গণপূর্তের দায়ী কর্মকর্তাকে শাস্তির বদলে পদোন্নতি ও আকর্ষণীয় পদায়ন!

সোমবার, জুলাই ৫, ২০২১

সাপ্তাহিক শীর্ষকাগজের সৌজন্য : গণপূর্ত অধিদপ্তরের অধীনে বাস্তবায়নাধীন আগারগাঁও ন্যাশনাল ইনস্টিটিউট অব নিউরোসায়েন্স হাসপাতাল নির্মাণ প্রকল্পের কাজে জাল-জালিয়াতির মাধ্যমে সাড়ে ১০ কোটি টাকা অতিরিক্ত বিল প্রদান করা হয়েছে জেলহাজতে থাকা এসএম গোলাম কিবরিয়া ওরফে জিকে শামীমের প্রতিষ্ঠানকে। ম্যাজিস্ট্রেটের সরেজমিন পরদর্শনের মাধ্যমে এই অতিরিক্ত বিল প্রদানের প্রমাণ পাওয়া যায়। এ ব্যাপারে বর্তমানে কর্মরত গণপূর্তের নির্বাহী প্রকৌশলী চিঠিও লিখেছেন ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের কাছে। কিন্তু তারপরও গণপূর্তের উর্ধ্বতন কর্মকর্তারা অবৈধভাবে অতিরিক্ত বিল প্রদানের জন্য দায়ী কর্মকর্তার বিরুদ্ধে কোনো ব্যবস্থাই নেননি। তার বিরুদ্ধে বিভাগীয় মামলা বা তদন্ত কমিটিও গঠন করেননি। এমনকি শোকজ পর্যন্ত করেননি। বরং অযৌক্তিক কমিটি গঠন ও চিঠি চালাচালির মাধ্যমে সময় ক্ষেপণ এবং গুরুতর অপরাধকে ধামাচাপা দেয়ার চেষ্টা করছেন। এমনকি এ ঘটনা ধরা পড়ার পর দায়ী কর্মকর্তাকে শাস্তির পরিবর্তে পদোন্নতি এবং একই সঙ্গে গণপূর্ত অধিদফতরের আকর্ষণীয় ও গুরুত্বপূর্ণ পদে পদায়নও করা হয়েছে। অর্থাৎ দুর্নীতির দায়ে একই সঙ্গে ডবল পুরষ্কার!
বছরের পর বছর গণপূর্তের টেন্ডার নিয়ন্ত্রণকারী জিকে শামীম দরপত্র নিয়ন্ত্রণের অভিযোগে বর্তমানে জেলে থাকলেও তার অদৃশ্য ক্ষমতা এখনো বিদ্যমান। জিকে শামীমের অপরাধ কর্মের সহযোগীরা গণপূর্ত অধিদপ্তরের গুরুত্বপূর্ণ পদে এখনো বহাল। কেউ কেউ অপরাধ আড়াল করে পদোন্নতিও নিয়েছেন। কারণ, এই সিন্ডিকেটটি অত্যন্ত শক্তিশালী।
অনুসন্ধানে জানা গেছে, জিকে শামীম গণপূর্ত অধিদপ্তরের একজন নির্বাহী প্রকৌশলীর প্রত্যক্ষ সহযোগিতায় ও পরস্পর যোগসাজশে নিটোর প্রকল্প, নিউরোসায়েন্স হাসপাতাল ও সোহরাওয়ার্দী হাসপাতালের বর্ধিতাংশ নির্মাণসহ কয়েকশ’ কোটি টাকার কাজ বাগিয়ে নেয়। শামীম গ্রেফতার হওয়ার পর ওই কর্মকর্তা আলোচনায় আসেন। ফেঁসেও যান তিনি, বেরিয়ে আসে জিকে শামীমের সঙ্গে তার সখ্যতার নানা তথ্য। একারণে দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক) তার বিষয়ে তদন্তও করে। কিন্তু সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ তার বিরুদ্ধে কোনো ব্যবস্থা না নিয়ে উল্টো তাকে পদোন্নতি দিয়ে পুরস্কৃত করেছে। আর এতে চরম ক্ষুব্ধ অধিদপ্তরের সৎ কর্মকর্তরা। আলোচিত এই প্রকৌশলীর নাম মো. ফজলুল হকের (মধু)। তৎকালীন সময়ে গণপূর্তের শেরেবাংলা নগর-১-এর নির্বাহী প্রকৌশলীর দায়িত্বে থাকলেও বর্তমানে পদোন্নতি পেয়ে তত্ত্বাবধায়ক প্রকৌশলী (উন্নয়ন) তিনি। সম্প্রতি তাকে পদোন্নতির সঙ্গে সঙ্গে এই গুরুত্বপূর্ণ পদে পদায়নও করা হয়েছে। যদিও তার এ মুহূর্তে দুর্নীতির দায়ে শাস্তি হওয়ার কথা। তিনিই জিকে শামীমের প্রতিষ্ঠানকে অবৈধভাবে এই সাড়ে ১০ কোটি টাকা অতিরিক্ত বিল দিয়েছেন। গণপূর্ত অধিদফতরের শেরে বাংলা নগর পূর্ত বিভাগ-১ এর বর্তমান নির্বাহী প্রকৌশলী মোহাম্মদ মোয়াজ্জেম হোসেন গত ২১ মার্চ, ২০২১ ঢাকা গণপূর্ত মেট্রোপলিটন জোন এর অতিরিক্ত প্রধান প্রকৌশলীকে এ বিষয়ে একটি চিঠি পাঠিয়েছেন। তার চিঠিতে ম্যাজিস্ট্রেট কর্তৃক কাজের মূল্যায়ন এবং অতিরিক্ত বিল প্রদানের প্রমাণের কথাও বলা হয়েছে। তারপর থেকে প্রধান প্রকৌশলী পর্যন্ত ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা নিজেদের মধ্যে শুধু অযৌক্তিক চিঠি চালাচালিই করছেন। এমনকি এ বিষয়ে একাধিক অযৌক্তিক কমিটিও গঠন করা হয়েছে, যেসব কমিটিকে নতুন করে তথ্য সংগ্রহের দায়িত্ব দেয়া হয়েছে। বস্তুত, সময়ক্ষেপণ এবং দুর্নীতি ধামাচাপা দেয়ার অপকৌশল ছাড়া কিছুই নয়। দায়ী কর্মকর্তাকে সাসপেন্ড করা বা তার বিরুদ্ধে অন্য কোনো শাস্তিমূলক ব্যবস্থাও নেয়া হয়নি। তাকে শোকজ পর্যন্ত করা হয়নি। দায়ী কর্মকর্তার দায়-দায়িত্ব নিরূপণ করার জন্য বা তার বিরুদ্ধে শাস্তিমূলক ব্যবস্থা নেয়ার জন্য কোনো তদন্ত কমিটিও গঠন করা হয়নি। বিভাগীয় মামলাও দায়ের করা হয়নি। উল্টো তাকে পুরষ্কৃত করা হয়েছে। ফলে এ নিয়ে সংশ্লিষ্ট মহলে ব্যাপক আলোচনা-সমালোচনা চলছে।

