মৃত্যুপুরী যুক্তরাষ্ট্র, ২৪ ঘণ্টায় ১২৫৫ জনের মৃত্যু

মঙ্গলবার, এপ্রিল ৭, ২০২০

আন্তর্জাতিক ডেস্ক : করোনা ভাইরাসে বিপর্যস্ত যুক্তরাষ্ট্র। পরিস্থিতি সামাল দিতে হিমশিম খাচ্ছে দেশটি। দিনদিন অবস্থার অবনতি হচ্ছে। ক্রমাগত বাড়ছে আক্রান্ত ও মৃত্যুর সংখ্যা। গত ২৪ ঘণ্টায় মারা গেছে ১ হাজার ২৫৫ জন। এ নিয়ে দেশটিতে মোট মারা গেছে ১০ হাজার ৮৭১ জন। এর মধ্যে শুধু নিউইয়র্কে মারা গেছে ৪ হাজার ৭৫৮ জন।

আক্রান্তের সংখ্যায় যুক্তরাষ্ট্র ছাড়িয়ে গেছে সবাইকেই। সেখানে আক্রান্তের সংখ্যা ৩ লাখ ৬৭ হাজার ৪ জন। গত ২৪ ঘণ্টায় আক্রান্ত হয়েছে ৩০ হাজার ৩৩১ জন। এখন পর্যন্ত সুস্থ হয়েছে ১৯ হাজার ৬৭১ জন।

এছাড়া যুক্তরাষ্ট্রে বর্তমানে ৩ লাখ ৩৬ হাজার ৪৬২ জন আক্রান্ত রয়েছে। তাদের মধ্যে ৩ লাখ ২৭ হাজার ৫৮৩ জন চিকিৎসাধীন, যাদের অবস্থা স্থিতিশীল। বাকি ৮ হাজার ৮৭৯ জনের অবস্থা গুরুতর, যাদের অধিকাংশই আইসিউতে রয়েছে।

যুক্তরাষ্ট্রে সবচেয়ে ভয়াবহ অবস্থা নিউইয়র্কে। সেখানে এ পর্যন্ত মারা গেছে ৪ হাজার ৭৫৮ জন এবং আক্রান্ত হয়েছে ১ লাখ ৩১ হাজার ৯১৬ জন। এছাড়া নগরীতে করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে প্রথমবারের মতো ১৮ বছর বয়সের নিচে একজনের মৃত্যু হয়েছে। তার শরীরে অন্য আরও রোগ ছিল।

আমেরিকার শীর্ষ সংক্রামক রোগ বিশেষজ্ঞ ডা. অ্যান্টনি ফসি আশঙ্কা প্রকাশ করে বলেছেন, দেশে করোনা ভাইরাসে মৃতের সংখ্যা এক লাখ বা তারও বেশি হতে পারে। এরপর প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পও একই কথা বলেছেন। এদিকে চীন থেকে জরুরি মেডিকেল সরঞ্জাম পৌঁছেছে যুক্তরাষ্ট্র্রে। খবর বিবিসি, এএফপি।

উল্লেখ্য, করোনা ভাইরাসের প্রাদুর্ভাব ৩ মাস ছাড়িয়েছে। এখনও নিয়ন্ত্রণের লক্ষণ খুব একটা দৃশ্যমান নয়। করোনায় বিপর্যস্ত সারাবিশ্ব। গত ২৪ ঘণ্টায় বিশ্বজুড়ে ৫ হাজার ২২৭ জনের মৃত্যু হয়েছে। এ নিয়ে মোট মৃতের সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ৭৪ হাজার ৬৫৪ জন।

এছাড়া বিশ্বজুড়ে গত ২৪ ঘণ্টায় আক্রান্ত হয়েছে ৭৩ হাজার ১৩৪ জন। এ নিয়ে মোট আক্রান্ত হয়েছে ১৩ লাখ ৪৬ হাজার ৩৫ জন। এখন পর্যন্ত ২ লাখ ৭৮ হাজার ৫৩৪ জন সুস্থ হয়েছে।

