বিচারক পদ থেকে আনু সরে যাওয়ায় কি বললেন সোনা?

রবিবার, নভেম্বর ২৪, ২০১৯

বিনোদন ডেস্ক : ‘ইন্ডিয়ান আইডল’ ১১-র বিচারকের আসন থেকে সরে গেলেন আনু মালিক। তারপরেই টুইট করে প্রত্যেককে ধন্যবাদ জানালেন সোনা মহাপাত্র। বৃহস্পতিবার তিনি টুইট করে লেখেন, “ভারতের সমস্ত মহিলা এবং পুরুষদের ধন্যবাদ, তারা আমাদের ‘#মুভআউটমালিক’ প্রচারকে সমর্থন করেছেন। আনু মালিকের মতো মিটুতে ধারাবাহিক অভিযুক্তকে জাতীয় টেলিভিশনের পর্দায় দেখাটা আমাদের মতো অনেকের জন্য ভীষণ ট্রমা, বেদনা এবং মানসিক চাপের উদ্রেগ করে। কিছুদিন ধরে অস্থির ছিলাম, আশা করব আজ রাতে ভালো করে ঘুমতে পারব।”

তবে শোনা যাচ্ছে, জাতীয় মহিলা কমিশন সোনি কর্তৃপক্ষকে নোটিস পাঠালে তারপরেই এই সিদ্ধান্ত নেন তারা। বেশ কয়েকজন মহিলা আনু মালিকের বিরুদ্ধে যৌন হেনস্থার অভিযোগ করেন। এরপরই সোনি টিভির রিয়্যালিটি শো ইন্ডিয়ান আইডলের বিচারকের আসন থেকে সরে দাঁড়ানোর সিদ্ধান্ত নেন আনু মালিক।

জানা যায়, “সোশাল মিডিয়ায় অগুন্তি প্রতিবাদ এবং নেতিবাচক মন্তব্যের পর আনু মালিক নিজেই শো থেকে সরে দাঁড়ানোর সিদ্ধান্ত নেন। সঙ্গীতপরিচালক জানিয়েছেন, তিনি এই মূহুর্তে মানসিকভাবে বিপর্যস্ত রয়েছেন। সম্প্রতি শোয়ের নির্মাতাদের সঙ্গে যোগাযোগ করে একথা জানান তিনি এবং কর্তৃপক্ষ তার এই সিদ্ধান্ত মেনে নিয়েছেন। তার বদলে অন্য কাওকে খোঁজার প্রক্রিয়াও শুরু করেছে চ্যানেল।”

ইন্ডিয়ান আইডল থেকে আনু মালিকের বেরিয়ে আসা নিয়ে আইএনএসকে সোনা মহাপাত্র বলেন, “স্বচ্ছতা ও বিচারের জন্য লড়াই চালিয়ে গিয়েছি। খবরটা শোনার পর মনে হচ্ছে, এটা প্রত্যেকের জয়। শুধু আমার নয়, যে সমস্ত মহিলা তার হাতে নিগৃহীত হয়েছে তাদের প্রত্যেকের জয়। আমরা কিছু না বলে চুপ করে বসে থাকব আর লোকে ধরে নেবে যে এটাই চলতে থাকবে, এমনটা হতে দেব না।”

প্রসঙ্গত, ২০১৮ সালে আনু মালিকের বিরুদ্ধে যৌন হেনস্থার অভিযোগ আনেন সোনা মহাপাত্র। পরে, নেহা বাসিন এবং শ্বেতা পণ্ডিতও সঙ্গীত পরিচালকের বিরুদ্ধে সম অভিযোগ করেন। সম্প্রতি নারী ও শিশুকল্যাণ উন্নয়ন মন্ত্রী স্মৃতি ইরানিকে চিঠি লেখেন সোনা। তারপরেই জাতীয় মহিলা কমিশন চিঠি দেয় সোনি কর্তৃপক্ষকে। সূত্র: ইন্ডিয়ান এক্সপ্রেস