হত্যার হুমকিদাতারা এয়ার অ্যাম্বুলেন্সে বিদেশ যায় কীভাবে: প্রশ্ন রিজভীর

বুধবার, জুন ৩, ২০২০

ঢাকা: পিস্তল দেখিয়ে হত্যার হুমকিদাতারা এয়ার অ্যাম্বুলেন্স করে বিদেশে যাওয়ায় প্রশ্ন তুলেছেন বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী। তিনি বলেন, তাদের নামে মামলা দেওয়ার পর অপরাধীদের নানাভাবে রেহাই দেওয়া হচ্ছে।

আজ বুধবার নয়াপল্টনে বিএনপির প্রতিষ্ঠাতা জিয়াউর রহমানের ৩৯তম শাহাদাত বার্ষিকী উপলক্ষে দোয়া মাহফিল ও খাদ্য বিতরণের সময় এসব কথা বলেন রিজভী। জাতীয়তাবাদী সামাজিক সংস্থার (জাসাস) উদ্যোগে এ খাদ্য বিতরণের আয়োজন করা হয়।

তিনি বলেন, যারা পিস্তল দেখিয়ে হত্যার হুমকি দিচ্ছে, অত্যাচার করছে-তারা বাংলাদেশ থেকে এয়ার অ্যাম্বুলেন্স করে পালিয়ে গেছে। আর একটি ছেলে সরকারের সমালোচনা করে পোস্ট দিলে তাকে রাতের অন্ধকারে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী তুলে নিয়ে আসে। আর এয়ার অ্যাম্বুলেন্স ভাড়া করে আপনার শিকদার গ্রুপের হত্যার হুমকি দেওয়া দুই ছেলে কী করে চলে গেল? মেডিকেল ভিসা দিলো কী করে?’

রিজভী বলেন, তাদের নামে মামলা হয়েছে। পুলিশ সেখানে কী করলো। পুলিশ কিছুই করেনি। তার মানে শাসকগোষ্ঠীর সাথে সম্পর্কিত অপরাধীদেরকে নানাভাবে রেহাই দেওয়া হচ্ছে। তাদের সুযোগ করে দিচ্ছেন। কারণ দুই ভাই চেয়েছে ব্যাংকের টাকা লুট করতে। এমডিরা রাজি হয়নি, তাই তাদের হত্যার হুমকি দেওয়া হয়েছে। এই পরিস্থিতি চলছে দেশে।

ব্যর্থ সরকার মানুষকে বাঁচানোর জন্য কোনো কাজ করেনি বলেও মন্তব্য করেন বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব। তিনি বলেন, শুধু নিজেদের নেতাকর্মী ও শাসকগোষ্ঠীর পকেট ভারী করা, ফুলিয়ে ফাঁপিয়ে বড় করাই এই সরকারের মূল লক্ষ্য।

সরকার মানুষকে বাঁচানোর জন্য কোনো কাজ করেনি উল্লেখ করে রিজভী বলেন, সরকারি হাসপাতালে ২০-৩০ শতাংশের বেশি রোগীদের জায়গা দিতে পারছে না। ঢাকার বাইরে তো চিকিৎসা পাচ্ছে না।

দোয়া মাহফিল ও খাদ্য বিতরণ অনুষ্ঠানে জাসাসের সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব জাকির হোসেন রোকনের পরিচালনায় আরও উপস্থিত ছিলেন- জাসাসের সহসভাপতি আহসান উল্লাহ চৌধুরী, শাহরিয়ার ইসলাম শায়লা, আরিফ, জাহাঙ্গীর আলম রিপন, ফেরদৌস ফকির, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক রফিকুল ইসলাম স্বপন, সাংগঠনিক সম্পাদক চৌধুরী মাজহার আলী শিবা শানু, জাসাস নেতা খালেদ এনাম মুন্না, এনামুল হক জুয়েল, হারুন-অর-রশিদ, নবাব মাঝি, শরিফুল ইসলাম, মালেক রতন, ইব্রাহিম খলিলসহ জাসাসের নেতৃবৃন্দ।