এলাকা থেকে পালিয়ে খুনের মামলার আসামি স্বেচ্ছাসেবক লীগ নেতা

রবিবার, মার্চ ৭, ২০২১

জাহিন সিংহ, সাভার থেকে : হত্যা মামলার চার্জশিটভুক্ত আসামি, রয়েছে জমি দখল ও মাদক ব্যবসাসহ বিভিন্ন অপরাধমূলক কর্মকান্ডে জড়িত থাকার অভিযোগ। এমনই নানা বিতর্কে জর্জরিত স্বেচ্ছাসেবক লীগ ঢাকা জেলা উত্তরের প্রকাশনা সম্পাদক মাহাবুব হোসেন ওরফে তাজ আকন।

প্রকৃত নাম তাজ আকন তবে বিভিন্ন কুকর্মের দায় নিয়ে বরিশাল থেকে পালিয়ে এসে নিজের নাম পাল্টে আশুলিয়ায় তার পরিচিতি মাহাবুব নামে। আশুলিয়ার পল্লীবিদ্যুৎ এলাকার বসবাস করে এখন স্বেচ্ছাসেবক লীগ নেতা পরিচয়ে দাপিয়ে বেড়ান এই যুবক। তাই সেখানকার স্থানীয় লোকজন তাকে চেনেন সন্ত্রাসী মাহাবুব হিসেবে।

এলাকাবাসী জানায়, কয়েক বছর আগে বরিশাল থেকে সাভারের আশুলিয়ায় আসেন মাহাবুব হোসেন। তার গ্রামের বাড়ি বরিশালের মুলাদী থানায় নিজের মামাকে কুপিয়ে হত্যা করেন। সেই মামলার চার্জশিটভুক্ত আসামি মাহাবুব। এই হত্যাকান্ডের ঘটনায় নিজের এলাকা থেকে গা ঢাকা দেন আশুলিয়ার পল্লীবিদ্যুৎ এলাকায়।

পরে এখানেই শুরু করেন স্থায়ী বসবাস। কাজ শুরু করেন আশুলিয়ার প্রাভাবশালী ব্যক্তিদের ভাড়াটে ক্যাডার হিসেবে। প্রভাবশালী রাজনৈতিক নেতাদের সাথে সখ্যতা তৈরি করে জমি দখল, চাঁদাবাজিসহ জড়িয়ে পড়েন বিভিন্ন অপরাধমূলক কর্মকান্ডে।

গত তিন বছর আগে নিজের জায়গা করে নেন স্বেচ্ছাসেবক লীগের জেলা কমিটিতে। এর পর হয়ে ওঠেন আরও বেপরোয়া। তার প্রভাব ব্যবহার করে ছোট ভাই ফয়সাল আকন শুরু করেন মাদক ব্যবসা। কিছুদিন আগে মাদক বিক্রির সময় ধরা পড়েন গোয়েন্দা পুলিশের হাতে। ইয়াবা ও হেরোইন বিক্রির আপরাধে দায়েরকৃত সেই মামলায় জামিনে বের হলেও এলাকায় থেমে নেই তার মাদকের ব্যবসা।

সম্প্রতি আশুলিয়ার পল্লীবিদ্যুত এলাকায় রাস্তা দখল করে দেওয়াল তুলে দেন স্বেচ্ছাসেবক লীগের এই নেতা। এতে বাড়ির সামনে চলাচলের পথ না থাকায় কষ্ট করে বিকল্প সরু পথে যাতায়াত করতে হ”েছ বলে অভিযোগ করে ভুক্তভোগী পরিবার।

স্থানীয় স্বেচ্ছাসেবক লীগ নেতাকর্মীদের অভিযোগ, বিভিন্ন সন্ত্রাসী কর্মকান্ডে জড়িত থাকার পরও দলীয় পদ ব্যবহারের সুযোগে আরও বেপরোয়া হয়ে উঠেছেন মাহাবুব। তাকে দল থেকে বহিষ্কারের দাবি জানান কয়েকজন নেতাকর্মী।

এবিষয়ে ঢাকা জেলা উত্তর স্বেচ্ছাসেবক লীগের সাধারণ সম্পাদক সায়েম মোল্লা বলেন, তার বিরুদ্ধে আনীত অভিযোগের তদন্ত করে প্রয়োজনীয় সাংগঠনিক ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

তবে অভিযুক্ত স্বেচ্ছাসেবক লীগ নেতার সাথে বার বার যোগাযোগের চেষ্টা করা হলেও পাওয়া যায়নি তাকে।