বিদায়ী ম্যাচে হারল জিম্বাবুয়ে

মঙ্গলবার, সেপ্টেম্বর ১৪, ২০২১

স্পোর্টস ডেস্ক : আয়াল্যান্ডের বিপক্ষে সিরিজের তৃতীয় ওয়ানডে দিয়ে ১৭ বছরের ক্রিকেট ক্যারিয়ারের ইতি টানলেন ব্রেন্ডন টেলর। তবে নিজের শেষ ম্যাচটা স্মরণীয় করে রাখতে পারলেন না এই উইকেটরক্ষক ব্যাটসম্যান।

আইরিশ বোলারদের তোপে এদিন বিবর্ণ জিম্বাবুয়ের ব্যাটিং লাইনআপ। সফরকারীরা দেড়শর আগেই গুটিয়ে গেলে বৃষ্টি আইনে ৭ উইকেটের জয় তুলে নিয়ে সিরিজে সমতায় ফেরে আয়ারল্যান্ড।

বৃষ্টির কারণে সিভিল সার্ভিস ক্রিকেট ক্লাব মাঠে এদিন খেলা শুরু হয় প্রায় দুই ঘণ্টা দেরিতে। টসে হেরে ব্যাট করতে নেমে ইনিংসের চতুর্থ ওভারে টেলরকে হারায় জিম্বাবুয়ে। জশুয়া লিটলের বলে বোল্ড হয়ে এদিন প্যাভিলিয়নের পথে হাঁটেন এই উইকেটরক্ষক ব্যাটসম্যান। ক্যারিয়ারের শেষ ওয়ানডেতে টেলরের ব্যাট থেকে এসেছে মোটে ৭ রান।

থিতু হতে পারেননি আরেক ওপেনার রেজিস চাকাভাও। তিনি সাজঘরে ফিরেছেন ১৪ বলে ৫ রান করে। তিনে নেমে ক্রেইগ আরভিন একপ্রান্ত আগলে রাখলেও অন্য ব্যাটসম্যানরা ছিলেন আসা যাওয়ার মিছিলে। তবে এর মাঝে ৫১ বলে হাফ সেঞ্চুরি পূর্ণ করেন আরভিন। অ্যান্ডি ম্যাকব্রিনের বলে স্টাম্পড হয়ে আরভিন সাজঘরে ফিরেছেন ৬৫ বলে ৫৭ রান করে।

শেষ দিকে আর কোন ব্যাটসম্যান সেভাবে প্রতিরোধ গড়তে না পারায় ৩৪ ওভারে সবকটি উইকেট হারিয়ে মাত্র ১৩১ রান সংগ্রহ করে জিম্বাবুয়ে। আয়ারল্যান্ডের হয়ে লিটল ও ম্যাকব্রিন নিয়েছেন তিনটি করে উইকেট। এ ছাড়া সিমি সিং দুটি এবং শেন গেটকেট নিয়েছেন একটি উইকেট।

দফায় দফায় বৃষ্টি বাধায় শুরুতেই ম্যাচের দৈর্ঘ্য কমিয়ে আনা হয় ৩৮ ওভারে। দ্বিতীয় ইনিংসেও বৃষ্টি হানা দিলে আয়াল্যান্ডের লক্ষ্য দাঁড়ায় ৩২ ওভারে ১১৮ রান। সেই লক্ষ্য তাড়া করতে নেমে দলকে দারুণ শুরু এনে দেন পল স্টার্লিং ও উইলিয়াম পোর্টারফিল্ড। এই দুজনের উদ্বোধনী জুটি থেকে আসে ৪৮ রান।

৩৩ বলে ১৬ রান করে পোর্টারফিল্ড ফিরলে ভাঙে তাঁদের এই জুটি। দারুণ ব্যাটিং করা স্টার্লিং প্যাভিলিয়নের পথে হাঁটেন হাফ সেঞ্চুরি থেকে ৭ রান দূরে থাকতে। ৪৩ রানের ইনিংস খেলতে ৫টি চার ও দুটি ছক্কা মেরেছেন ডানহাতি এই ওপেনার। এরপর অ্যান্ডি বালবার্নি ও হ্যারি টেক্টর মিলে বাকি কাজটা সারেন।

জয়ের জন্য ৫ রান বাকি থাকতে সাজঘরে ফেরেন বালবার্নি। তাতে ৭ উইকেটের জয় নিয়ে সিরিজে সমতায় ফেরে আইরিশরা। দ্বিতীয় ম্যাচ পরিত্যক্ত হওয়ায় তিন ম্যাচের সিরিজ শেষ হয়েছে ১-১ সমতায়। প্রথম ওয়ানডে সফরকারীরা জিতেছিল ৩৮ রানে।