কক্সবাজারে বিজিবির সঙ্গে ‘বন্দুকযুদ্ধে’ ৩ রোহিঙ্গা নিহত

বৃহস্পতিবার, জুলাই ৯, ২০২০

কক্সবাজার : কক্সবাজারের উখিয়ায় বর্ডার গার্ড বাংলাদেশ (বিজিবি) সদস্যদের সঙ্গে ‘বন্দুকযুদ্ধে’ অন্তত ৩ জন রোহিঙ্গা যুবক নিহত হয়েছেন।

আজ বৃহস্পতিবার ভোর ৪টার দিকে কক্সবাজারের উখিয়া উপজেলার রাজাপালং ইউনিয়নের তুলাতলী জলিলের ঘোনা ব্রিজের পাশে এ ঘটনা ঘটে।

বিজিবির দাবি, নিহতরা ইয়াবা কারবারের সঙ্গে জড়িত। ঘটনাস্থল থেকে তিন লাখ পিস ইয়াবা, দুইটি দেশীয় তৈরি পাইপগান ও ৫ রাউন্ড কার্তুজ উদ্ধার করা হয়েছে।

বন্দুকযুদ্ধের ঘটনায় বিজিবির দুই সদস্য আহত হয়েছেন। তাদের উখিয়া হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

নিহত রোহিঙ্গারা হলেন- নাইক্ষ্যংছড়ি উপজেলার তুমব্রু কোনারপাড়া জিরোপয়েন্টে অবস্থানরত রোহিঙ্গা ক্যাম্পের মৃত জুলুর মুল্লুকের ছেলে নুর আলম (৪৫), উখিয়ার বালুখালী রোহিঙ্গা ক্যাম্প-১এর জি/২৯ ব্লকের মো. গোরা মিয়ার ছেলে মো. হামিদ (২৫) ও উখিয়ার কুতুপালং রোহিঙ্গা ক্যাম্পের-২এর ডি-৪ ব্লকের মো. সৈয়দ হোসেনের ছেলে নাজির হোসেন (২৫)।

কক্সবাজার ৩৪ বিজিবি’র অধিনায়ক লে.কর্নেল আলী হায়দার আজাদ আহমেদ সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, সীমান্তের তুমব্রু বিওপির একটি টহলদল দেয়ার সময় দেখতে পাই যে মিয়ানমার থেকে পাহাড়ি পথে ১০/১২ জনের কিছু লোক বাংলাদেশ সীমান্তে প্রবেশ করে। এ সময় বিওপির সদস্যরা তাদের চ্যালেঞ্জ করলে তাদের হাতে থাকা অস্ত্র দিয়ে বিজিবি সদস্যদের উপর গুলি করে। আত্মরক্ষার্থে বিজিবি’র সদস্যরাও পাল্টা গুলি করে। একপর্যায়ে হামলাকারিরা পাহাড়ের জঙ্গলে পালিয়ে যায়। পরে ঘটনাস্থল তল্লাশি করে তিন লাখ পিস ইয়াবা, দুইটি দেশীয় তৈরি পাইপগান ও ৫ রাউন্ড গুলি উদ্ধার করে।

একই সঙ্গে তিনজনকে গুলিবিদ্ধ অবস্থায় উদ্ধার করে উখিয়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাদের মৃত ঘোষণা করেন।

এর আগে আহত অবস্থায় তাদের প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে তাদের পরিচয় নিশ্চিত করে বিজিবি। ময়নাতদন্তের জন্য মৃতদেহগুলো কক্সবাজার সদর হাসপাতাল মর্গে প্রেরণ করা হয়েছে। এ ব্যাপারে সংশ্লিষ্ট আইনে উখিয়া থানায় মামলার প্রস্তুতি চলছে।

কক্সবাজার : কক্সবাজারের উখিয়ায় বর্ডার গার্ড বাংলাদেশ (বিজিবি) সদস্যদের সঙ্গে ‘বন্দুকযুদ্ধে’ অন্তত ৩ জন রোহিঙ্গা যুবক নিহত হয়েছেন।

আজ বৃহস্পতিবার ভোর ৪টার দিকে কক্সবাজারের উখিয়া উপজেলার রাজাপালং ইউনিয়নের তুলাতলী জলিলের ঘোনা ব্রিজের পাশে এ ঘটনা ঘটে।

বিজিবির দাবি, নিহতরা ইয়াবা কারবারের সঙ্গে জড়িত। ঘটনাস্থল থেকে তিন লাখ পিস ইয়াবা, দুইটি দেশীয় তৈরি পাইপগান ও ৫ রাউন্ড কার্তুজ উদ্ধার করা হয়েছে।

বন্দুকযুদ্ধের ঘটনায় বিজিবির দুই সদস্য আহত হয়েছেন। তাদের উখিয়া হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

নিহত রোহিঙ্গারা হলেন- নাইক্ষ্যংছড়ি উপজেলার তুমব্রু কোনারপাড়া জিরোপয়েন্টে অবস্থানরত রোহিঙ্গা ক্যাম্পের মৃত জুলুর মুল্লুকের ছেলে নুর আলম (৪৫), উখিয়ার বালুখালী রোহিঙ্গা ক্যাম্প-১এর জি/২৯ ব্লকের মো. গোরা মিয়ার ছেলে মো. হামিদ (২৫) ও উখিয়ার কুতুপালং রোহিঙ্গা ক্যাম্পের-২এর ডি-৪ ব্লকের মো. সৈয়দ হোসেনের ছেলে নাজির হোসেন (২৫)।

কক্সবাজার ৩৪ বিজিবি’র অধিনায়ক লে.কর্নেল আলী হায়দার আজাদ আহমেদ সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, সীমান্তের তুমব্রু বিওপির একটি টহলদল দেয়ার সময় দেখতে পাই যে মিয়ানমার থেকে পাহাড়ি পথে ১০/১২ জনের কিছু লোক বাংলাদেশ সীমান্তে প্রবেশ করে। এ সময় বিওপির সদস্যরা তাদের চ্যালেঞ্জ করলে তাদের হাতে থাকা অস্ত্র দিয়ে বিজিবি সদস্যদের উপর গুলি করে। আত্মরক্ষার্থে বিজিবি’র সদস্যরাও পাল্টা গুলি করে। একপর্যায়ে হামলাকারিরা পাহাড়ের জঙ্গলে পালিয়ে যায়। পরে ঘটনাস্থল তল্লাশি করে তিন লাখ পিস ইয়াবা, দুইটি দেশীয় তৈরি পাইপগান ও ৫ রাউন্ড গুলি উদ্ধার করে।

একই সঙ্গে তিনজনকে গুলিবিদ্ধ অবস্থায় উদ্ধার করে উখিয়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাদের মৃত ঘোষণা করেন।

এর আগে আহত অবস্থায় তাদের প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে তাদের পরিচয় নিশ্চিত করে বিজিবি। ময়নাতদন্তের জন্য মৃতদেহগুলো কক্সবাজার সদর হাসপাতাল মর্গে প্রেরণ করা হয়েছে। এ ব্যাপারে সংশ্লিষ্ট আইনে উখিয়া থানায় মামলার প্রস্তুতি চলছে।