলেন শ্রীলেখা!

বৃহস্পতিবার, নভেম্বর ২৬, ২০২০

বিনোদন ডেস্ক : ৭ বছর আগে স্বামীর সঙ্গে ছাড়াছাড়ি হলেও কদিন আগেই বিয়ের ১৭তম বছর পূর্ণ করেছেন টলিগঞ্জের বহুল আলোচিত ও বিতর্কিত অভিনেত্রী শ্রীলেখা মিত্র। তবে গেল ২০ নভেম্বর দিনটিকে ‘বিবাহবার্ষিকী’ বলতে নারাজ অভিনেত্রী। তবে ওইদিন নস্টালজিয়া পেয়ে বসেছিল শ্রীলেখাকে।

ওইদিন সকাল সকাল প্রাক্তন স্বামীর সাথে বিয়ের দিনের কয়েকটি ছবি পোস্ট করে শ্রীলেখা লিখেছিলেন- ‘আজ হতে পারতো আমাদের ১৭তম বিবাহ বার্ষিকী! হ্যান্ডসাম না আমার প্রাক্তন? তাইতো আর সেভাবে কাউকে মনে ধরলো না…।’

সোস্যাল মিডিয়ায় মাঝেমধ্যেই নতুন নতুন ছবি আর মন্তব্য করে খবরের শিরোনাম হন শ্রীলেখা। কিছুদিন আগেও ফেসবুকে লিখেছিলেন- ‘সেক্সারসাইজ নয়, এক্সারসাইজেই গ্লো করছেন তিনি।’ এ নিয়েও তখন নেটিজেনদের মধ্যে মন্তব্যের ঝড় উঠে।

এবার সেই শ্রীলেখার নতুন পরিচয় নিয়ে হইচই শুরু হয়েছে। ঘটনাটা আসলে গেল ২২ নভেম্বরের। ওইদিন পশ্চিমবঙ্গের উত্তর ২৪ পরগণার বরাহনগরে কমিউনিস্ট পার্টি অব ইন্ডিয়ার (সিপিএম) একটি ফ্রি কোচিং ক্লাসের আনুষ্ঠানিক উদ্বোধনে গিয়েছিলেন শ্রীলেখা। এরপরই প্রশ্ন উঠেছে- তবে কি রাজনীতির আঙিনায় আসছেন নায়িকা?

সাংবাদিকরাও শ্রীলেখাকে সেই প্রশ্নটি ছুড়ে দিয়েছিলেন। প্রশ্ন শুনেই মুখ উপচানো হাসিতে তিনি পাল্টা প্রশ্ন রেখে বলেন, ‘মনে হচ্ছে তাই? তা হলে তাই-ই…।’

শ্রীলেখা বলেন, ‘আমি কট্টর বামপন্থি। আজ নয়, বরাবরই। সে কথা প্রথম প্রকাশ্যে আসে সৌরভ পালধির একটি ডিজিটাল প্লাটফর্মের অনুষ্ঠানে যাওয়ার পর। বাম নেতারাও জানেন তাদের প্রতি আমার সমর্থনের কথা।’

টলিগঞ্জের অনেক অভিনেতা-অভিনেত্রীই ক্ষমতাসীন তৃণমূল কিংবা প্রধান বিরোধী দল বিজেপির রাজনীতির সঙ্গে জড়িত। সেদিক থেকে শ্রীলেখাও হয়তো সঠিক হাওয়ায় চলছেন।

এই অভিনেত্রী বলেন, ‘হঠাৎ করে সবুজ বা গেরুয়া রঙে নিজেকে রাঙিয়ে নেয়া যায়। কিন্তু লাল পতাকাকে সমর্থন করতে গেলে সেটা হঠাৎ করে হয় না। সেজন্য শিক্ষার প্রয়োজন। কারণ এই একটি রাজনৈতিক দল ভীষণ শিক্ষিত।’

পশ্চিমবঙ্গের রাজনীতিতে বামদের জনপ্রিয়তায় ভাটার বিষয়টি মানতে নারাজ শ্রীলেখা বলেন, ‘একটু খেয়াল করলেই দেখা যাবে লাল পতাকা কিন্তু আবার জাগছে। অনেক স্থানে শ্রমজীবী ক্যান্টিন, করোনাকালীন সস্তায় বাজার ও রক্তদান শিবির হয়েছে। মেহনতি মানুষ আবারও জাগছে।’