চলতি বছরেই ফিরেছেন ২১ হাজার সৌদি প্রবাসী

শনিবার, নভেম্বর ২৩, ২০১৯

ঢাকা : দিনের সঙ্গে বাড়ছে দেশে ফেরা সৌদি আরবের প্রবাসী বাংলাদেশিদের সংখ্যা। প্রায় প্রতিদিনই তারা শূন্য হাতে দেশে ফিরছেন। দেশটি থেকে শুধু চলতি মাসেই দেশের ফিরেছেন ২ হাজার ৬১৫ বাংলাদেশি। আর চলতি বছরে ফিরেছেন ২১ হাজার প্রবাসী।

বিমানবন্দরের প্রবাসী কল্যাণ ও ব্র্যাক অভিবাসন কর্মসূচি’র ডেস্ক থেকে এসব তথ্য জানা গেছে।

সর্বশেষ শুক্রবার (২২ নভেম্বর) দেশের ফিরেছেন ১২৫ জন। তাদের একজন নারায়ণগঞ্জ আড়াইহাজারের আফজাল (২৬)। তিনি জানান,মাত্র আড়াই মাস আগে তিনি ৩ লাখ ৭০ হাজার টাকা খরচ করে সৌদি আরবে গিয়েছিলেন। ভাগ্য এতোটাই খারাপ যে রুম থেকে বের হয়েছিলেন বাজার করার জন্য, কিন্তু পথ থেকে ধরে দেশে পাঠিয়ে দিলেন তাকে। কাজের বৈধ অনুমোদনও (আকামা) ছিল আফজালের।

অস্বচ্ছল পরিবারের চাকা ঘুরাতে সৌদিতে পারি জমান ব্রাক্ষ্মণবাড়িয়ার কামরুল, কুমিল্লার নন্দন কুমার ব্রাক্ষ্মণবাড়িয়ার মন্টু মিয়া, সাইদুল ইসলাম, নরসিংদির নাইম, হবিগঞ্জের ফারুক হোসেন, ঢাকার সাইফুল ইসলামসহ আরও অনেককে। কিন্তু প্রতারণার জালে আটকে পড়ে কয়েক মাসের মাথায় তাদের দেশে ফিরতে হলো। সৌদিতে যেতে তাদের যে টাকা খরচ হয়েছে তাও তুলতে পারেননি।

ফিরে আসা বাংলাদেশিদের বিমানবন্দরে সহযোগিতা করা ব্র্যাক অভিবাসন কর্মসূচির প্রধান শরিফুল হাসান জানান, ২০১৯ সালেই সেখান থেকে অন্তত ২১ হাজার প্রবাসী বাংলাদেশিকে ফেরত পাঠানো হয়েছে। তাদের সাধারণরত সমস্যা ছিল এক প্রতিষ্টান বা নিয়োগকর্তার ভিসায় গিয়ে আরেক প্রতিষ্ঠানে কাজ করা।

তবে দেশে ফিরে আসা প্রবাসীদের অভিযোগ, ‘আকামা তৈরির জন্য কফিলকে (নিয়োগকর্তা) টাকা প্রদান করলেও আকামা তৈরি করে দেয়নি। পুলিশের হাতে গ্রেপ্তারের পর কফিরের সাথে যোগাযোগ করলেও গ্রেপ্তার কর্মীর দায়-দায়িত্ব নিচ্ছেনা, বরং কফিল প্রশাসনকে বলেন ক্রুশ (ভিসা বাতিল) দিয়ে দেশে পাঠিয়ে দিতে।’