বাংলাদেশকে বাঁচিয়ে রাখলেন মুশফিক

শনিবার, নভেম্বর ২৩, ২০১৯

ঢাকা: কলকাতা টেস্টের দ্বিতীয় দিনে ২য় ইনিংসে ব্যাট করতে নেমে বাংলাদেশের শুরুটা হয়েছিল দুঃস্বপ্নের মতো। দলীয় ১৫ রানে ৪ উইকেট হারিয়ে রীতিমতো দুইদিনেই হেরে যাবার লজ্জা চোখ রাঙাচ্ছিলো। দিন শেষে মুশফিকুর রহিমের একার যুদ্ধে মোটামুটি ভদ্রস্থ চেহারায় পৌঁছেছে বাংলাদেশ, তবে ইনিংসে হারের শঙ্কা এখনো কাটে নি। ৬ উইকেট হারিয়ে ১৫২ রান করে দিন শেষ করেছে বাংলাদেশ। ভারতকে ব্যাটিংয়ে নামাতে এখনো করতে হবে ৮৯ রান। ভারতীয় পেসারদের বল সামলাতে বেগ পেতে হয়েছে বাংলাদেশকে। একবার বাউন্সারে মোহাম্মদ মিথুনের হেলমেট ভেঙেছে, মাহমুদুল্লাহ গিয়েছেন রিটায়ার্ড হার্টে। এক মুশফিক ছাড়া সবাই খাবি খেয়েছেন উমেশ আর ইশান্তের সামনে। অপরাজিত ৫৯ করে বাংলাদেশের ইনিংসে হার এড়াবার আশা এখনো টিকিয়ে রেখেছেন মুশফিক। এর আগে, কলকাতা টেস্টের দ্বিতীয় দিনে ভারতকে অল-আউট করার আগেই বিরাট কোহলি শেষ বিকেলে ইনিংস ঘোষণা করেছেন। ২৪১ রানের লিড নিয়ে ৯ উইকেট হারিয়ে ৩৪৭ রানে ইনিংস ঘোষণা করেছে ভারত। ভারতকে আবার ব্যাটিংয়ে নামাতে হলে বাংলাদেশকে এই দুর্গম পাহাড়সম রান পেরিয়ে যেতে হবে যা আপাত দৃষ্টিতে অসম্ভবই লাগছে।

সকাল থেকে দিনটা ভালো কাটে নি বোলারদের। প্রথম সেশনেই সেঞ্চুরি করা বিরাট কোহলিকে ফেরাতে প্রয়োজন ছিল হয়তো বিশেষ কিছু। তেমন কিছুই উপহার দিলেন তাইজুল ইসলাম। ইবাদত হোসেনের বলটি যদিও ছিল একদমই বাজে। লেগ স্টাম্পের বাইরে ফুল লেংথ। কোহলি ফ্লিক করেছিলেন, টাইমিং হয়েছিল দুর্দান্ত। ডিপ স্কয়ার লেগ দিয়ে বল উড়ে যাচ্ছিল সীমানার দিকে। তাইজুল ছুটে এসে বলের একটু সামনে চলে এসেছিলেন। এরপর ডানদিকে নিজেকে পুরো শূন্যে ভাসিয়ে শরীরের পেছনে চলে যাওয়া বল জমিয়েছেন হাতে। কোহলির ইনিংস থামল ১৯৪ বলে ১৩৬ রান করে। এরপর উজ্জীবিত বাংলাদেশি বোলিংয়ের সামনে শেষ বিকেলে দাঁড়াতে পারল না ভারত। রাহী ও আল-আমিন দ্রুতই ভারতের লেজ মুড়ে দিলেন। রাহী দুইটি ও আল-আমিন তিনটি উইকেট নিয়েছেন। তবে মূল আঘাতটা দিয়েছিলেন এবাদতই, টপ অর্ডারের তিনটি উইকেট তিনি দখল করেছেন।