করোনা: ভারতে আক্রান্তের সংখ্যা বেড়ে ৫৭ লাখ, মৃত আরও ১১২৯

বৃহস্পতিবার, সেপ্টেম্বর ২৪, ২০২০

আন্তর্জাতিক ডেস্ক : ভারতে করোনাভাইরাসের দৈনিক সংক্রমণ এ দিনও ৯০ হাজারের নীচে রয়েছে। তবে আরও ৮৬ হাজারেরও বেশি মানুষের সংক্রমণে দেশে মোট আক্রান্তের সংখ্যা বেড়ে হয়েছে ৫৭ লাখ। গত ২৪ ঘণ্টায় আরও ১১০০-রও বেশি মানুষের মৃত্যু হয়েছে। এর ফলে মৃতের সংখ্যা বেড়ে ৯১ হাজার ছাড়িয়ে গেছে। তবে এই নিয়ে টানা ষষ্ঠ দিন করোনা আক্রান্তের থেকে বেশি একদিনে করোনাজয়ীর সংখ্যা।

একদিনে সংক্রমণ দেশে প্রায় ১ লক্ষের কাছাকাছি চলে গিয়েছিল। গত কয়েকদিন ধরে টানা ৯০ হাজারের উপরে থেকেছে একদিনের সংক্রমণ। সেটা গত সোমবার প্রায় ৮৭ হাজারে নেমে আসে। মঙ্গলবার স্বস্তি দিয়েছিল সুস্থতার নয়া রেকর্ডও। এক লাখেরও বেশি মানুষ কোভিডকে জয় করে সুস্থ হয়ে ওঠেন।

বৃহস্পতিবার সকালে প্রকাশিত মেডিক্যাল বুলেটিনে কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্যমন্ত্রণালয় জানিয়েছে, দেশে গত ২৪ ঘণ্টায় আরও ৮৬,৫০৮ জনের শরীরে মিলেছে করোনাভাইরাস। নয়া সংক্রমণে মোট আক্রান্তের সংখ্য়া হয়েছে ৫৭,৩২,৫১৯ জন। এখনও চিকিত্‍‌সাধীন রয়েছেন ৯,৬৬,৩৮২ জন। সুস্থ হয়ে উঠেছেন ৪৬,৭৪,৯৮৮ জন। গত ২৪ ঘণ্টায় সুস্থ হয়েছেন ৮৭, ৩৭৪ জন। এখনও পর্যন্ত দেশে সুস্থতার হার ৮১.৫৫%। মোট মৃতের সংখ্যা বেড়ে হয়েছে ৯১,১৪৯। গত ২৪ ঘণ্টায় মৃত্যু হয়েছে ১,১২৯ জনের। মৃতের হার ১.৫৯ শতাংশ। গত ২৪ ঘণ্টায় দেশে ১১,৫৬,৫৬৯ জনের কোভিড পরীক্ষা হয়েছে বলে জানিয়েছে স্বাস্থ্যমন্ত্রণালয়।

করোনায় সংক্রামিত হয়ে বুধবার মৃত্যু হয়েছে রেল প্রতিমন্ত্রী সুরেশ অঙ্গাদির। চলতি মাসের গোড়ার দিকে সংক্রমণ ধরা পড়লেও ৬৫ বছরের রেল প্রতিমন্ত্রী জানিয়েছিলেন, তাঁর কোনও উপসর্গ নেই। তবে পরের দিকে অবস্থা খারাপ হওয়ায় হাসপাতালে ভর্তি করতে হয় তাঁকে। ঘটনাচক্রে, এ দিনই দেশের সর্বাধিক করোনা-বিধ্বস্ত সাত রাজ্যের সঙ্গে ভার্চুয়াল বৈঠক করেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে তাঁর নিদান, ‘টেস্টিং, ট্রেসিং ও ট্রিটমেন্টের’ উপর আরও জোর দিতে হবে প্রশাসনকে। অক্সিজেনের জোগান যাতে ঠিক থাকে, নজর রাখতে হবে সে দিকেও।

‘ট্রিপল টি’-র উপর ভরসা করেই যে দেশের সামগ্রিক করোনা-ছবিটা বদলানো যাচ্ছে, সে কথা প্রায়ই বলে স্বাস্থ্যমন্ত্রক। এ দিন লোকসভায় স্বাস্থ্য প্রতিমন্ত্রী অশ্বিনী চৌবে আবার জানান, ‘হু’ নির্ধারিত হারের থেকে ছ’গুণ বেশি করোনা-পরীক্ষা করছে ভারত। করোনা-জনিত অসুস্থতা বাড়ায় দিল্লির উপমুখ্যমন্ত্রী মণীশ সিসোদিয়াকে হাসপাতালে ভর্তি করতে হয় বুধবার।

প্রধানমন্ত্রী অবশ্য বলেন, ‘এ ধরনের পরিস্থিতিতেই গুজবের রমরমা বাড়তে পারে।’ তাই ‘ট্রিপল টি’-র ব্যবস্থা করার পাশাপাশি গুজব রুখে পরীক্ষার হার বাড়াতেও রাজ্য-প্রশাসনগুলিকে বার্তা দেওয়ার পরামর্শ দেন তিনি।