কণ্টকাকীর্ণ পথে এগোতে হয়েছে শেখ হাসিনাকে : আমু

বুধবার, সেপ্টেম্বর ৩০, ২০২০

আওয়ামী লীগের উপদেষ্টা পরিষদের সদস্য এবং কেন্দ্রীয় ১৪ দলের মুখপাত্র ও সমন্বয়ক আমির হোসেন আমু বলেছেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে অত্যন্ত কণ্টকাকীর্ণ পথ বেয়ে সামনে এগোতে হয়েছে। পৃথিবীর অন্য কোনো রাষ্ট্রনায়ককে তার মতো এতো কঠিন পরিস্থিতি মোকাবেলা করে চলতে হয়নি। তবু সবকিছু মোকাবেলা করে তিনি আজকে বাংলাদেশকে এই অবস্থানে আনতে সক্ষম হয়েছেন।

বুধবার ( ৩০ সেপ্টেম্বর) আওয়ামী লীগ সভাপতি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার জন্মদিন উপলক্ষে কেন্দ্রীয় ১৪ দল আয়োজিত ভার্চুয়াল আলোচনা সভায় তিনি এসব কথা বলেন।

আমির হোসেন আমু বলেন, শেখ হাসিনা শুধু দেশকেই সারা বিশ্বে মর্যাদাশীল করেননি। তার এই অকল্পনীয় রাষ্ট্রনায়কোচিত কর্মকাণ্ডের মধ্য দিয়ে নিজেকেও বিশ্বের হাতেগোনা কয়েকজন সফল মর্যাদাশীল রাষ্ট্রনায়কের মধ্যে প্রতিষ্ঠিত করতে সক্ষম হয়েছেন।

তিনি আরো বলেন, বঙ্গবন্ধুকে হত্যার পরে যখন এই দেশে একটা ত্রাসের রাজত্ব কায়েম হয়েছিল, মুক্তিযুদ্ধের চেতনা ও মূল্যবোধকে হত্যা করে দেশকে পাকিস্তানী ধরায় নিয়ে যাওয়ার চেষ্টা চলছিল। সেই কঠিন সময়ে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ সর্বসম্মিতিক্রমে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধুর কন্যাকে দলের সভাপতি নির্বাচিত করে। সেখান থেকে তিনি দূরদর্শী নেতৃত্ব দিয়ে দেশকে একটা জায়গায় নিয়ে এসেছেন। এখন সারা বিশ্বে বাংলাদেশ মর্যাদাশীল রাষ্ট্র হিসেবে আত্মপ্রকাশ করেছে। এটা সম্ভব হয়েছে শেখ হাসিনার যোগ্য নেতৃত্বের কারণে।

অনুষ্ঠানে আওয়ামী লীগের উপদেষ্টা পরিষদের সদস্য তোফায়েল আহমেদ বলেন, বঙ্গবন্ধু কন্যা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা শুধু বাংলাদেশের নেতা নন, তিনি আন্তর্জাতিক বিশ্বে একজন মর্যাদাশালী নেতা। আমি, আমু ভাই, মেনন ভাই ২০১৩ সালে জাতিসংঘের অধিবেশনে গিয়ে দেখেছিলাম কিভাবে সারা বিশ্বের নেতরা তাকে সম্মান করেন।
তিনি আরো বলেন, ১৯৮১ সালে ৩৪ বছর বয়সে শেখ হাসিনা আওয়ামী লীগের পতাকা হাতে নিয়ে বলেছিলেন, আমি ক্ষমতার জন্য আসিনি, আমি এসেছি বাংলার মানুষের অধিকার প্রতিষ্ঠার জন্য।

আওয়ামী লীগের মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক সম্পাদক অ্যাডভোকেট মৃনাল কান্তি দাসের সঞ্চালনলায় অনুষ্ঠানে আরো বক্তব্য রাখেন আওয়ামী লীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য জাহাঙ্গীর করিব নানক, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মাহবুব উল আলম হানিফ, ড. হাছান মাহমুদ, ওয়ার্কার্স পার্টির সভাপতি রাশেদ খান মেনন, জাতীয় সমাজতান্ত্রিক দল-জাসদের সাধারণ সম্পাদক শিরিন আখতার, সাম্যবাদী দলের সাধারণ সম্পাদক দিলীপ বড়ুয়া, বাংলাদেশ জাসদের সভাপতি শরীফ নুরুল আম্বিয়া, গণতান্ত্রিক মজদুর পার্টির জাকির হোসেন, গণতন্ত্রী পার্টির অধ্যাপক ডা. শহিদুল্লাহ শিকদার, ন্যাপের ইসমাইল হোসেন প্রমুখ।