গণপূর্তের মাফিয়া ঠিকাদার জিকে শামীম গ্রেপ্তার হওয়ার পর আগারগাঁও ন্যাশনাল ইনস্টিটিউট অব নিউরোসায়েন্স হাসপাতাল নির্মাণ প্রকল্পের কাজটি তার প্রতিষ্ঠান বন্ধ করে দেয়। এ অবস্থায় পাবলিক প্রকিউরমেন্ট রুলস (পিপিআর) অনুযায়ী জিকে শামীমের প্রতিষ্ঠানের নামে থাকা কাজটি বাতিল করে কর্তৃপক্ষ।

ওই সময় এ প্রকল্পে ঠিক কতোটুকু কাজ সম্পন্ন হয়েছে তা নিশ্চিত হতে গিয়ে কর্তৃপক্ষ দেখতে পায়, কাজের মূল্যের চাইতে প্রায় সাড়ে ১০ কোটি টাকা বেশি পরিশোধ করা হয় শামীমের প্রতিষ্ঠান জিকে বিল্ডার্সকে। মূলত, ২০১৮ সালের ৮ অক্টোবরে রাজধানীর শেরেবাংলা নগরে নিউরোসায়েন্স হাসপাতালের কাজ শুরু করে জি কে শামীমের মালিকানাধীন জি কে বিল্ডার্স।

