মাহমুদুর রহমান মান্না’র উপর ছাত্রলীগ-যুবলীগের সশস্ত্র হামলা, আহত ৩৫

সোমবার, অক্টোবর ১৯, ২০২০

নারায়ণগঞ্জ: নাগরিক ঐক্যের আহ্বায়ক মাহমুদুর রহমান মান্নার গাড়ি ভাঙচুর করা হয়েছে। খালেদা জিয়ার রোগমুক্তি কামনায় দোয়া ও চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা তৈমূর আলমের জন্মদিনের কর্মসূচিতে এ হামলা চালানো হয়। এতে মাহমুদুর রহমান মান্না, তৈমূর আলম খন্দকারসহ ২০ জন আহত হয়েছেন।

সোমবার (১৯ অক্টোবর) সন্ধ্যায় নারায়ণগঞ্জের রূপগঞ্জে খন্দকার বাড়ির সামনে আয়োজিত এ কর্মসূচিতে এ হামলার ঘটনা ঘটে। বিএনপি নেতাকর্মীর অভিযোগ, হামলাকারীরা ছাত্রলীগ ও যুবলীগের নেতাকর্মী ছিলো।

বিএনপি নেতাকর্মীর অভিযোগ, সোমবার সকালে রূপসী খন্দকারবাড়ি এলাকায় বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার সুস্থতা কামনা ও বিএনপি চেয়ারপারনের উপদেষ্টা অ্যাডভোকেট তৈমূর আলম খন্দকারের জন্মবার্ষিকী উপলক্ষ্যে বস্ত্র বিতরণ কর্মসূচির আয়োজন করা হয়।

কর্মসূচিতে জেলা ছাত্রদলের সাবেক সভাপতি মোশারফ হোসেনের সভাপতিত্বে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন নাগরিক ঐক্যের আহবায়ক মাহমুদুর রহমান মান্না। বিকেল ৫ টার দিকে মাহমুদুর রহমান মান্নার বক্তব্য চলাকালীন ৩০/৪০ জন অতর্কিত হামলা চালায়।

একপর্যায়ে হামলাকারী সভাস্থলের প্যান্ডেল, চেয়ার ভাঙচুর করে। মাহমুদুর রহমান মান্না, চেয়ারপারনের উপদেষ্টা অ্যাডভোকেট তৈমূর আলম খন্দকারসহ ২০ জন আহত হয়েছে।

আহতরা হলেন- হামলায় যুবদল নেতা আশরাফুল আলম রিপন, আনোয়ার সাদাত সায়েম, তারিকুল ইসলাম বিপুল, মহিবুর রহমান, আবু মাসুম, আজিম সরকার, জামাল হোসেন, মফিজুর রহমান, আনিছুর রহমান, হানিফ, আব্দুল মান্নান, ফাতেমা বেগম, নজরুল, আনোয়ার, নাজমুল, কাজল গাজী, খালেদ হোসেন রতন, গোলাপ হোসেন, এনায়েত হোসেন, ইসমাঈল হোসেন, আব্দুল লতিফ মেম্বার, সুলতান আহম্মেদ মোড়ল, হামিদুর রহমান, আশরাফুল ইসলাম, ঈমান আলী। এসময় দৈনিক করতোয়ার রূপগঞ্জ প্রতিনিধি মঞ্জুরুল কবির বাবু, কেটিভির রূপগঞ্জ প্রতিনিধি শাকিল আহম্মে আহত হয় ।

রূপগঞ্জ থানা ছাত্রলীগের সভাপতি ফয়সাল শিকদার বলেন, হামলার অভিযোগ অস্বিকার করে বলেন, ওই এলাকার ছাত্রলীগ যুবলীগ সহ অন্যান্য সংগঠনের যারা আছে তারা তাদের জিজ্ঞাসা করতে সেখানে যায়। যে কি অনুষ্ঠান চলছে তা জানার চেষ্টা করেছে মাত্র। পরবর্তীতে তারা অনুষ্ঠান বাতিল করে চলে যায়।

তৈমূর আলম খন্দকার দাবি করেন বলেন, স্থানীয় যুবলীগ ও ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা হামলা ও ভাঙচুর চালিয়েছে।

রূপগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মাহমুদুল ইসলাম জানান, বিএনপির নেতাকর্মীরা কোন অনুমতি না নিয়ে সভা করেছে। তবে কোন হামলার ঘটনার খবর তারা পায়নি।

নারায়ণগঞ্জ এএসপি মাহিন ফরাজী বলেন, কোন হামলার ঘটনা ঘটেনি। আওয়ামী লীগের কিছু নেতাকর্মীরা তাদের ব্যারিকেড দিয়েছিলো। পরে ঘটনাস্থলে পুলিশ গেলে তারা চলে যায়।