সাভারে ১০০ লিটার মদসহ ইউপি সদস্য আটক

মঙ্গলবার, নভেম্বর ২৬, ২০১৯
জাহিন সিংহ, সাভার থেকে : সাভারে বিপুল পরিমান বাংলা মদসহ ইউপি সদস্য অজল হককে আটক  করা হয়েছে। তাকে সাভার থানায় সোপর্দ করেছে র‌্যাব সদস্যরা। এ সময় উজ্জল গমেজ ও কামরুল ইসলাম নামে আরো দুই জনকে আটক করা হয়।
জানা গেছে, বিরুলিয়া ইউনিয়ন পরিষদের ৩ নম্বর ওয়ার্ডের সদস্য অজল হক দীর্ঘ দিন ধরে তার মেয়ের জামাই আল আমিনকে সংগে নিয়ে মাদক ব্যবসাসহ নানা অপকর্ম করে আসছিল। সাভার খ্রীষ্টান পল্লী কমলাপুর,ধরেন্ডা,দেওগা ও রাজাশনে অবৈধভাবে উৎপাদিত বাংলা মদের সবচে বড় ব্যবসায়ি অজল হক। গোপন সংবাদের ভিত্তিতে র‌্যাব- ৪ সাভার ক্যাম্পের সদস্যরা সোমবার সন্ধ্যায় তাকে ১০০ লিটার বাংলা মদসহ আটক করে এবং আজ মঙ্গলবার তাকে মাদক মামলায় সাভার মডেল থানায় হস্তান্তর করে।
র‌্যাব জানায়, দীর্ঘদিন ধরে অজল হক ও তার মেয়ের জামাইকে আটক করার জন্য খোঁজা হচ্ছিল। রোববার সন্ধ্যায় কমলাপুর বাজারের নিকট রাজারবাগ এলাকায় র‌্যাব সদস্যরা অভিযানে গেলে অজল হক ও তার সঙ্গীরা প্রায় এক কিলোমিটার পথ দৌড়ে পালানোর চেষ্টা করেন। পিছু নিয়ে র‌্যাব সদস্যরা তাদের পিছু নিয়ে পলায়নরতদের ভেতর থেতে অজল হকসহ ৩জনকে আটক ও তাদের দেখিয়ে দেয়া স্থান হতে ১০০ লিটার বাংলা মদ উদ্ধার করে।
র‌্যাব-৪ এর এএসপি অনু মং বলেন গোপন সংবাদের ভিত্তিতে অভিযান চালিয়ে বাংলা মদসহ অজল হক ও তার দুই সহযোগীকে গ্রেপ্তার করা হয়। গ্রেফতার উজ্জল, কামরুল ইসলাম ও ইউপি সদস্য অজল হক কে সাভার থানায় হস্তান্তর করা হয়েছে। তবে অভিযানকালে আল আমিনকে পাওয়া যায়নি।
র‌্যাব-৪ এএসপি অনু মং আরও বলেন মাদককের বিরুদ্ধে তাদের অভিযান চলমান রয়েছে। অভিযোগ রয়েছে অজল হক দলবল নিয়ে বিগত নির্বাচনে ভোট ডাকাতির মাধ্যমে ইউপি মেম্বর নির্বাচিত হন। তখন এলাকার সংখ্যা লগু খ্রীষ্ট্রান সম্প্রদায়ের বাড়ী ঘরে লুটতরাজ চালান। তার মেয়ের জামাই আল আমিন, বিয়ার বাবুলসহ শতাধিক সন্ত্রাসী এলাকায় তখন তান্ডব চালিয়ে অর্ধ শত খ্রীষ্টান সম্প্রদায়ের নিরীহ বাসিন্দাদের আহত করেন।
উল্লেখ্য, অজল হকের মেয়ের জামাই শীর্ষ সন্ত্রাসী আল আমিনের বিরুদ্ধে ফুল ব্যবসায়ি ইসমাইল হত্যা, দস্যুতা, জমি দখলসহ ডজন মামলা রয়েছে।