এ প্রকল্পে ১৬৭ কোটি ৭৩ লাখ ৬৯ হাজার ৬৩৩ টাকা ব্যয়ে ১৫ তলা ভবন নির্মাণের জন্য সময় ছিল ২৪ মাস। কিন্তু কাজের কিছু অংশ শেষ হওয়ার পরই তাকে গ্রেফতার করা হয়। তখন গণপূর্তের পক্ষ থেকে সরেজমিনে পরিদর্শন করে কর্তৃপক্ষ জেনেছে ‘ঠিকাদার প্রতিষ্ঠান শোর পাইলিংয়ের কাজ শেষ করে হাসপাতালের মূল ভবনের মাটি কাটার কাজ আংশিক শেষ করেছে। বেজমেন্টের ম্যাটের প্রায় ৩০ ভাগ ঢালাই শেষ করে সেখানে ২ ও ৩ নম্বর বেজমেন্টের ছাদ ঢালাই শেষ হয়েছে।’

জাতীয় নিউরোসায়েন্স হাসপাতাল নির্মাণকাজ দীর্ঘ সময় বন্ধ থাকায় ২০২০ সালের বছর ১৩ জানুয়ারি ঠিকাদার প্রতিষ্ঠানের সঙ্গে চুক্তি বাতিল করে গণপূর্ত অধিদপ্তর। এরপর বিধিমতে নির্মাণকাজের যৌথ পরিমাপের জন্য নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট নাজমুল হোসাইনকে নিয়োগ দেওয়া হয়। একই বছরের ২২ মার্চ প্রকল্প পরিচালক, নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট, ঠিকাদারের প্রতিনিধি ও সংশ্লিষ্ট নির্বাহী প্রকৌশলীর উপস্থিতিতে কাজের যৌথ পরিমাপ করা হয়। সেই যৌথ পরিমাপে সম্পাদিত কাজের মূল্যমান দাঁড়িয়েছে ১৯ কোটি ৫০ লাখ ৯ হাজার ৯৪৫ টাকা। এর মধ্যে ২০১৯ সালের ১৮ মার্চ ঠিকাদার প্রতিষ্ঠানকে ৯ কোটি ৯৫ লাখ টাকা বিল দেওয়া হয়েছে।

আবার তিন মাসের মাথায় আরও ৩০ জুন আরও ২০ কোটিসহ মোট ২৯ কোটি ৯৫ লাখ টাকা দেওয়া হয়েছে ঠিকাদারকে। সেই হিসাবে ঠিকাদার প্রতিষ্ঠানটিকে ১০ কোটি ৪৪ লাখ ৯০ হাজার টাকা বেশি দেওয়া হয়েছে।

গণপূর্ত অধিদফতরের শেরেবাংলা নগর গণপূর্ত বিভাগ-১ এর নির্বাহী প্রকৌশলী মোহাম্মদ মোয়াজ্জেম হোসেন ২০২১ সালের ২৮ মার্চ এসব বিষয়গুলো জানাতে ঢাকা গণপূর্ত মেট্রোপলিটন জোন এর অতিরিক্ত প্রধান প্রকৌশলীকে একটি পত্র পাঠান। সংযুক্তি হিসেবে তিনি যৌথ পরিমাপের কপি ৩৯ পাতা এবং বিল এর কপি ও অন্যান্য আরো ১৫ পাতা উক্ত চিঠির সঙ্গে প্রেরণ করেন।

একই বিষয় অবিহিতকরণ ও পরবর্তী নির্দেশনা প্রাপ্তির জন্য গণপূর্তের ঢাকা গণপূর্ত সার্কেল-৩ (শেরেবাংলা নগর) এর তত্ত্বাবধায়ক প্রকৌশলী মো. রোকন উদ্দিন গত ৪ এপ্রিল, ২০২১ গণপূর্ত অধিদপ্তরের প্রধান প্রকৌশলীকে চিঠি দেন। তিনি দায়ী কর্মকর্তার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণ বা অপরাধের দায়-দায়িত্ব নিরূপণের বিষয়ে চিঠিতে কিছুই লেখেননি।

