যেমন কাটালো কোন তারকার লকডাউন ঈদ

বুধবার, মে ২৭, ২০২০

বিনোদন ডেস্ক: ঈদ ঘিরে প্রতিবছর দেশের তারকা অঙ্গনে ব্যস্ততা বাড়ে। ছোটপর্দায় আসে ঈদের নতুন নতুন অনেক নাটক, টেলিফিল্ম। রুপালি পর্দায় মুক্তি পায় ঈদের সিনেমা। কিন্তু এবার পরিবেশটা পুরোই ভিন্ন। ঈদকেন্দ্রিক নতুন নাটক-সিনেমার মহড়াও অনেক কম। অভিনেতা-অভিনেত্রীরাও ঘরবন্দি সময় পার করছেন। করোনার আবহে এই ঈদ কেমন কেটেছে তারকাদের, চলুন দেখে নিই একনজরে:

করোনা ভাইরাসে চারপাশের পরিবেশ যখন থমথমে তখন ঈদ নিয়ে বাড়তি কোনও পরিকল্পনা ছিল না জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কারপ্রাপ্ত চিত্রনায়িকা সাদিকা পারভীন পপির। তবে এবার দীর্ঘ ২৫ বছর পর গ্রামের বাড়ি খুলনায় ঈদ করেছেন তিনি। এটিই তার জন্য এবারের ঈদ স্পেশাল। মূলত করোনার বিস্তার শুরু হওয়ার প্রথম দিকে গ্রামের বাড়ি গিয়েছিলেন, এরপর আর ঢাকায় ফিরতে পারেননি তিনি।

এ বছরের ঈদ প্রসঙ্গে পপি বলেন- ‘দেখতে দেখতে ২৫ বছর হয়ে গেল, টের পেলাম না। ক্যারিয়ারের জন্য সেই যে ঢাকা গিয়েছি, এরপর গ্রামের বাড়িতে ঈদ করা হয়নি। এবার বাবা-মা, ভাই-বোন, চাচা-চাচি ও ফুফা-ফুফুদের সঙ্গে এবারের ঈদটা আমার জন্য অন্যরকম। এটাই আমার জন্য এবারের ঈদ স্পেশাল।’

একইসঙ্গে তিনি সমাজের সামর্থ্যবানদের নিজ নিজ এলাকার অসহায় মানুষের পাশে দাঁড়ানোর আহ্বান জানান।

ঈদুল ফিতরটা এবার পুরোপুরি অন্যরকম কাটলো ঢাকাই চলচ্চিত্রের গুণী অভিনেত্রী চিত্রনায়িকা পূর্ণিমার। তিনি বলেন- ‘ঈদের দিনটি স্বামী ও সন্তানের সঙ্গে কেটেছে। এবার বাইরে যাওয়ার পরিকল্পনা ছিল না, ঘরে থাকাই উত্তম। তাই ঘরোয়া আয়োজনের মধ্যে এবারের ঈদটা কাটছে। ঈদ উপভোগের সব পরিকল্পনা ঘরের ভেতরেই হচ্ছে।’

প্রতিবছর ঈদে নতুন জামা কেনেন অভিনেত্রী বিদ্যা সিনহা মিম। কিন্তু এবার তা কেনা হয়। তবে বেশ কয়েকটি উপহার পেয়েছেন। সেখান থেকেই ঈদের দিন একটি পরেছেন। মিম বলেন, ‘ঈদে এর আগে কখনও রান্না করিনি। এবার সেটি করার পরিকল্পনা ছিল। ইউটিউবে রান্না শিখছি। ঈদের দিন দু-তিন পদের সেমাই রান্না করছি।’

