সোনার বাংলা গড়তে হবে

শুক্রবার, আগস্ট ২১, ২০২০

হাশিম কিয়াম
দূর দেশের হায়েনার অন্ধকার ঘরে বন্দী জাতির বাতিঘর
হৃদয় যেনতাঁর চৈত্রের মাঠের বাঙ্গির মতো ফেটে গেছে
কোনো ভয়ভীতি পারেনি তোমাকে দমাতে
হিমালয়ের মতো শিরদাঁড়া সোজাকরে
খাঁচা বন্দী অদম্য সিংহের মতো যেহুংকার তুমি করেছিলে
তাপ্রকম্পিত করেছিলো বাংলার আকাশ-বাতাস
লেগেছিলো তার দোলা প্রমত্ত সব নদীতে—হাওড়ে—বাঁওড়ে — বিলে,

তার আগেই ঝড় তুমি তুলেছিলে মহা জনসমুদ্রে
তোমার দরজকণ্ঠে যেমহাকাব্য তুমি সেদিন মহাকবির মতো পাঠকরেছিলে
সে অগ্নিঝরা আবৃত্তির আওয়াজ বাউরি বাতাসের সাথে মিশেগিয়ে
দোলা দিয়েছিলো কোটি কোটি প্রাণে…
দোলা লেগেছিলো ক্যাম্পাসে-কৃষক ভরা ফসলের মাঠে-
কারখানা ভরা শ্রমিকের রক্তঝরা হৃদয়ে-গৃহিণীর হেঁশেলে
গহীন গাঙের সারেঙের নাওয়ে-সাগরের মাছধরা ট্রলারে,
দোলা লেগেছিলো-

পাহাড়ে-প্রান্তরে—সব আদিবাসিদের আবাসে-
কিশরের লাটিমে -কিশোরীর জুলফিতে-পুতুলের শখেরশাড়ির আঁচলে
অগণিত যুবতির নিখাদহৃদয়ে-ডাংগুলিখেলামত্ত একমাঠ রাখালের কোঁকড়ানোচুলে
দোলালেগেছিল-
কামারের কামারশালার আগুনেরফুল্কিতে-ছুতোরের বাটালিতে-কুমোরের নরমহৃদয়ে
ঘরামীর ঘর্মাক্তগায়ে-তাঁতিরমাকুতে-জন্মভূমির খাঁটিমাটির গড়াদেশপ্রেমিক
সবসৈনিকের টগবগে হৃদয়ে
সব বুদ্ধিজীবীর হৃদয়েতে ইশবছরের জমাট বাঁধাবেদনার শরীরে;
তারপর একটু একটু করে প্রতিরোধ দূর্বার প্রতিরোধ
যার যার যা কিছু ছিলো তাইনিয়ে নির্ভীক প্রতিরোধ

অসমলড়াই—তবুও হার নামানা বঙ্গসেনারা লড়েছিলোসে-সময়,
হেক্টরের মতো লড়েছিলো
লড়েছিলো ধারা লোষড় যন্ত্রের লাল সার মারণাস্ত্রের বিরুদ্ধে
মহাজন যুদ্ধে লড়েছিলো সবাই একটি নতুন
সোনালি সকালে একটি নতুন সূর্যের জন্য
এক ওঠোন ঝলমলে রোদেরজন্য- একবাগান ফুলের হাসির জন্য
শৃঙ্খলিত জন্মভূমির মুক্তিরজন্য;
অবশেষে কাঙ্ক্ষি তনতুন সূর্যটা ওঠেছিলো একছায়া পথরোদ নিয়ে
ফুটেছিলো সব অস্ফুট স্বপ্ন কাননে কাননে সুরভিত ফুলহয়ে
উড়েছিলো বিজয়কেতন সগৌরবে জননীরখোলা
আকাশে পতপতধ্বনিতে- খইফোটা হাসিতে;

শোনোহেএ—প্রজন্মের মুক্তিযোদ্ধা,
তোমাদের একটি—ইমহান ব্রতআছে
এক পদ্মা রক্তেকেনা-
এক যমুনা বেদনায় কেনাএ—প্রিও জন্মভূমি সাজাতে হবে
সেই সবঅকুতোভয় বীরসেনাদের মনের মতোকরে
ফোটাতে হবেসবসপ্নফুলকুঁড়ি হয়ে যা-আছেবাগানে বাগানে,
হয়তো জঘন্য মগজ ধোলাই আর একগাদা ইতিহাস বিকৃতির মচ্ছবের
আতশ বাজিরশব্দ তোমাদের বিচলিত করবে
তবুও অবিচল থেকে সোনার বাংলাতোমাদেরকেই গড়তে হবে হেঅনাগত।

 

হাশিমকিয়াম, সহকারী অধ্যাপক, ইংরেজি, কুষ্টিয়া সরকারি মহিলা কলেজ।