আগারগাঁও ন্যাশনাল ইনস্টিটিউট অব নিউরোসায়েন্স হাসপাতাল নির্মাণ প্রকল্পের কাজে অতিরিক্ত বিল পরিশোধ করার বিষয়ে গণপূর্তের প্রধান প্রকৌশলীকে অবহিত করতে গত ১২ এপ্রিল, ২০২১ একটি চিঠি পাঠান গণপূর্ত মেট্রোপলিটন জোন এর অতিরিক্ত প্রধান প্রকৌশলী প্রদীপ কুমার বসু। ওই চিঠিতে প্রকল্পের নতুন দরপত্রের প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়ার অনুরোধ জানানো হলেও অবৈধ ও জাল-জালিয়াতির মাধ্যমে অতিরিক্ত বিল প্রদানের জন্য দায়-দায়িত্ব নিরূপন এবং দায়ী কর্মকর্তার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণের বিষয়ে কিছুই বলা হয়নি।

সরকারের বিধি-বিধান বা আইন-কানুন মতে, যদিও এই পর্যায়ে দায়ী কর্মকর্তাকে সাসপেন্ড এবং তার বিরুদ্ধে অন্যান্য ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য তদন্ত কমিটি গঠন করাটা অপরিহার্য ছিলো সেটি না করে প্রধান প্রকৌশলী একটি অযৌক্তিক এবং প্রশ্নবিদ্ধ পদক্ষেপ নেন।

গত ৩ মে, ২০২১ গণপূর্তের প্রধান প্রকৌশলী মোহাম্মাদ শামীম আখতার জি কে বিল্ডার্সকে অতিরিক্ত বিল প্রদানের বিষয়ে একটি পূর্ণাঙ্গ সুপারিশমালা পাওয়ার জন্য তিন সদস্য বিশিষ্ট একটি কমিটি করেন। ওই কমিটির আহ্বায়ক করা হয়- গণপূর্তের অতিরিক্ত প্রধান প্রকৌশলী (স্বাস্থ্য উইং) মো. খাইরুল ইসলামকে, নির্বাহী প্রকৌশলী (সংস্থাপন) আহমেদ আবদুল্লাহ নুরকে সদস্য সচিব ও তত্ত্বাবধায়ক প্রকৌশলী (ঢাকা গণপূর্ত সার্কেল-৪) মোহা. উজির আলীকে সদস্য করা হয়। কমিটির কার্যপরিধি সম্পর্কে বলা হয়, “১) বর্ণিত প্রকল্পের অর্থ বরাদ্দ ও ব্যয়ের তথ্যাদিসহ আর্থিক সার্বিক চিত্র উপস্থাপন করবেন। ২) প্রকল্পের আর্থিক ব্যয় ব্যবস্থাপনা ও অভিযোগ সংশ্লিষ্ট বিষয়ে প্রয়োজনে হিসাব রক্ষণ দফতরের মতামত গ্রহণ করবেন। ৩) ক্রমিক ১ ও ২ বিশ্লেষণপূর্বক সার্বিক সুপারিশ পেশ করবেন।” এই কমিটিকে অনিয়ম তদন্তের কোনো দায়িত্ব দেয়া হয়নি।

কমিটির কার্যপরিধি নির্ধারণ করা হয়েছে কিছু অযৌক্তিক কথা দিয়ে। কারণ, কমিটিকে যেসব তথ্য সংগ্রহ করতে বলা হয়েছে ওই তথ্যগুলো ইতিপূর্বে নির্বাহী প্রকৌশলী মোহাম্মদ মোয়াজ্জেম হোসেনই গত ২৮ মার্চ প্রেরণ করেছেন।

তাছাড়া এতোবড়ো অনিয়ম-দুর্নীতির হাতেনাতে প্রমাণ পাওয়ার পর তদন্ত কমিটি গঠন না করে শুধু তথ্য সংগ্রহের জন্য কমিটি গঠনের বিধি-বিধান বা নজির অতীতে নেই। প্রধান প্রকৌশলী মোহাম্মদ শামীম আখতারের স্বাক্ষরে কমিটি গঠনের এই চিঠিটি ইস্যু করা হয় গণপূর্ত অধিদফতরের সংস্থাপন শাখা-১ থেকে।

