ট্রলারে বিদ্যুতের তারে মৃত্যু ২, আহত ৩

বৃহস্পতিবার, আগস্ট ৬, ২০২০

কিশোরগঞ্জ: কিশোরগঞ্জের নিকলীর হাওরে নৌকাভ্রমণে গিয়ে বিদ্যুতের তারে জড়িয়ে দুই যুবকের মর্মান্তিক মৃত্যু হয়েছে। এ সময় আহত হয়েছে আরও তিনজন। মঙ্গলবার (৪ আগস্ট) সন্ধ্যার দিকে ভেঙ্গুরা নদীতে সাতুটা ও বর্মাপাড়া গ্রামের মাঝামাঝি জায়গায় এ দুর্ঘটনা ঘটে।
নদীর ওপর দিয়ে যাওয়া বিদ্যুতের ঝুলন্ত তার ট্রলার লেগে গেলে এ হতাহতের ঘটনা ঘটে।

নিহতরা হলেন, নিকলী উপজেলার গুরুই ইউনিয়নের পূর্বপাড়া গ্রামের গোলাপ মিয়ার ছেলে অন্তর (২০) ও আশিদ মিয়ার ছেলে মনির (১৮)।

গুরুতর আহতরা হলো, একই গ্রামের বাচ্চু মিয়ার ছেলে বোরহান (১৫), জহিরুল ইসলামের ছেলে শফিকুল ইসলাম ও শাহ আলামের ছেলে ঝুটন (১৭)।

আহতদের মধ্যে দুজনকে ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। আরেকজনকে জহুরুল ইসলাম মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

এলাকাবাসী জানান, উপজেলার গুরুই ইউনিয়নের পূর্বপাড়া গ্রামের একদল যুবক মঙ্গলবার (৪ আগস্ট) ট্রলারযোগে নৌ-ভ্রমণে যায়। ভ্রমণ শেষে বিকেল সাড়ে পাঁচটার দিকে তারা আবার বাড়ির দিকে রওনা করে।

এ সময় ট্রলারে অন্তত ২০-২৫ জন যাত্রী ছিল। ভেঙ্গুরা নদীর সাতুটা ও বর্মাপাড়া গ্রামের মাঝামাঝি এলাকায় পৌঁছা মাত্র পিডিবির হাই ভোল্টেজের ঝুলে থাকা বিদ্যুতের তারে লেগে যায় ট্রলারটি।

তখন ট্রলারের ছাদে থাকা বুরহান (১৯), ঝুটন (১৭), শফিকুল (২০) ও অন্তর (২০) আহত হয়। পানিতে পড়ে যায় মনির। পরে স্থানীয় লোকজন পানি থেকে মনিরকে উদ্ধার করে।

গুরুতর আহত অন্তর ও পানিতে থেকে উদ্ধার করা মনিরকে বাজিতপুরের জহুরুল ইসলাম মেডিক্যাল কলেজ হাসাপাতালে নিয়ে গেলে বর্তব্যরত চিকিৎসক তাঁদের মৃত ঘোষণা করে।

এলাকাবাসীর অভিযোগ, দীর্ঘ দিন ধরে বিদ্যুতের তার ঝুলে থাকলেও পিডিবি কোন ব্যবস্থা নিচ্ছে না। নদীর পানি বেড়ে যাওয়ায় নদীর পানি ও বিদ্যুতের তারের মাঝে মাত্র ১০ ফুট ফাঁক ছিল।

ঝুঁকি নিয়ে ছোটখাট নৌকা চললেও মাঝারি নৌযান চলাচল করতে পারত না। সন্ধ্যা হয়ে যাওয়ায় ঝুলে বিদ্যুতের তার দেখতে পায়নি মাঝি। এ কারণেই দুর্ঘটনা ঘটে।

নিকলী থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) সামছুল আলম সিদ্দিকী ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে জানান, পুলিশ ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছে। দুই যুবকের লাশের সুরতহাল শেষে স্বজনদের কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে।

এ ব্যাপারে বুধবার (৫ আগস্ট) থানায় একটি অপমৃত্যু মামলা হয়েছে।