শ্যালিকার সঙ্গে স্বামী, ভগ্নিপতি ও বন্ধু মিলে গৃহবধূকে গণধর্ষণ

মঙ্গলবার, সেপ্টেম্বর ২৯, ২০২০

ঢাকা : এবার নারায়ণগঞ্জের সিদ্ধিরগঞ্জে স্বামীকে খুঁজতে এসে এক গৃহবধূ (২৩) নিজের শিশু সন্তানের সামনে গণধর্ষণের শিকার হয়েছেন বলে অভিযোগ উঠেছে।

এ ঘটনায় ভুক্তভোগী গৃহবধূ গতকাল সোমবার দুপুরে দুজনের নাম উল্লেখ করে সিদ্ধিরগঞ্জ থানায় নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনে একটি ধর্ষণ মামলা দায়ের করেছেন।

সোমবার রাতে সিদ্ধিরগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) কামরুল ফারুক এসব তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

মামলায় আসামিরা হলেন- গাজীপুর সদরের বাউপাড়া গ্রামের সামছুল বিশ্বাসের ছেলে মো. মহসিন (৩৫) ও সিরাজগঞ্জের উল্লাপাড়া থানার কেশবগঞ্জের রমজান (৩২)। দুজনই সিদ্ধিরগঞ্জে সাহেবপাড়া এলাকায় ভাড়া বাসায় থাকতেন।

মামলার এজাহারে বলা হয়েছে, গেল রবিবার রাত সাড়ে ৮টার দিকে সিদ্ধিরগঞ্জের মিজমিজি সাহেবপাড়া নতুন রাস্তা ১ নম্বর রোডে জনৈক জসিমের নবনির্মিত চারতলা ভবনের নিচতলায় একটি কক্ষে গণধর্ষণের শিকার হন ওই নারী।

ওই ভুক্তভোগী নারীর অভিযোগ, আড়াই বছরের শিশুকে সঙ্গে নিয়ে গত রাতে তার নিখোঁজ স্বামীকে খুঁজতে গেলে গণধর্ষণের শিকার হন তিনি। এসময় দেড় বছরের শিশুটি তার পাশেই ছিল।

ওসি কামরুল ফারুক জানিয়েছেন, মামলার বাদীর বাড়ি মুন্সিগঞ্জের সিরাজদিখান উপজেলার ঘোড়ামারা গ্রামে। অভিযুক্ত রমজান ওই নারীর স্বামীর ভগ্নিপতি ও মসসিন স্বামীর বন্ধু। ওই নারীর স্বামী শ্যালিকার সঙ্গে আত্মগোপনে আছেন।

এ বিষয়ে সিদ্ধিরগঞ্জ থানার পরিদর্শক (তদন্ত) ইশতিয়াক আশফাক রাসের জানিয়েছেন, গত এক মাস ধরে ওই নারীর স্বামী নিখোঁজ। তাকে খুঁজতে বের হয়ে রবিবার রাত ৮টার দিকে সিদ্ধিরগঞ্জের সাহেবপাড়া বাজার এলাকায় স্বামীর বন্ধু মহসিনের সঙ্গে দেখা হয়। স্বামীর সন্ধান জানেন বলে ওই নারীকে একটি বহুতল ভবনের কক্ষে নিয়ে যান মহসিন। পরে সেখানে তাকে ধর্ষণ করেমহসিন। ওই কক্ষে রমজানও তাকে ধর্ষণ করে।

অভিযুক্তদের গ্রেফতারের চেষ্টা চালানো হচ্ছে বলেও জানিয়েছে সিদ্ধিরগঞ্জ থানা পুলিশ।