অন্যদিকে একই তারিখে প্রকৌশলী মোহাম্মদ শামীম আখতারের স্বাক্ষরে গণপূর্ত অধিদফতরের সংস্থাপন শাখা-৩ থেকে কমিটি গঠনের বিষয়ে আরেকটি চিঠি ইস্যু করা হয়। এই কমিটিতেও অতিরিক্ত প্রধান প্রকৌশলী মো. খাইরুল ইসলামের নেতৃত্বে একই সদস্যদের রাখা হয়।

তবে এই কমিটি গঠনের ‘অফিস আদেশ’-এ কার্যপরিধির বিষয়ে কিছুটা পরিবর্তন করা হয়। এর কার্যপরিধি সম্পর্কে ১ নম্বরে বলা হয়, “উক্ত কাজের ঠিকাদার কর্তৃক গণপূর্ত অধিদফতরের সংশ্লিষ্ট বিভাগে বর্ণিত প্রকল্পসহ অন্যান্য প্রকল্পের অর্থ বরাদ্দ ও ব্যয়ের তথ্যাদিসহ আর্থিক চিত্র উপস্থাপন করবেন।” বাকি দুটি দফা হুবহু একই রকমের। দুটি অফিস আদেশ একটি আরেকটির প্রতিস্থাপন কিনা, এ সম্পর্কে কিছুই বলা হয়নি। দুটি অফিস আদেশই ইস্যু করা হয় ৩ মে, ২০২১ তারিখ দিয়ে। তবে গণপূর্ত অধিদফতরের সংস্থাপন শাখা-৩ থেকে ইস্যু করা আদেশটিতে প্রধান প্রকৌশলীর স্বাক্ষরে তারিখ দেয়া হয়েছে ২/৬/২০২১ইং, অন্যদিকে শাখা-১ থেকে ইস্যু করা আদেশটিতে প্রধান প্রকৌশলীর স্বাক্ষর ৩/৫/২০২১ তারিখের। এটিকে গণপূর্তের কর্মকর্তা-কর্মচারীরা ‘তুঘলকী কাণ্ড’ বলে আখ্যায়িত করছেন।

দুটি কমিটিরই আহ্বায়ক, গণপূর্তের অতিরিক্ত প্রধান প্রকৌশলী (স্বাস্থ্য উইং) মো. খাইরুল ইসলাম গত ২০ মে, শেরে বাংলা নগর গণপূর্ত বিভাগ-১ এর নির্বাহী প্রকৌশলীকে লেখা এক চিঠিতে বর্ণিত কাজের কাগজপত্র এবং ঠিকাদার সংশ্লিষ্ট কাগজপত্র প্রেরণ করার জন্য বলেন। অথচ এসব কাগজপত্র নির্বাহী প্রকৌশলী ইতিপূর্বে সবই পাঠিয়েছেন। খাইরুল ইসলাম এরপরে একই তাগাদা দিয়ে ২৫ মে এবং ৬ জুন আরো দুটি চিঠি লেখেন নির্বাহী প্রকৌশলীকে। যা বস্তুত সময়ক্ষেপণ এবং ঘটনা ধামাচাপা দেয়ার অপচেষ্টা ছাড়া কিছুই নয়। মাঝে গত ৩০ মে, ২০২১ইং প্রধান প্রকৌশলী মোহাম্মদ শামীম আখতার একই বিষয়ে গণপূর্ত অধিদফতরের অতিরিক্ত প্রধান প্রকৌশলী (সওস) ড. মোহাম্মদ গিয়াসউদ্দিন হায়দারের নেতৃত্বে আরেকটি কমিটি গঠন করেন। এই কমিটি গঠনের চিঠিটি ইস্যু হয়েছে গণপূর্তের সংস্থাপন শাখা-১ থেকে এবং এটিতেও স্বাক্ষর রয়েছে প্রধান প্রকৌশলী মোহাম্মদ শামীম আখতারের। অথচ কোনো প্রতিষ্ঠানে একই সময়ে একই বিষয়ে একাধিক কমিটি গঠনের কোনো নজির অতীতে নেই এবং এটি বৈধও নয়।
শেষ দিকে এসে এ সংক্রান্ত কাজে প্রথমে গঠন করা কমিটির আহ্বায়ক গণপূর্তের অতিরিক্ত প্রধান প্রকৌশলী (স্বাস্থ্য উইং) মোঃ খাইরুল ইসলাম গত ১০ জুন গৃহায়ন ও গণপূর্ত মন্ত্রণালয়ের চীফ একাউন্টস এন্ড ফিন্যান্স অফিসার এর উদ্দেশ্যে একটি মতামত প্রদান করেন।

