ভালো থাকতে প্রতিদিন আপেল নয়, চুমু খান!

বৃহস্পতিবার, ডিসেম্বর ২৬, ২০১৯

স্বাস্থ্য ডেস্ক : প্রতিদিন একটি আপেল খেতে পারলে ডাক্তারের সীমানায় যাওয়া লাগে না। এমনটাই জেনে এসেছেন এতদিন। কিন্তু ভালো থাকতে চাইলে এবার সেই মেনুতে খানিকটা পরিবর্তন আনুন। সম্প্রতি তাঁদের গবেষণায় উঠে এসেছে, প্রতিদিন প্রিয়জনকে বা পছন্দের মানুষকে সুন্দর করে একটা চুমু খান…ব্যাস তাহলেই আপনি সুস্থ থাকবেন।

অ্যালার্জি প্রতিরোধে- চিংড়িতে অ্যালার্জি থাকে, অনেকে আবার অ্যালার্জির চোটে ডিম খেতে পারেন না। কিন্তু চুমু খেতে অ্যালার্জি আছে এমন কথা কখনও শোনা যায়নি। একমাত্র চুমু খেলেই রক্তে অ্যালার্জি প্রতিরোধক অ্য়ান্টিবডি তৈরি হয়। ফলে চোখ দিয়ে জল পড়া, নাক দিয়ে জল পড়া এবং হাঁচি বন্ধ হয়।

স্ট্রেস মুক্ত থাকা যায়- জীবনের যাবতীয় স্ট্রেস থেকে দূরে থাকা যায় একটা গভীর চুম্বনে। কারণ, চুমু খাওয়ার সময় আমাদের দেহ থেকে অক্সিটোসিন হরমোনের ক্ষরণ হয়। যার প্রভাবে মন রিল্যাক্সড থাকে।

ক্যালোরি বার্ন করতে চান? হেঁটে-ছুটে-কড়া ডায়েটে থেকেও ক্যালোরি বার্ন হচ্ছে না! চিন্তা নেই। স্রেফএকটা চুমুতেই ১২০ কিলো ক্যালোরি বার্ন করা যায়।

ত্বকে বয়সের ছাপ পড়ে না- যাঁরা নিয়মিত চুমু খান, তাঁদের ত্বকে বয়সের ছাপ অনেক পরে আসে। এমনকী মুখে বলিরেখাও কম পড়ে।

ফুসফুসের রোগ হয় না- ফুসফুসের ক্যান্সার বা অন্য কোনও রকম সংক্রমণ থেকে অনেকটাই দূরে থাকা যায়, যদি প্রতিদিন চুমু খান। এছাড়াও ফুসফুস শক্তিশালী হয়।

রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণে থাকে- মুক্ত মনে চুমু মনের চাপ কমায়, ফলে রক্তচাপও নিয়ন্ত্রণে থাকে। হার্টরেট ঠিক থাকে এবং হার্টের কোনও রকম সমস্যা থেকেও দূরে রাখে।

মাথাব্যথা কমায়- যে কোনও রকম মাথাধরা, ব্যথা বা খিঁচ ধরা কোনও ব্যথা ওষুধ ছাড়াই অনেক কমে যায় শুধুমাএ একটা আদুরে চুমুতেই।

রোগপ্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়ে- A kiss is a good way to share your bacteria with your partner…শুনে ভয় পাচ্ছেন? একদম ঘাবড়াবেন না। এই পদ্ধতিতেই আপনার শরীর থাকবে সুস্থ, রোগ প্রতিরোধক অ্যান্টিবডি তৈরি হবে।

দাঁতের সমস্যায়- ক্যাভিটির সমস্যায় ভুগছেন? তাহলে নিশ্চিন্তে চুমু খান। চুমু খাওয়ার সময় যে স্যালিভা নির্গত হয়, তার মধ্যে নিউট্রালাইজেস অ্যাসিড থাকে। যা মুখের খারাপ ব্যাকটেরিয়াগুলোকে ধুয়ে দেয়।