রংপুরে হাঁড় কাঁপানো শীত, ৭ দিনে ২৩ জনের মৃত্যু

বুধবার, জানুয়ারি ২০, ২০২১

ঢাকা : রংপুরে হাঁড় কাপানো শীতে জনজীবন বিপর্যস্ত হয়ে পড়েছে। বিশেষ করে ছিন্নমূল দরিদ্র মানুষের কষ্টের সীমা নেই। শীতের তীব্রতা বাড়ায় দেখা দিয়েছে কোল্ড ডায়রিয়া, নিউমোনিয়া ও শ্বাসকষ্টসহ নানা রোগের প্রকোপ।

গত এক সপ্তাহে শীতজনিত রোগে আক্রান্ত হয়ে এক হাজার ৩০০ জন রোগী রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি হয়েছে। এদের মধ্যে মারা গেছে ১৭ জন। একই সময়ে আগুন পোহাতে গিয়ে দগ্ধ হয়ে ৬ জনের মৃত্যু হয়েছে।

মঙ্গলবার (১৯ জানুয়ারি) সরেজমিনে খবর নিয়ে জানা গেছে, কনকনে শীতে অসহায় হয়ে পড়েছেন খেটে খাওয়া মানুষরা। অনেকেই শীতের হাত থেকে রক্ষা পেতে খড়কুটো জ্বালিয়ে শীত নিবারণের চেষ্টা করছেন।

প্রচণ্ড ঠাণ্ডায় গরম কাপড়ের অভাবে রংপুরের পীরগাছা, কাউনিয়া ও গঙ্গাচড়ার চরাঞ্চলের মানুষেরা সবচেয়ে বেশি কষ্ট পাচ্ছেন।

এদিকে গত এক সপ্তাহে খড়কুটো জ্বালিয়ে শীত নিবারণের চেষ্টাকালে দগ্ধ হয়ে ২১ জন রোগী রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের বার্ণ ইউনিটে ভর্তি হয়েছে। এদের মধ্যে ৬ জন মারা গেছেন। এখনও ১৫ জন রোগী চিকিৎসা নিচ্ছেন। প্রতিদিন আগুন পোহাতে গিয়ে গড়ে ৩ জন করে অগ্নিদগ্ধ হয়ে হাসপাতালে আসছেন বলে রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের বার্ণ ইউনিটের প্রধান ডা. এমএ হামিদ পলাশ নিশ্চিত করেছেন।

রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের ভারপ্রাপ্ত পরিচালক ডা. রোস্তম আলী জানান, রংপুর অঞ্চলে শীতের তীব্রতা বেড়েছে। শীত জনিত রোগে আক্রান্ত হয়ে গত এক সপ্তাহে এক হাজার ৩০০ রোগী ভর্তি হয়েছে। এদের মধ্যে শিশু ও বয়স্ক মানুষের সংখ্যায় বেশী।