ঢাবির ঘ ইউনিটের ফল প্রকাশ স্থগিত

সোমবার, অক্টোবর ১৫, ২০১৮

ঢাকা : প্রশ্নফাঁসের অভিযোগ প্রমাণিত হওয়া, তাতে মামলা দায়ের ও গ্রেপ্তার হওয়ার পরেও তড়িঘড়ি করে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে ‘ঘ’ ইউনিটে ভর্তি পরীক্ষার ফল প্রকাশের সিদ্ধান্ত নিলেও দ্রুতই সেই সিদ্ধান্ত থেকে সরে এসেছে বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ।

সোমবার সকাল ১০টা ৪৯ মিনিটে বিশ্ববিদ্যালয়ের জনসংযোগ দফতর থেকে একটি সংবাদ বিজ্ঞপ্তি ই-মেইলে পাঠানো হয়, যেখানে বলা হয় আগামীকাল মঙ্গলবার ‘ঘ’ ইউনিটের ফল প্রকাশ করা হবে।

পরে ‘অতি জরুরী প্রেস বিজ্ঞপ্তি’ শিরোনামে দুপুর ১টা ০৪ মিনিটে পাঠানো অপর একটি ই-মেইলে ফল প্রকাশের সিদ্ধান্ত স্থগিত করার কথা জানানো হয়। সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়েছে, মাননীয় উপাচার্য দফতরের অ্যাসাইনমেন্ট অফিসারের পাঠানো ভুল তথ্যের জন্য ‘আগামীকাল ঘ ইউনিটের ভর্তি পরীক্ষার ফল প্রকাশ করা হবে’ মর্মে সোমবার প্রেস বিজ্ঞপ্তি পাঠানো হয়েছিল। উপাচার্য মহোদয়ের আদেশক্রমে এই প্রেস বিজ্ঞপ্তির কার্যক্রম স্থগিত করা হলো। অনাকাঙ্ক্ষিত এই ভুলের জন্য বিনয়ের সঙ্গে দুঃখ প্রকাশ করাও হয়েছে। ফল প্রকাশের বিষয়ে যথাসময়ে প্রেস বিজ্ঞপ্তির মাধ্যমে জানানো হবে।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক আখতারুজ্জামান বলেন, ওটা অফিসের ভুল হয়েছে। ওরা ভাবছে কালকেই ফল প্রকাশ করা হবে। আমি এখনও তদন্ত রিপোর্ট পাইনি। রিপোর্ট না পেয়ে তো ফল প্রকাশ করতে পারি না।

গত ১২ অক্টোবর শুক্রবার ৮১টি কেন্দ্রে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ‘ঘ’ ইউনিটের ভর্তি পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হয়। কিন্তু পরীক্ষা শুরু হওয়ের ৪৩ মিনিট আগে প্রশ্নফাঁসের অভিযোগ ওঠে। সকাল ৯টা ১৭ মিনিটে অনেক পরীক্ষার্থীর হোয়াটস অ্যাপ ও ম্যাসেঞ্জারে সাদা কাগজে হাতেলেখা উত্তরপত্রসহ ১০০টি প্রশ্ন সম্বলিত ১৪ পৃষ্ঠার একটি প্রশ্নপত্র আসে। সাংবাদিকদের হাতেও আসে সেই প্রশ্নপত্র। ওই দিন অনুষ্ঠিত পরীক্ষার প্রশ্ন পত্রের সঙ্গে মেসেঞ্জারে আসা ৭২টি প্রশ্ন ও উত্তরের হুবহু মিল পাওয়া যায়। প্রাথমিকভাবে বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ এ অভিযোগ অস্বীকার করলেও এই ঘটনায় শুক্রবার রাতেই বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ সহউপচার্য (প্রশাসন) অধ্যাপক ড. মুহাম্মদ সামাদকে প্রধান করে তিন সদস্য বিশিষ্ট একটি তদন্ত কমিটি গঠন করে।

সেই তদন্ত কমিটির প্রতিবেদন সোমবার সকালে দেওয়ার কথা থাকলেও এই প্রতিবেদন লেখা পর্যন্ত তা দেওয়া হয়নি। তবে অনেকেই ‘ঘ’ ইউনিটে ফাঁস হওয়া প্রশ্নের পরীক্ষা বাতিল করে আবার পরীক্ষা নেয়ার দাবি জানান। কিন্তু বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ এ বিষয়ে কোনো সিদ্ধান্ত জানায়নি।

এদিকে হঠাৎ করেই জনসংযোগ দফতর থেকে ফল প্রকাশের সময় জানিয়ে ই-মেইল আসে ও পরে তা স্থগিত করার কথাও জানানো হয়।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে তদন্ত কমিটি অন্যতম সদস্য সহকারী প্রক্টর অধ্যাপক মাকসুদুর রহমান বলেন, কিছুক্ষণের মধ্যেই তদন্ত কমিটির প্রতিবেদন জমা দেওয়া হবে। উপচার্য অধ্যাপক আখতারুজ্জামান ফল প্রকাশের সিদ্ধান্ত স্থগিত রেখেছেন।

এর আগে সকালে প্রথম সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে ফল প্রকাশের সিদ্ধান্তের কথা জানানো হলে সে নিয়ে জানতে চাইলে ‘ঘ’ ইউনিটের ভর্তি পরীক্ষার প্রধান সমন্বয়কারী অধ্যাপক সাদেকা হালিম বলেন, আমি তো কিছু জানি না, আমাকে কিছু জানানো হয়নি এখনো।

তবে সাদেকা হালিম সংবাদকর্মীদের জানিয়ে দেন, সামাজিক বিজ্ঞান অনুষদের পক্ষ থেকে যে ফলাফল প্রস্তুত করা হয়েছে তিনি সেটা ভর্তি বিষয়ক অনলাইন কমিটির কাছে দিয়েছেন।