অভিনেত্রী মেহজাবিনেরও ঈদে বিশেষ কোনও প্রস্তুতি ছিল না। আগে কেনা জামাই পরেছেন। তবে সময় দিয়েছেন রান্না ঘরে। তিনি বলেন, ‘শুটিংয়ের ব্যস্ততায় কোনও ঈদেই পছন্দের জিনিস রান্না করতে পারি না। এবার প্রচুর সময়। অনেক দিন ঘরে বসা। ইউটিউব থেকে কিছু রান্না শিখেছি। কয়েক দিন আগে আমার ইউটিউবের জন্য মুরগির রোস্টের একটি টিউটোরিয়াল বানিয়েছি। ঈদের দিন মুরগির রোস্ট করছি।’

এ বছর ঈদ ঘিরে সকাল সকাল মাকে রান্নায় সহায়তা করাই বড় পরিকল্পনা ছিল বলে জানিয়েছেন ছোটপর্দার আরেক জনপ্রিয় অভিনেত্রী মৌসুমী হামিদ। তিনি বলেন- ‘অন্যান্য ঈদে সকালটা বাড়িতে থাকলেও বিকালে বন্ধুদের সঙ্গে ঘুরতে বের হই। এবারের ঈদে সেসবের বালাইও নেই। আয়োজন যা হওয়ার ঘরেই হয়েছে। এছাড়া বন্ধুদের সঙ্গে ভিডিও কলে কথা হয়েছে। আড্ডা হয়েছে।’

করোনার প্রাদুর্ভাবে ছোটপর্দার অভিনেতা ফারহান আহমেদ জোভান দুই মাসের বেশি সময় ধরে ঘরবন্দি। এ অভিনেতা বলেন, ‘এবারের ঈদ নিয়ে একদমই পরিকল্পনা ছিল না। অন্যবার তো চাঁদরাত থেকেই একটা পার্টি মুডে থাকা হয়। এবার সেসব কিছু হয়নি।’

করোনার এই দুঃসময়ে ঈদ নিয়ে আহামরি কোনও প্ল্যান ছিল না উঠতি অভিনেত্রী সাফা কবিরের। তবে ঈদের দিন পছন্দের খাবার রান্না করেছেন তিনি। জামার্নি প্রবাসী বাবার সঙ্গে ভিডিও কলে কথা বলেছেন। একই বিল্ডিংয়ে সব কাজিনরা থাকার সুবাদে বাসাতেই আড্ডা দিয়েছেন। সাফা করির বলেন- ‘এবার না হয় ঈদ ঘরে বসেই করেছি। সমস্যা নেই। আগে পরিস্থিতি ঠিক হোক। হইচই করে ঈদ উদযাপন তো সামনেও করা যাবে।’

প্রতিবছর অভিনেতা ইফরান সাজ্জাদ ঈদের এক-দুদিন আগেই চট্টগ্রামে বাড়িতে ছুটে যান মায়ের কাছে। কিন্তু এবার সেসব হচ্ছে না। ইরফান সাজ্জাদ বলেন- ‘পরিস্থিতি এমন যে ঈদের দিনটিকেও আলাদাভাবে দেখার সুযোগ নেই। বাসাতেই দিন কেটেছে। ফোনে অনেককে ঈদের শুভেচ্ছা জানিয়েছি। এর বেশি কিছু নয়।’

কণ্ঠশিল্পী কনা কিছুদিন আগেই মা-বাবার সঙ্গে গ্রামের বাড়ি গাজীপুরের শ্রীপুরে চলে গেছেন। সেখানেই তিন ঈদ করেছেন। তবে ঈদ ঘিরে তার বাড়তি কোনও পরিকল্পনা ছিল না। এই দুঃসময়ে সুস্থ থাকাটাই তার কাছে পরম আনন্দের। কনা বলেন, ‘এবার আনন্দ করে ঈদ উদযাপনের ইচ্ছে ছিল না। নতুন জামাকাপড়ও কিনিনি। আগের কেনা কিন্তু পরা হয়নি, এমন একটা জামা ঈদের দিন পরেছি। রান্নাঘরে কিছুটা সময় দিয়েছি।’