কুমিল্লা ১০

কোন্দলে বিএনপি স্বস্তিতে আওয়ামী লীগ

বৃহস্পতিবার, অক্টোবর ১৮, ২০১৮

কুমিল্লা-১০ সংসদীয় আসনে (নাঙ্গলকোট, লালমাই, সদর দক্ষিণ উপজেলা) আওয়ামী লীগের একক প্রার্থীর বিপরীতে বিএনপির মনোনয়নপ্রত্যাশী চার নেতা মাঠে নেমেছেন। দলে কোনো প্রতিদ্বন্দ্বী না থাকায় স্বস্তিতে রয়েছেন পরিকল্পনামন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল (লোটাস কামাল)। অন্যদিকে কোন্দল থাকায় আন্দলোন জোরালো কিংবা নির্বাচনী মাঠে এখনো শক্ত অবস্থান তৈরি করতে পারেনি বিএনপি।

একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে আওয়ামী লীগের প্রার্থী বর্তমান পরিকল্পনামন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল এমপি ব্যাপক গণসংযোগ ও ভোটারদের কাছে সরকারের উন্নয়ন চিত্র তুলে ধরছেন। অপরদিকে বিএনপি থেকে মনোনয়নপ্রত্যাশী দলের কেন্দ্রীয় কমিটির পল্লী উন্নয়নবিষয়ক সম্পাদক ও সাবেক সংসদ সদস্য মনিরুল হক চৌধুরী, সাবেক সংসদ সদস্য আব্দুল গফুর ভূঁইয়া, কেন্দ্রীয় বিএনপির নির্বাহী কমিটির সদস্য মোবাশ্বের আলম ভূঁইয়া ও বর্তমান যুক্তরাজ্য শাখা বিএনপির উপদেষ্টা সলিসিটর ইকরামুল হক মজুমদার এলাকায় গণসংযোগসহ কেন্দ্রে লবিং চালিয়ে যাচ্ছেন।

এবার একাদশ সংসদ নির্বাচনে কে হবেন বিশাল সংসদীয় আসনটির অভিভাবক এ নিয়ে সাধারণ ভোটারদের মাঝে উৎসাহ দেখা দিয়েছে। প্রায় ৫ লাখ ভোটারের মন জয় করতে মনোনয়নপ্রত্যাশীরা বিভিন্ন ধরনের উন্নয়নমূলক কাজ করার আশ্বাস দিয়ে আসছেন। আওয়ামী লীগের তৃণমূল নেতাকর্মীরা জানান, বর্তমান সংসদ সদস্য পরিকল্পনামন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল এই আসনে ব্যাপক উন্নয়ন করেছেন। এখানে তিনিই নৌকার একক প্রার্থী। আওয়ামী লীগের স্থানীয় নেতাকর্মীরা মনে করেন, আগামীতেও তিনি জয়লাভ করে এলাকার অসমাপ্ত কাজগুলো সমাপ্ত করবেন।

উপজেলা যুবলীগের সভাপতি ও পৌর মেয়র আব্দুল মালেক জানান, বর্তমান সরকার যে উন্নয়ন করেছে, এর আগে কোনো সরকার করতে পারেনি। তাই আমি মনে করি, নৌকা প্রতীকে ভোট দিয়ে ভোটাররা আবারও আওয়ামী লীগ সরকারকে ক্ষমতায় আনবে। পরিকল্পনামন্ত্রী আ হ ম মোস্তফা কামাল নাঙ্গলকোট সংসদীয় আসনে ব্যাপক উন্নয়ন করেছেন, জনগণ আবারও এই আসনে তাকে ভোট দিয়ে জয়ী করবে এটাই আমাদের বিশ্বাস।

১৯৯৮ সালে নাঙ্গলকোটে বিএনপির হাল ধরেন সাবেক সংসদ সদস্য আব্দুল গফুর ভূঁইয়া। ২০০১ সালে তিনি বিএনপি থেকে মনোনয়ন নিয়ে সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন। ২০০৮ সালে সংসদ নির্বাচনে মোবাশ্বের আলম ভূঁইয়াকে মনোনয়ন দেয় বিএনপি। দল থেকে মনোনয়ন পেলেও নির্বাচনে পরাজিত হন আওয়ামী লীগের কাছে। একাদশ সংসদ নির্বাচন সামনে রেখে সাবেক সংসদ সদস্য মনিরুল হক চৌধুরী, আব্দুল গফুর ভূঁইয়া, মোবাশ্বের আলম ভূঁইয়া ও যুক্তরাজ্য বিএনপির আইনজীবী ফোরামের উপদেষ্টা সলিসিটর ইকরামুল হক মজুমদার কুমিল্লা-১০ সংসদীয় আসনে ব্যাপক গণসংযোগ করেছেন।

বিএনপির তৃণমূল নেতাকর্মীরা জানান, দলীয় কোন্দল থাকলে আবারও এই আসনটি প্রতিপক্ষের হাতে চলে যাবে। দলীয় গ্রুপিংয়ের কারণে সরকারবিরোধী ও সরকার পতনের আন্দোলনে বিএনপির কোনো পক্ষই মাঠে থাকতে পারেনি। অবশ্য বিএনপির নেতারা জানান, আন্দোলনে মাঠে নামার আগেই পুলিশ হয়রানি করছে। হামলা-মামলায় বিপর্যস্ত নেতাকর্মীরা।

নাঙ্গলকোট পৌরসভাসহ ১৫টি ইউনিয়ন, লালমাই উপজেলার ৯টি ইউনিয়ন ও সদর দক্ষিণ উপজেলার আটটি ইউনিয়ন নিয়ে সংসদীয় আসনটির সীমানা নির্ধারণ করা হয়েছে।