সবমিলিয়ে, বর্তমানে ৯ লাখ ৯২ হাজার ৮৪৭ জন আক্রান্ত রয়েছে। তাদের মধ্যে ৯ লাখ ৪৫ হাজার ৩৮৮ জন চিকিৎসাধীন, যাদের অবস্থা স্থিতিশীল। আর ৪৭ হাজার ৪৫৯ জনের অবস্থা গুরুতর, যাদের অধিকাংশই আইসিউতে রয়েছে।

ভাইরাসটি চীন থেকে ছড়ালেও বর্তমানে সবচেয়ে খারাপ অবস্থা যুক্তরাষ্ট্রে। দেশটিতে এখন পর্যন্ত ৩ লাখ ৬৭ হাজার ৪ জন আক্রান্ত হয়েছে। আর মৃত্যু হয়েছে ১০ হাজার ৮৭১ জনের। ইতালিতে ১ লাখ ৩২ হাজার ৫৪৭ জন আক্রান্ত, বিপরীতে মারা গেছে ১৬ হাজার ৫২৩ জন। এখন পর্যন্ত করোনায় সবচেয়ে বেশি মানুষের মৃত্যু হয়েছে ইতালিতে এবং আক্রান্ত যুক্তরাষ্ট্রে।

এছাড়া স্পেনে এখন পর্যন্ত ১ লাখ ৩৬ হাজার ৬৭৫ জন আক্রান্ত, আর ১৩ হাজার ৩৪১ জনের মৃত্যু হয়েছে। জার্মানিতে ১ লাখ ৩ হাজার ৩৭৪ জন আক্রান্ত, ১ হাজার ৮১০ জনের মৃত্যু হয়েছে। চীনে আক্রান্ত ৮১ হাজার ৭৪০, মারা গেছে ৩ হাজার ৩৩১ জন। ফ্রান্সে আক্রান্ত ৯৮ হাজার ১০, মারা গেছে ৮ হাজার ৯১১ জন। ইরানে আক্রান্ত ৬০ হাজার ৫০০, মারা গেছে ৩ হাজার ৭৩৯ জন। যুক্তরাজ্যে আক্রান্ত ৫১ হাজার ৬০৮, মারা গেছে ৫ হাজার ৩৭৩ জন। বেলজিয়ামে আক্রান্ত ২০ হাজার ৮১৪, মৃত্যু হয়েছে ১ হাজার ৬৩২ জনের। নেদারল্যান্ডে আক্রান্ত ১৮ হাজার ৮০৩, মারা গেছে ১ হাজার ৮৬৭ জন।

এছাড়া ভারতে এ ভাইরাসে এখন পর্যন্ত ৪ হাজার ৭৭৮ জন আক্রান্ত হয়েছে। আর প্রাণ গেছে ১৩৬ জনের। পাকিস্তানে এ পর্যন্ত ৩ হাজার ৭৬৬ জন করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছে এবং ৫৩ জন মারা গেছে। বাংলাদেশে এ ভাইরাসে এখন পর্যন্ত ১২৩ জন আক্রান্ত হয়েছে বিপরীতে প্রাণ গেছে ১২ জনের।

এ রোগের কোনো উপসর্গ যেমন জ্বর, গলা ব্যথা, শুকনো কাশি, শ্বাসকষ্ট, শ্বাসকষ্টের সঙ্গে কাশি দেখা দিলে চিকিৎসকের পরামর্শ নিতে হবে। জনবহুল স্থানে চলাফেরার সময় মাস্ক ব্যবহার করতে হবে। বাড়িঘর পরিষ্কার রাখতে হবে। বাইরে থেকে ঘরে ফিরে এবং খাবার আগে সাবান দিয়ে হাত পরিষ্কার করতে হবে। খাবার ভালোভাবে সিদ্ধ করে খেতে হবে।