লাদাখে পরমাণু মিসাইল মোতায়েন চীনের, আতঙ্কে সমস্ত ভারত

শুক্রবার, আগস্ট ৭, ২০২০

ভারত ডেস্ক: বিগত কয়েক মাস ধরেই উত্তপ্ত ভারত-চীন কূটনৈতিক সম্পর্ক। সীমান্ত পরিস্থিতি সামাল দিতে একাধিক বৈঠকের পরও স্বাভাবিক হয়নি পরিস্থিতি। এহেন অবস্থায় মাঝেই এবার প্রকৃত নিয়ন্ত্রণ রেখার নিকটবর্তী অঞ্চলে পরমাণু অস্ত্র বহনকারী মিসাইল মোতায়েন করল চীন।

সম্প্রতি এই তথ্য জানা গিয়েছে এক স্যাটেলাইট চীত্র প্রকাশ্যে আসার পর। জানা গিয়েছে চীনের এই মিসাইলের নাম DF-২৬/২১। যা লাদাখ সীমান্তবর্তী চীনের শিনজিয়াং প্রান্তের কোরলা আর্মি বেশে মোতায়েন করা হয়েছে।

মহাকাশ থেকে তোলা এই স্যাটেলাইট চীত্রগুলিতে এটি স্পষ্ট যে চীন ভারতের সীমান্ত অতিক্রম করে বিশাল পরিমাণে তার পারমাণবিক শক্তি বাড়িয়েছে। DF-২৬ / ২১ ক্ষেপণাস্ত্রের পরিসীমা ৪ থেকে ৫ হাজার কিলোমিটার। চীন যদি ভারতের উপর এটি চালায় তবে তার লক্ষ্য থেকে বাঁচতে পারবে না বেশিরভাগ ভারতীয় শহরই।

এদিন টুইটারে এই ছবি পোস্ট করেছে ভারতের এক সংবাদ সংস্থার ইন্টেলিজেন্স সোর্স। এখানে দাবি করা হয়েছে কোরলা বেসে প্রথম মিসাইল মোতায়েন করা হয়েছিল ২০১৯ সালের এপ্রিল মাসে। দ্বিতীয় বিষয়টি মোতায়েন করা হয় ওই বছরের আগস্টে। এবং নয়া মিসাইল মোতায়েন করা হয়েছে চলতি বছরের জুন মাসে।

জানা গেছে চীনের এই মিসাইল গোটা বিশ্বে বেশ পরিচীত একটি নাম। সাধারণ অস্ত্র বহনের পাশাপাশি পারমাণবিক অস্ত্র বহনে এই সক্ষম মিসাইল। পাশাপাশি এটি বাইরে থেকে দেখে কোনওভাবেই বোঝা সম্ভব নয় আদৌ এর ভিতরে কি ধরনের অস্ত্র রয়েছে।

এই ক্ষেপণাস্ত্রটি ‘গুয়াম কিলার’ নামেও পরিচীত। গুয়াম জাপানের নিকটবর্তী একটি মার্কিন নৌঘাঁটি রয়েছে। চীন ২০১৫ সালে এই ক্ষেপণাস্ত্রটির পরীক্ষা করেছিল। ভারতের কাছে এর সমকক্ষ ক্ষেপণাস্ত্র অগ্নি ৪ এবং অগ্নি ৫ ক্ষেপণাস্ত্র। এর আগে এই টুইটার ব্যবহারকারীর তরফেই প্রকাশে আনা হয়েছিল চীন কাশগার এয়ারফোর্স স্টেশনে কী ধরণের যুদ্ধবিমান মোতায়েন করেছে।