শীতে ত্বক থেকে চুল ঝলমলে করতে ভিটামিন ই-যুক্ত খাবারগুলি খান আজ থেকেই!

শুক্রবার, জানুয়ারি ৮, ২০২১

স্বাস্থ্য ডেস্ক : শীতকালে ঋতু পরিবর্তন ও বাতাসে আর্দ্রতা কমে যাওয়ার ফলে ত্বক রুক্ষ ও শুষ্ক হয়ে যায়। খসখসে ত্বকের পাশাপাশি ত্বকের জেল্লাও কমে আসতে থাকে। ফলে এই সময়ে ত্বকের বাড়তি যত্ন নেয়ার কথা বলে থাকেন চিকিৎসকরা।

তাই শীতে ভিটামিন ই-যুক্ত অয়েল বা ভিটামিন ই আছে এমন বিভিন্ন বিউটি প্রোডাক্ট ব্যবহার করা হয়, যাতে ত্বক ময়শ্চারাইজড থাকে এবং রুক্ষ না হয়ে যায়। এই সব মেখে অনেকেই ত্বক ভালো রাখার চেষ্টা করেন, কিন্তু মনে রাখতে হবে, এই কসমেটিক প্রোডাক্টে কিন্তু অনেক কেমিক্যালও থাকে। ফলে ত্বক ভালো রাখতে কোনো কসমেটিক প্রোডাক্টের বদলে যদি ডায়েটে ভিটামিন ই রাখা যায়, তা হলে প্রাকৃতিক ভাবেই তা ত্বক ভালো রাখতে সাহায্য করবে।

রেডিওলজিস্টদের কথায়, ভিটামিন ই শুধু ত্বক রুক্ষ হওয়া থেকে বাঁচায় তা নয়, এর পাশাপাশি সানবার্ন, কালো ছোপ বা বলিরেখা পড়াও রোধ করে। চুল ভালো রাখে ও রোগপ্রতিরোধ ক্ষমতাও বাড়িয়ে তোলে।

ফলে ভিটামিন ই ডায়েটে রাখতে আজ থেকেই এই খাবারগুলি ব্রেকফাস্টে অ্যাড করা যেতে পারে –

১. আমন্ড

আমন্ডে প্রচুর পরিমাণে ভিটামিন ই থাকে। বিশেষজ্ঞরা বলে থাকে, রাতে পাঁচটা আমন্ড ভিজিয়ে সকালে তার খোসা ছাড়িয়ে খেলে ভালো উপকার পাওয়া যেতে পারে। পাশাপাশি, বেড টি বা ব্রেকফাস্টে কর্নফ্লেক্সের সঙ্গেও আমন্ড খাওয়া যেতে পারে।

২. পালং শাক

পালং শাকেও প্রচুর পরিমাণে ভিটামিন ই রয়েছে। রয়েছে ফাইবারও। ফলে পালং শাক শরীরে একাধিক উপকারে লাগে। ব্রেকফাস্টে ডিমের সঙ্গে বা স্যালাডের সঙ্গে এটি খাওয়া যেতে পারে। স্যান্ডউইচে দেওয়া যেতে পারে বা কোনও তরকারি করেও খাওয়া যেতে পারে।

৩. অ্যাভোকাডো

পালংয়ের মতোই শরীরে একাধিক উপকার করে অ্যাভোকাডো। এই ফল স্যান্ডউইচে লাগিয়ে খাওয়া যেতে পারে। বা এর চাটনি বানিয়ে তা দিয়ে কিছু মিশিয়ে খাওয়া যেতে পারে। এটি ব্রেকফাস্টে রাখলে দারুণ উপকার পাওয়া যায়।

৪. সূর্যমুখী বীজ

এই বীজগুলি দেখতে ছোট হলেও ভিটামিন ই-তে ভরপুর হয়। চায়ের সঙ্গে স্ন্যাক্স হিসেবে খাওয়া যেতে পারে বা ওটস, কর্নফ্লেক্স বা অন্যান্য খাবারের সঙ্গেও মিশিয়ে খাওয়া যেতে পারে।

৫. চিনা বাদাম বা পিনাট

পিনাট বাটার অনেকের পছন্দের খাবার। পাঁউরুটিতে লাগিয়ে খাওয়া যেতে পারে এটি। অনেক সময়ে পিনাট বাটার দিয়ে স্যান্ডউইচও করা হয়ে থাকে। এ ছাড়াও পিনাট পোহা, উপমা বা তা বেটে কোনও কোনও খাবারে ব্যবহার করা যেতে পারে। এতেও প্রচুর পরিমাণে ভিটামিন ই থাকে।