গাউছিয়া মার্কেটে লাঞ্জিত জাবি শিক্ষার্থী

শনিবার, মার্চ ২৩, ২০১৯

সাঈদ ইবরাহীম রিফাত, জাবি প্রতিনিধি : গত শুক্রবার রাজধানীর গাউছিয়া সুপার মার্কেটে কেনাকাটা করতে গিয়ে শারীরিক হেনস্তার স্বীকার হয়েছেন জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের এক নারী শিক্ষার্থী। দুপুর আড়াইটার দিকে ইয়েলো কালেকশন নামের একটি দোকানে বিক্রেতা কতৃক লাঞ্জিত হন সেই শিক্ষার্থী।

তিনি জানান, দোকানের পণ্যের দাম জিজ্ঞেস করায় বিক্রেতা ক্ষিপ্ত হয়ে তার সাথে বাদানুবাদ করেন। এক পর্যায়ে ক্ষিপ্ত হয়ে গায়ে হাত দেওয়ার চেষ্টা করেন। নারী শিক্ষার্থী বাধা দিলে থাপ্পড় মারেন ও জোর করে দোকান থেকে বের করে দেন সেই বিক্রেতা।

এ ব্যাপারে পুলিশের কাছে মৌখিক অভিযোগ জমা দেওয়া হলে পুলিশ ওই দোকানের তিন কর্মচারীকে আটক করে। তবে ঘটনার মূল হোতা এখনও পলাতক রয়েছে।

ভুক্তভোগী সেই নারী শিক্ষার্থী জানান, শুক্রবার দুপুরে কেনাকাটা করতে বান্ধবীকে নিয়ে গাউছিয়া মার্কেটে যান তিনি। মার্কেটের নিচতলায় ইয়েলো কালেকশন নামের দোকানটিতে অলঙ্কারের দাম জিজ্ঞেস করেন তিনি।

দরকষাকষির এক পর্যায়ে ক্যাশ কাউন্টারে বসা আরেক কর্মচারী বলেন, এক দাম ১০০ টাকা। নিলে নিবেন, না কিনলে বের হয়ে যান। এরকম আচরণের কারণ জানতে চাইলে চিৎকার করে গালিগালাজ শুরু করেন ওই ব্যক্তি। এসময় গায়ে হাত দেবার চেষ্টা করেন। বাধা দেওয়া হলে এলোপাতাড়ি চড় থাপ্পড় মেরে দোকান থেকে জোর করে বের করে দেন তিনি।

এদিকে পাশের হকার্স মার্কেটে কেনাকাটা করতে গেলেও ওই শিক্ষার্থী ও তার বান্ধবীকে অনুসরণ করতে থাকে ইয়েলো কালেকশনের কয়েকজন বিক্রেতা। অন্য দোকানে কেনাকাটা করতে গেলেও বাধা দেন তারা। আধঘন্টা তাদের অবরুদ্ধ করে রাখেন বিক্রেতারা। উপায়ানস্তর না দেখে নিউমার্কেট থানায় অভিযোগ করেন ওই শিক্ষার্থী। পরে পুলিশ এসে তাদের উদ্ধার করে নিয়ে যায়।

এ ঘটনার ব্যাপারে জিজ্ঞেস করা হলে ওসি আতিকুল ইসলাম বলেন, ওই শিক্ষার্থী মৌখিকভাবে আমাদের কাছে অভিযোগ করেছেন। এর ভিত্তিতে আমরা সেখানে গিয়ে তাদের উদ্ধার করে আনি ও ইয়েলো কালেকশনের সেই তিন কর্মচারীকে গিয়ে আটক করি।