ত্রাণ চাওয়ায় বৃদ্ধা নারীকে কাউন্সিলরের জুতাপেটা!

রবিবার, মে ২৪, ২০২০

করোনা পরিস্থিতিতে অসহায় পরিবারের এক বৃদ্ধা নারী স্থানীয় কাউন্সিলের কাছে ত্রাণ সহায়তা চাওয়া জুতা পেটার শিকার হয়েছেন বলে অভিযোগ উঠেছে।

লক্ষ্মীপুর জেলার রায়পুর উপজেলার দেনায়েতপুরের ২নং ওয়ার্ডে আব্দুল গণী হাজি বাড়ির ভ্যান গাড়ি চালক বৃদ্ধের স্ত্রী পারুল বেগম গত ১৯ মে বিকালে রায়পুর পৌরসভার ১,২,৩ নং ওয়ার্ড থেকে নির্বাচিত কমিশনার নাজমে আরা’র বাসায় গিয়ে জুতা পেটার শিকার হন।

ভুক্তভোগী নারীর অভিযোগ, রায়পুর থানা রোডের বাসায় ত্রাণ-সাহায্যের জন্য যান পারুল বেগম। তিনি কমিশনারের কাছে অসহায়ত্বের কথা বলে প্রধানমন্ত্রীর দেয়া ঈদ উপহার চান। এ সময় তেলে বেগুনে জ্বলে উঠেন কাউন্সিলর। এরপর কয়েকটা থাপ্পড় মেরে বাসা থেকে বের হয়ে যেতে বলেন। তখন পারুল বেগম বলেন, সাহায্য না দেন, তাই বলে আপনি মারতে পারেন না। এই কথা বলার সাথে সাথে কমিশনার নাজমে আরা তার পায়ের জুতা খুলে আমার হিজাব চেপে ধরে আমাকে বেদম প্রহার করে দোতলা থেকে মারতে মারতে নিচে নামিয়ে আনেন।

বৃদ্ধা নারী আরও বলেন, ‘পরবর্তীতে আমি বিষয়টি আওয়ামী লীগের রায়পুরের নেতা কর্মী, রায়পুর থানা ডিউটি অফিসার, সাংবাদিক সহ এলাকার গণ্যমান্য ব্যক্তিদের জানাই। তারই ফলশ্রুতিতে কমিশনারের পক্ষ থেকে একটি খাদ্যের পেকেট নিয়ে আমার বাড়িতে এসে আমার মেয়ের ছবি ভিডিও করে নিয়ে যায় এবং আমাকে বিভিন্ন ভাবে হুমকি ধমকি দিতে থাকে।’

এ ঘটনার পর পরিবারের নিরাপত্তার কথা ভেবে ২২ মে রায়পুর উপজেলার নির্বাহী কর্মকর্তা বরাবরে এর বিচার চেয়ে এক লিখিত অভিযোগ দিয়েছেন ভুক্তভোগী নারী।

এই বিষয়ে কমিশনার নাজমে আরা বেগমের নিকট জানতে চাইলে তিনি বলেন, আমি তিন তিনবার কমিশনার নির্বাচিত হয়েছি, আপনি খবর নিয়ে দেখুন আমি কখনো কাহারো গায়ে হাত তুলেছি কিনা?

তারপরেও ওই নারী ৭ বার ত্রাণ-সাহায্য পেয়েছে, প্রধানমন্ত্রীর দেয়া উপহার হিসেবে আড়াই হাজার টাকাও পাবে।

তাকে জুতো পেটা করেছেন কিনা জানতে চাইলে তিনি বলেন আমি কখনোই কাহারো গায়ে হাত তুলি নাই, তবে পারুল আমাকে গালি দেয়ায় আমি তাকে একটি থাপ্পড় দিয়েছি।