ঘরে বসে সরকারের সমালোচনা করবেন না: বিএনপিকে তথ্যমন্ত্রী

শনিবার, আগস্ট ৮, ২০২০

ঢাকা : আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ও তথ্যমন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ বলেছেন, ‘তারা (বিএনপি) ঘর থেকে বের হয় না। ঘরে বসে জুম মিটিংয়ে টেলিভিশনে উঁকি দেয়। আর যারা ঘরের মধ্যে বসে বসে উঁকি দিয়ে সরকারের সমালোচনা করেন তাদেরকে বলবো, ঘরে বসে উঁকি দিয়ে সরকারের সমালোচনা করবেন না। জনগণের পাশে দাঁড়ান।’

শনিবার (৮ আগস্ট) দুপুরে বঙ্গবন্ধু ২৩ এভিনিউস্থ আওয়ামী লীগের দলীয় প্রধান কার্যালয়ে বঙ্গমাতা শেখ ফজিলাতুন্নেছা মুজিবের ৯০তম জন্মবার্ষিকী উপলক্ষে কৃষক লীগ আয়োজিত আলোচনা সভা ও দোয়া মাহফিলে তিনি এসব কথা বলেন।

বিএনপিকে কৃষক লীগ থেকে শিখার আহবান জানিয়ে তথ্যমন্ত্রী বলেন, ‘আপনারা কৃষক লীগ থেকে শিখুন। ধান কাটার সময় কৃষক লীগ ধান কেটেছে। বিএনপিকে দেখা যায়নি। শুধু কেটেছে তা নয়, মাথায় করে সেই ধান বাড়ি বাড়ি দিয়ে এসেছে। এই কাজটি তো বিএনপি করে নাই।’

বিএনপির প্রতি আহ্বান জানিয়ে তিনি বলেন, ‘আসুন একসাথে দেশটাকে গড়ে তুলি। আমরা আপনাদেরও আহ্বান জানাই, আসুন একসাথে জনগণের পাশে দাঁড়াই।’

হাছান মাহমুদ বলেন, ‘আজকে প্রধানমন্ত্রী একটি দিনও ঘরে বসে নাই। তিনি সরকারের বিভিন্ন কার্যক্রম পরিচালনা করছেন। দলের কার্যক্রম পরিচালনা করছেন। তার সঠিক নেতৃত্বে কারণে সরকার আল্লাহর রহমতে করোনা ভাইরাসকে নিয়ন্ত্রণে আনতে সক্ষম হয়েছে। আমরা সঠিক ভাবে স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলি তাহলে ভবিষ্যতে পুরোপুরি ভাবে নিয়ন্ত্রণ করতে পারবো।’

তিনি বলেন, ‘করোনা পরিস্থিতি যখন শুরু হলো তখন বহু বিশেষজ্ঞ, বহু মত দিয়েছেন। বাংলাদেশে নানা ধরনের বিশেষজ্ঞ আছে। কিছু সত্যিকার বিশেষজ্ঞ, কিছু বিশেষ কারণে অজ্ঞ বিশেষজ্ঞ, আবার কিছু সব বিষয়ে বিশেষজ্ঞ। এই বিশেষজ্ঞরা শুরুতে বলেছিলেন, বাংলাদেশের লক্ষ লক্ষ মানুষ অনাহারে মৃত্যুবরণ করবে। তাদের আকাঙ্ক্ষাকে ভুল প্রমাণিত করে, শেখ হাসিনার সঠিক নেতৃত্বে কারণে কেউ অনাহারে মৃত্যুবরণ করেনি।’

মন্ত্রী বলেন, ‘যেসমস্ত বিশেষজ্ঞ রাত ১২টার পরে টেলিভিশনের পর্দা ফাটিয়ে দেন, আর যে সমস্ত সুশীল নেতৃবৃন্দ শুধু পরামর্শ দেন আর ভুল ধরেন আমি তাদের নাম দিয়েছি ‘ভুল ধরার পার্টি’। তাদের কাজ হচ্ছে শুধু ভুল ধরা। এখন তাদের খুজে পাওয়া যাচ্ছে না। এক মুঠো চাল নিয়েও কারো কাছে যায়নি তারা।’

বক্তব্যের শুরুতে ১৫ আগস্ট নিহত সকলের প্রতি গভীর শ্রদ্ধা জানান তথ্যমন্ত্রী। তিনি বলেন, ‘জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান সংসার পেতে ছিলেন কিন্তু সংসার করেননি। তিনি সংসার হিসেবে বেছে নিয়েছিলেন এই পুরো জাতিকে। বাঙালি জাতি ছিল তার সংসার। আর সেই সংসারকে ধরে রেখেছিলেন বঙ্গমাতা শেখ ফজিলাতুন্নেছা। শুধু সংসার ধরে রেখেছিলেন তা নয়, বঙ্গমাতা শেখ ফজিল্লাতুন্নেছা বঙ্গবন্ধু যখন জেলে থাকতেন তখন দলটাকে ধরে রেখেছেন। বঙ্গবন্ধুর জীবনে গুরুত্বপূর্ণ মুহুর্তে গুরুত্বপূর্ণ পরামর্শ এসেছে বঙ্গমাতা শেখ ফজিল্লাতুন্নেসার কাছ থেকে।’

কৃষক লীগের সভাপতি কৃষিবিদ সমীর চন্দের সভাপতিত্বে আলোচনা সভায় বিশেষ অতিথি হিসেবে আরো বক্তব্য রাখেন আওয়ামী লীগের ত্রাণ ও সমাজ কল্যাণ বিষয়ক সম্পাদক সুজিত রায় নন্দী। আলোচনা সভায়টি পরিচালনা করেন কৃষক লীগের সাধারণ সম্পাদক উম্মে কুলছুম স্মৃতি। আলোচনা সভা শেষে এক দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত হয়েছে।