মানুষের ত্বকে ৯ ঘণ্টা পর্যন্ত বেঁচে থাকে করোনা, জাপানি গবেষকদের দাবি

সোমবার, অক্টোবর ১৯, ২০২০

আন্তর্জাতিক ডেস্ক : করোনা সংক্রমণ ঠেকাতে স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলার নিদান দিয়েছেন চিকিৎসকেরা। প্রথম দিন থেকে। মাস্ক পরা, সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখার পাশাপাশি বারবার হাত ধোয়ার বার্তাও প্রচার করা হচ্ছে।

সেই আর্জির পালে এবার হাওয়া জোগাল জাপানি গবেষকদের সাম্প্রতিক অনুসন্ধান। তাঁদের দাবি, মানুষের ত্বকের উপর কম করে ন’ঘণ্টা বেঁচে থাকতে পারে এই অদৃশ্য শত্রু। ফলে ঘন ঘন হাত-মুখ পরিষ্কার না করলে সংক্রমণের আঁচ দ্রুত ছড়ানোর সম্ভাবনা প্রবল।

কিছুদিন আগে ‘ক্লিনিক্যাল ইনফেকশাস ডিজিজ’ নামে একটি জার্নালে প্রকাশিত হয়েছে এই রিপোর্ট। সেখানে গবেষকেরা জানিয়েছেন, সাধারণ ফ্লু সৃষ্টিকারী প্যাথোজেন (ক্ষতিকারক অণুজীব) ত্বকে সর্বাধিক ১০৮ মিনিট বেঁচে থাকে। কিন্তু সার্স-কোভ-২-এর আয়ু তার চাইতে অনেক বেশি। ফলে যাঁর ত্বকে ওই ভাইরাসটি আগে থেকে লেগে রয়েছে, তা এই কয়েক ঘণ্টার মধ্যে ছড়িয়ে পড়তে পারে অন্যজনের শরীরে। গবেষণার জন্য করোনা রোগীদের মৃতদেহ থেকে ত্বকের নমুনা সংগ্রহ করেছিলেন গবেষকরা। তা বিশ্লেষণ করেই তাঁরা এই সিদ্ধান্তে পৌঁছেছেন।

গোটা পর্যবেক্ষণটি ল্যাবরেটরিতে সম্পন্ন হয়েছে। বাইরের পরিবেশে সূর্যরশ্মি ও অতিবেগুনি রশ্মির বিকিরণ ভাইরাসের আয়ু ও সক্রিয়তা আরেকটু হ্রাস পেতে বাধ্য। তাই চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত জানানোর আগে ব্যাপক গবেষণা প্রয়োজন, মত চিকিৎসকদের একাংশের।

অন্যদিকে, সামাজিক চৌহদ্দিতে পুরোপুরি সংস্পর্শ এড়িয়ে চলা কার্যত অসম্ভব। গবষেকদের আশঙ্কা, ভাইরাস যদি এভাবে ক্রমশ গোষ্ঠীর মধ্যে ছড়ায়, তাহলে মহামারীকে কোনওভাবেই ঠেকিয়ে রাখা যাবে না। যদিও এ থেকে বাঁচার উপায় রয়েছে। গবেষণায় দেখা গিয়েছে, ইথানল প্রয়োগে ১৫ সেকেন্ডের মধ্যে গায়েব হয়ে যায় করোনা এবং ফ্লু ভাইরাস। হ্যান্ড স্যানিটাইজারের মধ্যে ইথানল থাকে। তাই এটি করোনা থেকে সুরক্ষার অন্যতম হাতিয়ার।