তাতে বলা হয়- শেরেবাংলা নগর গণপূর্ত বিভাগ-১ থেকে প্রাপ্ত প্রতিবেদনে দেখা যায় জবঃবহঃরড়হ সড়হবু ( ধরে রাখা টাকা) বাবদ সংশ্লিষ্ট বিভাগে বর্ণিত প্রকল্পের ১৪৯.৭৫ লাখ টাকা এবং অন্যান্য প্রকল্পের জবঃবহঃরড়হ সড়হবু বাবদ ২০২২.০৬ লাখ টাকা সংরক্ষিত আছে। এমতাবস্থায়, বর্ণিত প্রকল্পে ঠিকাদারকে অতিরিক্ত পরিশোধিত ১০৪৪.৯০ লাখ টাকা সরকারি কোষাগারে ফেরত আনার লক্ষ্যে সংশ্লিষ্ট বিভাগ থেকে প্রাপ্ত জবঃবহঃরড়হ সড়হবু সংক্রান্তÍ তথ্য ও অন্যান্য তথ্যাদির ভিত্তিতে উক্ত টাকা ফেরত আনার প্রায়োজনীয় নির্দেশনা/মতামত প্রদানের জন্য অনুরোধ করা হলো।

এছাড়া অতিরিক্ত প্রধান প্রকৌশলী মোঃ খাইরুল ইসলাম ১৪ জুন সেগুনবাগিচায় হিসাব মহা নিয়ন্ত্রকের কার্যালয়ে হিসাব মহা নিয়ন্ত্রক-কে একটি মতামত পেশ করেন। সেই মতামত পত্রে প্রকল্পের নানা বিষয় তুলে ধরে তিনি (মো. খাইরুল ইসলাম) প্রকল্পের ঠিকাদারকে অতিরিক্ত পরিশোধিত ১০ কোটি ৪৪ লাখ টাকা সরকারি কোষাগারে ফেরত আনার লক্ষ্যে প্রয়োজনীয় নির্দেশনা/ মতামত প্রদানের জন্য অনুরোধ জানান। দুটি চিঠিতেই বলা হয় যে, নিউরো সায়েন্সের এই প্রকল্পে ‘রিটেনশন মানি’ অর্থাৎ সিকিউরিটির অর্থ জমা আছে ১ কোটি ৪৯ লাখ ৭৫ হাজার টাকা।

এই ঠিকাদারের বাস্তবায়নাধীন সরকারের অন্যান্য প্রকল্পে সিকিউরিটি জমা আছে ২০ কোটি ২২ লাখ ৬ হাজার টাকা। জিকে শামীমকে অতিরিক্ত প্রদানকৃত ১০ কোটি ৪৪ লাখ টাকা ওই টাকা থেকে আদায় করার জন্য বলা হয়। বাস্তবে যা একেবারেই অসম্ভব। অভিজ্ঞজনরা বলছেন, মো. খাইরুল ইসলাম এর এই অনুরোধপত্র একেবারেই অর্থহীন।

কারণ, পিপিআর অনুযায়ী কাজের প্রতিটি চুক্তি ও দায়বদ্ধতা আলাদা। সেখানে এক প্রকল্পের টাকা অন্য প্রকল্প থেকে কেটে রাখার কোনো সুযোগ নেই। তাছাড়া সেইসব প্রকল্পের ক্ষেত্রেও হয়তো দেখা যাবে, জিকে শামীম কাজের অতিরিক্ত টাকা উত্তোলন করে নিয়েছেন।

