এক উপজেলাতেই ১৪৪ জন ভুয়া ডাক্তার!

বুধবার, নভেম্বর ১৮, ২০২০

পটুয়াখালী : এক জন-দুই জন নয়, ১৪৪ জন। তারা সবাই নামের আগে ডাক্তার পদবি লেখেন। কিন্তু তাদের কেউ ডাক্তার নন, কেউই এমবিবিএস পাস করেননি। কারও কাছেই নেই বাংলাদেশ মেডিক্যাল অ্যান্ড ডেন্টাল কাউন্সিলের সনদ। তবু তারা নামের আগে ডাক্তার লেখেন। সারাদেশে ৪৯২টি উপজেলার মধ্যে একটি উপজেলার চিত্র এটি। আলোচিত এই উপজেলাটি হলো পটুয়াখালীর বাউফল। এ উপজেলার ১৪৪ জন ভুয়া ডাক্তারের বিরুদ্ধে সমন জারি করেছেন পটুয়াখালীর দ্বিতীয় আদালতের সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট মোহাম্মদ শিহাব উদ্দীন। গত ১৫ নভেম্বর এই সমন জারি করা হয়।

আদালত ও সংশ্লিষ্ট সূত্রে এসব তথ্য জানা গেছে।

আদালত তার আদেশে বলেছেন, ‘নিবন্ধন ব্যতীত ভুয়া পদবি ব্যবহার করে অ্যালোপ্যাথি চিকিৎসা প্রদান ও প্রতারণামূলকভাবে নিজেকে ডাক্তার হিসেবে প্রতিনিধিত্ব করার অপরাধের প্রাথমিক সত্যতা পাওয়ায় আইনগত ব্যবস্থা নেওয়াকে আদালত সমীচীন মনে করেন। এ কারণে এই ১৪৪ জন ভুয়া ডাক্তারের বিরুদ্ধে বাংলাদেশ মেডিক্যাল ও ডেন্টাল কাউন্সিল আইন-২০১০ এর ২২/২৮/২৯ ধারার অপরাধ ও দ্য কোড অব ক্রিমিনাল প্রসিডিউর ১৮৯৮-এর ধারা ১৯০(১)(সি)-এর অধীন আমলে গ্রহণ করে প্রত্যেকের বিরুদ্ধে সমন ইস্যু করা হোক।’

জানা গেছে, চলতি বছরের ২৭ জুলাই পটুয়াখালীর বাউফল থানার জিআর মামলায় (নং ১৭১/২০) হাজতি ইব্রাহিমকে আদালতে হাজির করেন তার আাইনজীবী। একইসঙ্গে একটি প্রেসক্রিপশন দাখিল করে আসামিকে অসুস্থ বলে দাবি করেন তিনি। আদালত পর্যালোচনা করে দেখেন যে, প্রেসক্রিপশন প্রদানকারী ডাক্তার মাহমুদা বেগম কোনও এমবিবিএস ডিগ্রিধারী ডাক্তার নন। এমনকি বাংলাদেশ মেডিক্যাল ও ডেন্টাল কাউন্সিল আইন ২০১০ এর অধীনে নিবন্ধিতও নন। প্রেসক্রিপশনে ডাক্তার মাহমুদা তার ডিগ্রি হিসেবে বিভিডিএ-ঢাকা উল্লেখ করেছেন।

আদালত সেদিনই ডাক্তার মাহমুদার বিরুদ্ধে গ্রেফতারি পরোয়ানা জারি করার পাশাপাশি পটুয়াখালীর সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট মোহাম্মদ শিহাব উদ্দীন স্বতঃপ্রণোদিত হয়ে বাউফল উপজেলায় অনিবন্ধিত অন্য কোনও ডাক্তার রয়েছে কিনা, তা ন্যায়বিচারের স্বার্থে তদন্তের মাধ্যমে খতিয়ে দেখা প্রয়োজন বলে আদেশ দেন। এজন্য তিনি বাংলাদেশ মেডিক্যাল ও ডেন্টাল কাউন্সিল আইন ২০১০ এর অধীন নিবন্ধিত নন—কিন্তু ডাক্তার পরিচয় দিয়ে বেআইনিভাবে চিকিৎসা দিয়ে যাচ্ছেন, তদন্তের মাধ্যমে এমন ব্যক্তিদের একটি তালিকা প্রণয়ন করে আদালতের কাছে জমা দিতে বাউফল সার্কেলের সহকারী পুলিশ সুপারকে নির্দেশ দেন।

