পাকিস্তানের ১০ সুন্দরী নায়িকা

শুক্রবার, মে ২৯, ২০২০

বলিউড অভিনেত্রীদের মতো উপমহাদেশ ও মধ্যপ্রাচ্য জুড়ে এতটা সাড়া জাগাতে না পারলেও পিছিয়ে নেই পাকিস্তানি নায়িকারাও। রক্ষণশীল দেশ হিসাবে পরিচিত পাকিস্তানি নায়িকাদের প্রধান সম্পদ তাদের সরল ও নিষ্পাপ সৌন্দর্য আর অভিনয়। যে কারণে এদের অনেকেই বলিউডে ডাক পেয়েছেন এবং অনেকে সেখানে চুটিয়ে অভিনয়ও করেছেন। এ সময়ের আলোচিত ১০ পাক সুন্দরী অভিনেত্রীকে নিয়ে আমাদের এই আয়োজন।

মেহউইশ হায়াত

এই সুন্দরী অভিনেত্রীর জন্ম ১৯৮৩ সালের জানুয়ারিতে। তিনি ২০১০ সালে টিভি সিরিয়াল ‘মন জলি’দিয়ে কেরিয়ার শুরু করেন। পরে ‘ইনশাআল্লা’ চলচ্চিত্র দিয়ে তার সিনেমা জীবন শুরু হয় এবং সৌন্দর্য আর অভিনয়ের জন্য দ্রুত জনপ্রিয়তা অর্জন করেন। তার ‘না মালুম আফ্রাদ’ এবং ‘জাওয়ানি ফির না আনি’ ছবি দুটিতে অভিনয়ের জন্য ব্যাপকভাবে প্রশংসিত হয়েছেন। চলতি বছরের গোড়ার দিকে পাকিস্তানের রাষ্ট্রপতির কাছ থেকে সম্মানজনক ‘তমঘা ই ইমতিয়াজ’পুরস্কার অর্জন করেছেন।

সজল আলী

সুন্দরী সজল আলীর জন্ম ১৯৯৪ সালের ১৭ জানুয়ারি, লাহোরে। মাহিরার মত তিনিও টিভি সিরিয়াল দিয়ে কেরিয়ারের সূচনা করেন। ‘খুদা দেখ রাহা হে’ সিরিয়ালে তার অন্যবদ্য পারফমেন্স নির্মাণাদের নজরে পড়ে এবং তিনি বড় পর্দায় অভিনয় শুরু করেন। ২০১৬ সালে মুক্তি পায় তার প্রথম ছবি ‘জিন্দেগি কিতনি হাসিন হ্যায়’। তিনি বলিউডের প্রয়াত অভিনেত্রী শ্রীদেবীর সঙ্গেও অভিনয় করেছেন। ‘মম’ ছবিতে বলিউডের প্রয়াত নিায়িকা শ্রীদেবীর মেয়ে হিসাবে তার অভিনয় ব্যাপক প্রশংসা কুড়িয়েছে।

সাবা কামার

সাবার অভিনয় কেরিয়ার শুরু ২০০৫ সালে টিভি সিরিয়াল দিয়ে। পরে তিনি পাকিস্তানের বাণিজ্যিক ছবিতে প্রধান নায়িকা হিসাবে অভিনয় শুরু করেন এবং বিভিন্ন সময়ে একাধিক পুরস্কারও পেয়েছেন। তিনি বেলিউডের ব্যবসা সফল ‘ওয়ান্স আপুনে টাইম ইন মুম্বাই’ছবিতে অভিনয় করেছেন। এই ছবির সুবাদে তিনি বলিউডের বেশি কিছু এওয়ার্ড অনুষ্ঠানে মনোনীত হয়েছিলেন। অনেক ছবিতেও অফার পেয়েছিলেন। কিন্তু সেখানে আর অভিনয় করা হয়নি।

সোনিয়া হুসেন

সনিয়া হুসেন হলেন একজন অভিনেত্রী, টিভি হোস্ট এবং মডেল। তার নিষ্পাপ সুন্দর চেহারা এবং বহুমুখী অভিনয়ের দক্ষতা তাকে পাকিস্তানের প্রথম সারির নায়িকাদের কাতারে নিয়ে এসেছে। তিনি বেশ কিছু জনপ্রিয়টিভি সিরিয়াল ছাড়াও সিনেমাতেও কাজ করছেন। তিনি ওয়াসিফ মুহাম্মদ নামে এক মডেলকে বিয়ে করেছেন। সামেন তিনি যে আরো অনেকদূর যাবেন তা স্পষ্ট। কেননা তার বয়স মাত্র ২৫ বছর।