এদিকে কমিটি প্রধান অতিরিক্ত প্রধান প্রকৌশলী মো. খাইরুল ইসলাম উপরোক্ত দু’টি মতামতের কোথায়ও এ ঘটনার সঙ্গে জড়িত সরকারি কর্মকর্তাদের শনাক্তের বিষয়টি উল্লেখ করেননি। জাল-জালিয়াতির মাধ্যমে কাগজপত্রে অতিরিক্ত কাজ দেখিয়ে অতিরিক্ত বিল প্রদানকারী প্রকৃত দুর্নীতিবাজ কর্মকর্তাদের শনাক্তকরণ বা তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণের কোনো কথা উল্লেখ না করে বিষয়টি অত্যন্ত কৌশলে এড়িয়ে গেছেন অতিরিক্ত প্রধান প্রকৌশলী মো. খাইরুল ইসলাম।

গণপূর্তের সূত্রে জানা গেছে, ২০১৫ সালের ১৪ অক্টোবর শেরেবাংলা নগর-১-এর নির্বাহী প্রকৌশলী হিসেবে দায়িত্ব নেন মো. ফজলুল হক (মধু)। সেখানে তিনি ২০১৯ সালের ২৬ আগস্ট পর্যন্ত দায়িত্ব পালন করেন। তার দায়িত্ব পালনকালেই জিকে শামীমের প্রতিষ্ঠানকে কার্যাদেশ ও পরপর দুটি বিল দেওয়া হয়।

এ প্রকৌশলীর হাত ধরে শেরেবাংলা নগর ডিভিশনে জিকে শামীম নিটোর প্রকল্প, নিউরোসায়েন্স হাসপাতাল ও সোহরাওয়ার্দী হাসপাতালের বর্ধিতাংশ নির্মাণসহ কয়েকশ কোটি টাকার কাজ বাগিয়ে নেন। জিকে শামীম গ্রেপ্তার হওয়ার পর আলোচনায় আসেন প্রকৌশলী ফজলুল হক মধু।

শামীমের অপকর্মের সঙ্গে সম্পৃক্ততার সুনির্দিষ্ট অভিযোগ এনে প্রকৌশলী ফজলুল হকের বিরুদ্ধে তদন্ত শুরু করে দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক)। কিন্তু জিকে শামীমের ইস্যুটা কিছুটা আড়াল হওয়ার পর ফজলুল হক তার প্রতিষ্ঠানের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের নানাভাবে ম্যানেজ করতে সক্ষম হন।

অপকর্ম চাপা দেয়ার পাশাপাশি ইতিমধ্যে একধাপ ওপরে অর্থাৎ নির্বাহী প্রকৌশলী থেকে গণপূর্তের তত্ত্বাবধায়ক প্রকৌশলী পদে পদোন্নতি নেন তিনি এবং আকর্ষণীয় পদে পদায়নও বাগিয়ে নেন।

সংশ্লিষ্ট সূত্রমতে, ফজলুল হক মধুর ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষ ঢাকা গণপূর্ত সার্কেল-৩ এর তত্ত্বাবধায়ক প্রকৌশলী মো. রোকন উদ্দিন, ঢাকা গণপূর্ত মেট্রোপলিটন জোনের অতিরিক্ত প্রধান প্রকৌশলী প্রদীপ কুমার বসু এবং অতিরিক্ত প্রধান প্রকৌশলী (সওস) ড. মোহাম্মদ গিয়াসউদ্দিন হায়দার তাকে এসব ক্ষেত্রে সরাসরি সহায়তা করেছেন।

অথচ সরকারের বিধি-বিধান অনুযায়ী ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষ হিসেবে এদের উচিত ছিলো এমন অনিয়ম-দুর্নীতির প্রমাণ পাওয়ার শুরুতেই প্রকৌশলী ফজলুল হক মধুকে সাসপেন্ড করা এবং শোকজ করা।

এরপর তদন্ত কমিটি গঠন, বিভাগীয় মামলা দায়ের করা অপরিহার্য ছিলো। এরা সেটি না করে বরং পুরো ঘটনা ধামাচাপা দেয়ার কৌশল নিয়েছেন। এমনকি ফজলুল হককে শাস্তির পরিবর্তে পদোন্নতি এবং আকর্ষণীয় পদায়নের ব্যবস্থা করেছেন।

(সাপ্তাহিক শীর্ষকাগজে ২১ জুন ২০২১ প্রকাশিত)