সম্প্রতি পটুয়াখালীর বাউফল সার্কেলের সহকারী পুলিশ সুপার ১৪৪ জন ভুয়া ডাক্তারের একটি তালিকা আদালতে জমা দিয়েছেন। বাউফল সার্কেলের সেই এএসপি ফারুক হোসেন বর্তমানে গলাচিপা সার্কেলে দায়িত্ব পালন করছেন। ১৪৪ জনের তালিকা সম্পর্কে জানতে চাইলে তিনি গণমাধ্যমকে বলেন, ‘আদালতের নির্দেশে মাঠ পর্যায়ে তদন্ত ও অনুসন্ধান করে আমরা ১৪৪ জনের একটি তালিকা তৈরি করে জমা দিয়েছি। এরা কেউই এমবিবিএস ডিগ্রিধারী নন। ফলে তাদের বিএমডিসির সনদ থাকার কোনও সুযোগই নেই। এদের অনেকেই সরকারি-বেসরকারি বিভিন্ন প্রতিষ্ঠান থেকে পল্লি চিকিৎসক হিসেবে প্রশিক্ষণ নিয়েছেন। কিন্তু এরা সবাই নামের আগে ডাক্তার লেখেন।’

ভুয়া ডাক্তারের তালিকায় থাকা প্রথম ১০ জনের মধ্যে সাত জনের সঙ্গে কথা বলেছেন একটি গণমাধ্যম। তারা সবাই পটুয়াখালীর বাউফল উপজেলার কাছিপাড়া ও বাহেরচর এলাকায় ডাক্তার হিসেবে রোগী দেখেন। এদের মধ্যে আলাউদ্দিন নামে একজন ইউনানি অ্যান্ড আয়ুবের্দিক মেডিসিন থেকে স্বল্পমেয়াদি প্রশিক্ষণ ও সনদ নিয়ে নামের আগে ডাক্তার ব্যবহার করেন।

সোবাহান নামে এক ব্যক্তি জানান, তার কোনও সনদ নেই। তার বাবা গ্রাম্য চিকিৎসক ছিলেন। বাবার সঙ্গে ঘুরে ঘুরে তিনি ডাক্তারি বিদ্যা অর্জন করেছেন। হাবিবুর রহমান নামে আরেকজন পটুয়াখালীর সিভিল সার্জনের কাছ থেকে স্বল্পমেয়াদি প্রশিক্ষণের একটি সনদ নিয়েছেন। আব্দুর রশিদ মাস্টার মূলত একজন শিক্ষক। শিক্ষকতার পাশাপাশি তিনিও জেলা সিভিল সার্জনের কাছ থেকে স্বল্পমেয়াদি প্রশিক্ষণের সনদ নিয়ে নামের আগে ডাক্তার ব্যবহার করেন।

শামীম হোসেন নামে কাছিপাড়া বাজারের তালিকাভুক্ত আরেক ব্যক্তি জানান, তিনি ঢাকার মিটফোর্ড হাসপাতাল থেকে এলএমএএফ নামের একটি স্বল্পমেয়াদি কোর্স সম্পন্ন করেছেন। তিনিও নামের আগে ডাক্তার লেখার কথা স্বীকার করেছেন গণমাধ্যমের কাছে।

বাংলাদেশ মেডিক্যাল অ্যান্ড ডেন্টাল কাউন্সিল-২০১০ এর আইনের ২২(১) ধারায় বলা হয়েছে, ‘অন্য কোনও আইনে যা কিছুই থাকুক না কেন, এই আইনের অধীন নিবন্ধন ব্যতীত কোনও মেডিক্যাল চিকিৎসক বা ডেন্টাল চিকিৎসক অ্যালোপ্যাথি চিকিৎসা করতে, অথবা নিজেকে মেডিক্যাল চিকিৎসক বা ক্ষেত্রমতে ডেন্টাল চিকিৎসক বলে পরিচয় প্রদান করতে পারবেন না।’ আর এই আইনের ২২(২) ধারায় বলা হয়েছে, ‘কোনও ব্যক্তি উপধারা (১) এর বিধান লঙ্ঘন করলে ওই লঙ্ঘন হবে একটি অপরাধ এবং সেজন্য তিনি তিন বছর কারাদণ্ড অথবা এক লাখ টাকা অর্থদণ্ড অথবা উভয়দণ্ডে দণ্ডনীয় হবেন।’ এছাড়া একই আইনের ২৯ ধারায় ‘ন্যূনতম এমবিবিএস অথবা বিডিএস ডিগ্রিপ্রাপ্তরা ব্যতীত অন্য কেউ ডাক্তার পদবি ব্যবহার করতে পারবে না’ বলে উল্লেখ রয়েছে।

কিন্তু বাস্তব চিত্র হলো, বাংলাদেশের প্রতিটি জেলা-উপজেলা ও গ্রামে-গঞ্জে পল্লি চিকিৎসার প্রশিক্ষণ নেওয়া ব্যক্তিরা প্রায় সবাই নিজেদের নামের আগে ডাক্তার পদবি ব্যবহার করে থাকেন। সরকারি একাধিক প্রতিষ্ঠান থেকেও চিকিৎসা বিদ্যায় ডিপ্লোমা সার্টিফিকেট দেওয়া হয়। কেউ কেউ সিভিল সার্জনের কাছ থেকেও একেবারেই স্বল্পমেয়াদি প্রশিক্ষণ নিয়ে নামের আগে ডাক্তার শব্দটি ব্যবহার করছেন।

