নুরকে ঢাবিতে অবাঞ্ছিত ঘোষণা ছাত্রলীগের

রবিবার, সেপ্টেম্বর ২৭, ২০২০

ঢাকা: ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় কেন্দ্রীয় ছাত্র সংসদ (ডাকসু)’র সাবেক ভিপি নুরুল হক নুরকে ক্যাম্পাসে অবাঞ্ছিত ঘোষণা করেছে ছাত্রলীগ। পাশাপাশি ঢাবির শিক্ষার্থীকে ধর্ষণের দায়ে অভিযুক্ত আসামিদের গ্রেপ্তার করতে ৪৮ ঘণ্টার আলটিমেটাম দিয়েছে সংগঠনটি।

রোববার দুপুরে বিশ্ববিদ্যালয়ের টিএসসি সংলগ্ন সন্ত্রাস বিরোধী রাজু ভাস্কর্যের পাদদেশে বাংলাদেশ ছাত্রলীগ ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় শাখা আয়োজিত বিক্ষোভ সমাবেশে এই ঘোষণা দেন বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগের সভাপতি সনজিত চন্দ্র দাস।

এছাড়াও সিলেটের এমসি কলেজ, খাগড়াছড়ি ও সাভারে ধর্ষণের সাথে জড়িত সকলের গ্রেপ্তার ও বিচার নিশ্চিত করার দাবি জানানো হয় সমাবেশে।

সনজিত বলেন, ‘আমাদের জন্য লজ্জার যে আমাদের বোন ধর্ষিত হয়েছে যাদের দ্বারা তাদের সংগঠনের নেতারাসহ বিশ্ববিদ্যালয়ের কিছু মানসিক বিকারগ্রস্ত শিক্ষার্থী সেই ধর্ষকদের বাঁচানোর জন্য আন্দোলন করছে। বাংলাদেশ ছাত্র অধিকার পরিষদ পুরোটাই মানসিক বিকারগ্রস্ততায় ভুগছে। তাদের চিকিৎসার প্রয়োজন। এরা নিজেরা বাঁচার জন্য অপরাধ করে দায় চাপাচ্ছে ছাত্রলীগের উপর।’

তিনি বলেন, ‘আমরা দেখেছি এই অপরাধীদের পক্ষে সুশীল সমাজের একটি অংশ সাফাই গাচ্ছেন। এই ধর্ষকের পক্ষে যারা কথা বলছেন তাদের এবং ধর্ষণের দায়ে অভিযুক্তদের ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে ক্যাম্পাসে অবাঞ্ছিত ঘোষণা করছি। ৪৮ ঘন্টার মধ্যে তাদের গ্রেপ্তার না করলে সারাদেশের ছাত্রলীগ কর্মীদের সাথে নিয়ে দুর্বার আন্দোলন গড়ে তোলা হবে।’

ধর্ষকদের দেখা মাত্র গণধোলাই দিয়ে পুলিশে সোপর্দ করার নির্দেশ দেন ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয় সভাপতি আল-নাহিয়ান খান জয়।

ডাকসুর সাবেক ভিপি নুরকে নাটকবাজ আখ্যা দিয়ে জয় বলেন, নুর গুজবের সহায়তা নিয়ে ভিপি নির্বাচিত হয়েছেন। এর দ্বারা তিনি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের মর্যাদাহানি করেছেন।

ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয় সাধারণ সম্পাদক লেখক ভট্টাচার্য বলেন, ছাত্রলীগ সর্বদা ধর্ষণের বিরুদ্ধে লড়াই সংগ্রাম করে এসেছে। যেই বোন তাদের আন্দোলনের নিজের আঁচল দিয়ে ঘাম মুছে দিয়েছে, রান্না করে খাইয়েছে সেই বোনকেই ধর্ষণ করেছে সংগঠনের শীর্ষ নেতা। এর মাধ্যমে তারা ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়কেই ধর্ষণ করেছে।

ডাকসুর সাবেক সদস্য রাইসা নাসের বলেন, ধর্ষক যে কেউ হতে পারে। ক্ষমতাধর কিংবা জনপ্রিয়, তাকে কোন ছত্রছায়ায় বাঁচিয়ে দেয়া যাবেনা। বাংলাদেশ যেন ধর্ষকের অভয়ারণ্য হয়ে উঠতে না পারে সেজন্য এর কঠোর বিচার নিশ্চিত করতে হবে।

সমাবেশ সঞ্চালনার দায়িত্বে থাকা ঢাবি ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক ও ডাকসুর সাবেক এজিএস সাদ্দাম হোসেন ঢাবি ছাত্রীর জন্য ন্যায়বিচার নিশ্চিতের দাবি জানিয়ে বলেন, ‘আমাদের যে বোন ধর্ষিত হয়েছেন তিনি এই বিশ্ববিদ্যালয়ের চির উন্নত মম শীর।’

তিনি বলেন, ‘ধর্ষণের মামলার রাজনৈতিক মোড়ক যারা দিয়েছে, তাদের মুখোশ উন্মোচন করতে হবে। পপুলিস্ট প্রোপাগান্ডা দিয়ে যারা নির্যাতিতার আর্তনাদকে ঢেকে দিতে চায় তাদের শাস্তির আওতায় আনতে হবে। ঢাকা-সিলেট-খাগড়াছড়িতে ঘটা সকল ধরণের ধর্ষণের বিচার করতে হবে।’