জীবিত না হলেও লাশ চান মা

রবিবার, সেপ্টেম্বর ২৬, ২০২১

ভোলা : কলেজপড়ুয়া ছেলেকে ফিরে পেতে দ্বারে দ্বারে ঘুরছেন অসহায় মোসা. হাসিনা নামের এক মা। থানা পুলিশ থেকে আদালত, সবখানেই ছেলের সন্ধান চেয়ে ঘুরছেন তিনি।

শনিবার রাতে লালমোহন প্রেস ক্লাবে প্রশাসনের কাছে ছেলের সন্ধান চেয়ে সংবাদ সম্মেলন করেন হাসিনা। তিনি চরফ্যাশন উপজেলার দুলারহাট থানার আবুবকরপুর ইউনিয়নের ৭নং ওয়ার্ডের বাসিন্দা।

সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্যে তিনি বলেন, গত ১৫ ফেব্রুয়ারি সোমবার সকালে আমার ছেলে রিয়াদুল হক টিটুকে চরফ্যাশন পৌরসভার ৫নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর প্রার্থী (তখন চরফ্যাশন পৌরসভার ভোট চলছিল) গিয়াস উদ্দিনের শালা এনজেল ও তার বন্ধু রনি, জাবেদ, শামিম ও আরিফ নির্বাচনের প্রচারণার জন্য ডেকে নেয়।

ওই দিন বিকালে টিটু বাড়িতে না আসলে আমার বড়ছেলে ও স্বামী রাত ৯টা পর্যন্ত অপেক্ষা করার পর গিয়াস উদ্দিনের কাছে মোবাইলে ছেলের কথা জানতে চাইলে সে বলে আপনার ছেলে আমার বাসায় আছে। এরপর এনজেলের কাছে ফোন করলে তার মোবাইল বন্ধ পাওয়া যায়।

তখন থেকে আজ পর্যন্ত রিয়াদুল হক টিটু নিখোঁজ রয়েছে। ছেলে নিখোঁজের ঘটনায় চরফ্যাশন থানায় গত ১৭ ফেব্রুয়ারি মামলা করার জন্য গেলে ওসির পরামর্শে মামলা না করে তিনি জিডি করেন। পরে সেই কপি দুলারহাট থানায় জমা দেওয়া হয়।

নিখোঁজ টিটুর মা হাসিনা আরও বলেন, চরফ্যাশন ও দুলারহাট থানা আমার ছেলের ব্যাপারে কোনো ব্যবস্থা না নেওয়ায় নিরুপায় হয়ে ২৮ আগস্ট ভোলার আদালতে একটি মামলা দায়ের করেছি।

মামলায় বাসা থেকে টিটুকে ডেকে নেয়া এনজেল ও রনিসহ ৬ জনকে আসামি করা হয়। আদালতে মামলা করায় আসামিরা আমাদের পরিবারের সদস্যদের প্রাণনাশের হুমকি প্রদান অব্যাহত রেখেছে। প্রকাশ্যে আসামিরা চলফেরা করলেও পুলিশ তাদের গ্রেফতার করছে না।

হাসিনা বলেন, দীর্ঘ প্রায় ৭ মাস পার হলেও ছেলের কোনো খবর পাচ্ছি না। এখন আমি আমার ছেলেকে জীবিত না হোক মৃত হলেও লাশটা দেখতে চাই। আমি প্রশাসনের কাছে দাবি জানাচ্ছি আমার ছেলেকে ফিরিয়ে দেওয়ার জন্য।

এ ব্যাপারে দুলারহাট থানার ওসি মোরাদ হোসেন বলেন, আদালত আসামি গ্রেফতারের কোনো নির্দেশ দেননি। শুধু বলেছেন ভিকটিমকে উদ্ধারের চেষ্টা করতে। আমরা অনেক চেষ্টার পরও নিখোঁজ টিটুকে উদ্ধার করতে পারিনি।