বিএমডিসি বলছে, সাধারণ প্রশিক্ষণধারী বা পল্লি চিকিৎসায় প্রশিক্ষণধারী তো দূরের কথা, ডিপ্লোমাধারী চিকিৎসকরাও নামের আগে ডাক্তার শব্দটি ব্যবহার করতে পারবেন না। ডিপ্লোমা ডিগ্রিধারীরা সাধারণত উপসহকারী কমিউনিটি মেডিক্যাল অফিসার হিসেবে কাজ করতে পারেন। তারা সুনির্দিষ্ট কিছু ওষুধের বিষয়ে প্রেসক্রিপশন লিখতে পারেন। কিন্তু কোনোভাবেই নামের আগে ডাক্তার লিখতে পারবেন না।

বিএমডিসি জানায়, এমবিবিএস ও বিডিএস ডিগ্রিধারী ছাড়া কেউ অ্যালোপ্যাথি চিকিৎসা করতে পারবেন না। কেউ নামের আগে ডাক্তার লিখতেও পারবেন না। বিএমডিসির কাজ হলো—কে ডাক্তার আর কে ডাক্তার নয়, তা নির্ণয় করা। অথচ, বিএমডিসি ভুয়া ডাক্তারদের বিরুদ্ধে আইনি প্রক্রিয়ায় যেতে পারে না। সেটি বিএমডিসির কাজও নয়। এটি হলো স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের সংশ্লিষ্ট শাখা, সিভিল সার্জন বা উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ও আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর কাজ। সিভিল সার্জন ও উপজেলা স্বাস্থ্য কর্মকর্তা ভুয়া ডাক্তারদের চিহ্নিত করে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীকে জানাবে, তারা প্রয়োজনীয় আইনগত ব্যবস্থা নেবে।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক একটি জেলার সিভিল সার্জন জানান, গ্রামে-গঞ্জে এত বেশি কথিত ডাক্তার বা পল্লি চিকিৎসকরা নামের আগে ডাক্তার ব্যবহার করছেন যে, এটি আসলে নিরূপণ করে তাদের আইনের আওতায় আনা সহজ কাজ নয়। এটা বন্ধ করতে হলে সরকারের উদ্যোগ ও স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়কে শক্ত পদক্ষেপ নিতে হবে।

পটুয়াখালীর বাউফল উপজেলার ১৪৪ জন ভুয়া ডাক্তার প্রসঙ্গে যোগাযোগ করা হলে জেলার সিভিল সার্জন ডা. মোহাম্মদ জাহাঙ্গীর আলম গণমাধ্যমকে বলেন, ‘এটা আমি শুনেছি, কিন্তু অফিশিয়ালি এখনও কোনও তালিকা পাইনি। তালিকা পেলে আমরাও তাদের বিরুদ্ধে কার্যকর ব্যবস্থা নেবো।’ কিন্তু এ কাজতো সিভিল সার্জনের আগে থেকেই করার কথা, মনে করিয়ে দিলে তিনি বলেন, ‘প্রতিটি ইউনিয়নে এত পল্লি চিকিৎসক নিজেদের নামের আগে ডাক্তার ব্যবহার করেন, তা নিরূপণ করে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়ার মতো লোকবলও নেই।’

বাংলাদেশ মেডিক্যাল অ্যান্ড ডেন্টাল কাউন্সিলের সভাপতি অধ্যাপক মোহাম্মদ শহীদুল্লাহ গণমাধ্যমকে বলেন, ‘এমবিবিএস ও বিডিএস ডিগ্রিধারী ছাড়া কেউ নামের আগে ডাক্তার লিখে চিকিৎসা ব্যবস্থাপত্র দিতে পারবে না। এটা রোগীদের সঙ্গে এক ধরনের প্রতারণার শামিল। এসব ভুয়া ডাক্তাররের চিকিৎসার কারণে গ্রামে-গঞ্জে অসংখ্য রোগী অকালে প্রাণ হারাচ্ছেন। এদের বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা নেওয়া উচিত।’

তিনি বলেন, ‘বিএমডিসির আইন প্রয়োগ করার কোনও ক্ষমতা নেই। এটা আইনশৃঙ্খলা বাহিনী ও সিভিল সার্জন বা উপজেলা স্বাস্থ্য কর্মকর্তারা করতে পারেন। যথাযথভাবে আইন প্রয়োগ করে ভুয়া ডাক্তারদের শাস্তি না দিতে পারলে রোগীরা প্রতারিত হতেই থাকবেন। স্বাস্থ্যসেবাও একটা ঝুঁকির মধ্যে পড়ে যাবে।’