জনগণের ভোট নিয়ে ক্ষমতায় থাকতে চায় না সরকার : নীরব

বৃহস্পতিবার, অক্টোবর ২৯, ২০২০

ঢাকা : জাতীয়তাবাদী যুবদলের কেন্দ্রীয় সভাপতি সাইফুল আলম নীরব বলেছেন, ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগ সরকার রাতের অন্ধকারে ভোট ডাকাতি করে ক্ষমতা দখল করে এখন জনগণকে ভোট দিতে চায় না।

তিনি বলেন, এই অবৈধ সরকার ও তাদের পেটোয়া বাহিনী আমাদেরকে বাধা দিচ্ছে। তারা এখন জনগণকে ভোট দিতে চায় না। তারা জনগণের ম্যান্ডেট নিয়ে ক্ষমতায় থাকতে চায় না। কিন্তু আমরা তাদের সকল বাধা ও হুমকি উপেক্ষা করে ভোট কেন্দ্রে যাবো।

বৃহস্পতিবার বিকালে ঢাকা-১৮ আসনের উপনির্বাচনে বিএনপির প্রার্থী এসএম জাহাঙ্গীরের পক্ষে গণসংযোগ শেষে এক বিশাল গণজমায়েতে তিনি এসব কথা বলেন। জিয়াউর রহমান ফাউন্ডেশন (জেডআরএফ)-এর আয়োজনে রাজধানীর উত্তরা হাউজ বিল্ডিং মাসকট প্লাজা হতে প্রচারণা শুরু হয়ে পুনরায় সেখানে পথসভা অনুষ্ঠিত হয়। গণসংযোগকালে আশেপাশের সকল মার্কেটে, ফুটপাতের ছোট দোকানগুলোতে ধানের শীষ প্রতীকে ভোট চেয়ে লিফলেট বিতরণ করা হয়।

নীরব বলেন, আওয়ামী লীগ জনগণের রায়কে ভয় পায় বলেই ১২ তারিখের নির্বাচনে ভোট কারচুপি ও ষড়যন্ত্রের নীলনকশা বাস্তবায়ন করতে চাচ্ছে। আর নির্বাচন কমিশন ঠুঁটো জগন্নাথের ন্যায় আওয়ামী লীগের বি-টিম হিসেবে কাজ করছে। তবে সকল ভয়-ভীতি ও আওয়ামী অত্যাচার উপেক্ষা করে আগামী ১২ নভেম্বর সকল ভোটারকে ভোট দেয়ার আহবান জানান তিনি।

মিছিল পূর্ব সমাবেশে জিয়াউর রহমান ফাউন্ডেশন নির্বাচন পরিচালনা উপকমিটির আহবায়ক অধ্যাপক ড. মোর্শেদ হাসান খান অসুস্থ থাকায় আসতে পারেননি। পরে জেডআরএফ’র উপকমিটির সদস্য ডা. পারভেজ রেজা কাকনের সভাপতিত্বে সভা পরিচালনা করেন সদস্য সচিব ডা. একেএম মাসুদ আখতার জিতু।

গণজমায়েতে সংক্ষিপ্ত বক্তব্যে অংশ নেন বিএনপির সহ-প্রচার সম্পাদক কৃষিবিদ শামীমুর রহমান শামীম, ইন্জিনিয়ার মাহবুব আলম, অধ্যাপক ড. আবুল হাসনাত মো. শামীম, ছাত্রদলের কেন্দ্রীয় সভাপতি ফজলুর রহমান খোকন, সাধারণ সম্পাদক ইকবাল হোসেন শ্যামল, ডা. ফারুক আহম্মেদ, অধ্যাপক খান মনোয়ারুল ইসলাম, কৃষিবিদ আনিসুজ্জামান, ছাত্রদলের সাবেক যুগ্ম সম্পাদক আসাদুজ্জামান আসাদ, মেহবুব মাসুম শান্ত, এম-ট্যাব মহাসচিব বিপ্লবুজ্জামান বিপ্লব, এম-ট্যাব সিনিয়র যুগ্ম-মহাসচিব দবির উদ্দীন তুষার, ছাত্রদলের কাজী রওনাকুল ইসলাম শ্রাবন, মামুন খান, মোস্তাফিজুর রহমান, মাজেদুল ইসলাম রুম্মন, মারুফ এলাহী রনি, মোহাম্মদপুর থানা বিএনপি সভাপতি হাজী মো. ইউসুফ, ডা. শাওন, কৃষিবিদ ডা. মোজাম্মেল হক, কৃষিবিদ কামরুজ্জামান জনি, ডা. গালিব হোসেন, ডা. রাকিবুল ইসলাম আকাশ, ডা. লাবিদ রহমান, কৃষিবিদ এস এম রাকিব, দোহার উপজেলার সাবেক ভাইস চেয়ারম্যান ও মহিলা দল নেত্রী শামীমা রাহিম, ছাত্রদলের সাবেক কেন্দ্রীয় নেত্রী আরিফা ‍সুলতানা রুমা, কৃষিবিদ এম এ মুজিব, ঢাবি ছাত্রদলের আহবায়ক রাকিবুল ইসলাম রাকিব, সদস্য সচিব আমানউল্লাহ আমান, ইন্জিনিয়ার আরিফুল ইসলাম তুষার, ইন্জিনিয়ার আরিফ হোসেন রচি, নুরুল হুদা ভুইয়া নুরু, ডা. আসিফ আহম্মেদ খান, এম-ট্যাব সহ-সভাপতি শহিদুল আমিন, এম-ট্যাব দপ্তর সম্পাদক আবুল কাশেম আশিক, অর্থ সম্পাদক এমাদুল হক ইমদাদ, মিজানুর রহমান, বাবুল আক্তার শান্ত, ইডেন মহিলা কলেজ ছাত্রদলের সদস্য সচিব সানজিদা ইয়াসমিন তুলিসহ জিয়াউর রহমান ফাউন্ডেশন বিভিন্ন পর্যায়ের নেতৃবৃন্দ।