মাহিরা খান

অভিনয় ও শারীরিক সৌন্দর্য এই দুইয়ের সমন্বয়ে পাকিস্তানের যে নায়িকা উপমহাদেশ জুড়ে আলোচিত তিনি মাহিরা খান। সর্বোচ্চ পারিশ্রমিক পাওয়া এই অভিনেত্রীর কেরিয়ার শুরু টিভিতে উপস্থাপনা ও সিরিয়াল দিয়ে, ২০০৬ সালে। কিন্তু প্রথম ছবি ‘বোল’ মুক্তি পাওয়ার পর তাকে আর পিছনে ফিরে তাকাতে হয়নি। ২০১৬ সালে‘হো মান জাহান’মুভির জন্য পেয়েছেন সেরা অভিনেত্রীর পুরস্কার। বলিউড বাদশাহ শাহরুখ খানের বিরুদ্ধে ‘রইস’ছবিতে অভিনয় করে ঝড় তুলেছেন গোটা উপমহাদেশ জুড়ে। ২০১৭ সালে মুক্তি পাওয়া এই ছবিতে মাহিরার অভিনয় ও সৌন্দর্য সমানভাবে আলোচিত হয়েছে।

নীলম মুনির

১৯৮৫ সালের ২০ শে মার্চ জন্মগ্রহণ করা এই নায়িকা ‘থোড়া সা আসমান’সিরিয়াল দিয়ে কেরিয়ার শুরু করেন। আকর্ষণীয় চেহারা ও অভিনয় দক্ষতার জন্য দ্রুত তিনি জনপ্রিয়তা পান। ২০১৭ সালে তার প্রথমছবি ‘চৌপান চৌপাই’মুক্তি পায়। এ বছরই তার ‘রং নাম্বার টু’ছবিটি মুক্তি পাওয়ার কথা রয়েছে। নীলম বেশ কয়েকবার পাকিস্তানের সম্মানজনক ‘লাক্স স্টাইল’এবং ‘হাম টিভি’পুরস্কারের জন্য মনোনীত হয়েছেন।

আয়শা খান

আয়েশা খান বেশ কিছুদিন ধরেই শোবিজে রয়েছেন। তিনি একাধারে নাটক এবং সিনেমাতেও কাজ করে যাচ্ছেন। তার আকর্ষণীয় বৈশিষ্ট্যগুলি তাকে মনোযোগের কেন্দ্রবিন্দু করে তোলে এবং তিনি অন্য সকলকে ছাড়িয়ে তিনি উঠে এসেছেন লাইম লাইটে। ৩৪ বছরের আয়শা মডেল হিসাবেও বেশ জনপ্রিয়।

আজিয়া খান

ছাব্বিশ বছর বয়সী এই অভিনেত্রী ইতিমধ্যেই বেশ কয়েকটি ক্লাসিক্যাল নাটক দিয়ে নিজেকে একজন সফল অভিনেত্রী হিসাবে প্রমাণ করেছেন। তিনি দর্শকদের কাছে নিজের স্নিগ্ধ সৌন্দর্য আর শালীন পোশাকের জন্য সুপরিচিত। তিনি সুরকার হিসাবেও বেশ পরিচিত। ব্যক্তি জীবনে তিনি বিবাহিত এবং তার একটি মেয়ে আছে।

সাইরা ইউসুফ

ভিজে হিসাবে কেরিয়ার শুরু করা এই পাক সুন্দরী বর্তমানে মডেল ও অভিনেত্রী হিসাবে নাম করেছেন। তিনি সিনেমার চেয়ে টিভি নাটকেই বেশি স্বচ্ছন্দ্য। কাজ করেছেন একাধিক দর্শকপ্রিয় টেলিফিল্মে। তবে হাম টিভিতে তার অভিনীত টিভি সিরিয়াল ‘মেরা নাসিব’র জন্য তিনি বেশি প্রশংসা পেয়েছেন। এছাড়া সায়রা অভিনীত হিট মুভির নাম‘চালে’। ঊণত্রিশ বছর বয়সী এই নায়িকা তার সুন্দর মুখশ্রী আর মিষ্টি হাসির জন্য বিখ্যাত।

মায়া আলী

পাকিস্তানের সুন্দরী নায়িকা বললেই যার নামটি সবার প্রথমে আসে তিনি হলেন মায়া আলী। ভিজে হিসাবে কেরিয়ার করা এই অভিনেত্রী দ্রুত অভিনয় ও মডেলিংয়ে খ্যাতি পেয়েছেন। বিশেষ করে ‘উন জারা’ নাটকে অভিনেতা ওসমান খালিদ বাটের সাথে তার অনস্ক্রিন রসায়ন দারুণ সাড়া জাগিয়েছে। জনপ্রিয় ও সুন্দরী এই নায়িকার রয়েছে বিশাল ফ্যান আর ফলোয়ার। বর্তমানে তিনি ব্যস্ত রয়েছেন নিজের প্রথম চলচ্চিত্র নিয়ে যেখানে তার নায়ক চরিত্রে আছে পাকিস্তানের আরেক জনপ্রিয় নায়কআলী জাফর। তবে সাহসী পোশাক আসাকের কারণে বেশ কয়েকবার সমালোচনার মুখে পড়েছিলেন স্টাইলিশ এই নায়িকা।

মায়া আলী

মাহমুদা আকতার