বিশ্বজুড়ে করোনা থেকে সুস্থ হয়েছে ৬ লাখ

রবিবার, এপ্রিল ১৯, ২০২০

আন্তর্জাতিক ডেস্ক : চীনের উহান থেকে ছড়িয়ে পড়া করোনা ভাইরাসে বিপর্যস্ত বিশ্ব। বিশ্বজুড়ে এ পর্যন্ত সুস্থ হয়েছে ৬ লাখ ৭ জন। এই ভাইরাসে মোট আক্রান্তের সংখ্যা ২৩ লাখ ৩২ হাজার ৪৭১ জন। গত ২৪ ঘণ্টায় আক্রান্ত হয়েছে ৮১ হাজার ৯৩০ জন।

এছাড়া বিশ্বজুড়ে মোট মৃতের সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ১ লাখ ৬০ হাজার ৭৮৪ জন। শুধু গত ২৪ ঘণ্টায় ৬ হাজার ৫০৫ জনের মৃত্যু হয়েছে।

সবমিলিয়ে, বর্তমানে ১৫ লাখ ৭১ হাজার ৬৮১ জন শনাক্ত রোগী রয়েছে। তাদের মধ্যে ১৫ লাখ ১৬ হাজার ৪০০ জন চিকিৎসাধীন, যাদের অবস্থা স্থিতিশীল। আর ৫৫ হাজার ২৮০ জনের অবস্থা গুরুতর, যাদের অধিকাংশই আইসিউতে রয়েছে।

ভাইরাসটি চীন থেকে ছড়ালেও বর্তমানে সবচেয়ে খারাপ অবস্থা যুক্তরাষ্ট্রে। দেশটিতে মোট আক্রান্ত ৭ লাখ ৩৮ হাজার ৯১৩, মারা গেছে ৩৯ হাজার ১৫ জন। এখন পর্যন্ত করোনায় সর্বোচ্চ মৃত্যু এবং আক্রান্ত যুক্তরাষ্ট্রে।

এদিকে স্পেনে আক্রান্ত ১ লাখ ৯৪ হাজার ৪১৬, মারা গেছে ২০ হাজার ৬৩৯ জন। ইতালিতে আক্রান্ত ১ লাখ ৭৫ হাজার ৯২৫, মারা গেছে ২৩ হাজার ২২৭ জন। ফ্রান্সে আক্রান্ত ১ লাখ ৫১ হাজার ৭৯৩, মারা গেছে ১৯ হাজার ৩২৩ জন। জার্মানিতে আক্রান্ত ১ লাখ ৪৩ হাজার ৭২৪, মারা গেছে ৪ হাজার ৫৩৮ জন। যুক্তরাজ্যে আক্রান্ত ১ লাখ ১৪ হাজার ২১৭, মারা গেছে ১৫ হাজার ৪৬৪ জন। চীনে আক্রান্ত ৮২ হাজার ৭৩৫, মারা গেছে ৪ হাজার ৬৩২ জন। তুরস্কে আক্রান্ত ৮২ হাজার ৩২৯, মারা গেছে ১ হাজার ৮৯০ জন। ইরানে আক্রান্ত ৮০ হাজার ৮৬৮, মারা গেছে ৫ হাজার ৩১ জন। বেলজিয়ামে আক্রান্ত ৩৭ হাজার ১৮৩, মারা গেছে ৫ হাজার ৪৫৩ জন। ব্রাজিলে আক্রান্ত ৩৬ হাজার ৯২৫, মারা গেছে ২ হাজার ৩৭২ জন। কানাডাতে আক্রান্ত ৩৩ হাজার ৩৮৩, মারা গেছে ১ হাজার ৪৭০ জন। নেদারল্যান্ডসে আক্রান্ত ৩১ হাজার ৫৮৯, মারা গেছে ৩ হাজার ৬০১ জন। সুইজারল্যান্ডে আক্রান্ত ২৭ হাজার ৪০৪, মারা গেছে ১ হাজার ৩৬৮ জন। সুইডেনে আক্রান্ত ১৩ হাজার ৮২২, মারা গেছে ১ হাজার ৫১১ জন।

অন্যদিকে ভারতে মোট আক্রান্ত ১৬ হাজার ৩৬৫, মারা গেছে ৫২১ জন। পাকিস্তানে আক্রান্ত ৭ হাজার ৩৩৮, মারা গেছে ১৪৩ জন। বাংলাদেশে আক্রান্ত ২ হাজার ১৪৪, মারা গেছে ৮৪ জন।

এ রোগের কোনো উপসর্গ যেমন জ্বর, গলা ব্যথা, শুকনো কাশি, শ্বাসকষ্ট, শ্বাসকষ্টের সঙ্গে কাশি, এর কারণে স্বাদ ও গন্ধের অনুভূতিও কাজ না করতে পারে তাই এগুলো দেখা দিলে চিকিৎসকের পরামর্শ নিতে হবে। জনবহুল স্থানে চলাফেরার সময় মাস্ক ব্যবহার করতে হবে। বাড়িঘর পরিষ্কার রাখতে হবে। বাইরে থেকে ঘরে ফিরে এবং খাবার আগে সাবান দিয়ে হাত পরিষ্কার করতে হবে। খাবার ভালোভাবে সিদ্ধ করে খেতে হবে।