আশুলিয়ায় সবুজের মাঝে সাদা বকের অপরূপ দৃশ্য

মঙ্গলবার, এপ্রিল ৭, ২০২০

জাহিন সিংহ, সাভার থেকে : সাভারের আশুলিয়ায় মানুষের ভালোবাসা আর মমতায় গড়ে উঠেছে বকের অভয়ারণ্য। সকাল থেকে সন্ধ্যা পর্যন্ত লম্বা পা ফেলে দলবেঁধে খাবারের সন্ধানে উড়ে বেড়ানো কিংবা পড়ন্ত বিকোলে নীল আকাশে বকগুলোর ঝাঁক বাঁধা পাখির এই মিছিল প্রকৃতির মাঝেই ছড়িয়ে দেয় ভিন্ন এক সৌন্দর্য। এভাবেই আশুলিয়ার এনায়েতপুর গ্রামে স্থানীয় বাসিন্দাদের নিবিড় ভালোবাসায় সেখানে বাসা বেধেছে ঝাঁকে ঝাঁকে সাদা বক।

সেখানে লেকের পাড়ে দেয়ালের ওপর বসে থাকা সারি সারি বকের দৃশ্য মুগ্ধ করে সবাইকে। প্রতিদিন সকাল থেকে গোধূলী লগ্ন পর্যন্ত বকের সাদা শুভ্র পালকের ঝাঁপটায় বদলে গেছে সেখানে প্রকৃতির রঙ। সবুজের মাঝে সাদার আল্পনা একেঁ দলবেধে হৈচৈ, ডাকাডাকি আর উড়াউড়ির মধ্যেই দিন কাটে এসব পাখির। সচরাচর হাওড় বাওড়, খাল বিল আর জলাশয়ে এ পাখির দেখা মিললেও দিন দিন হারিয়ে যা”েছ বক। পরিবেশের ভারসাম্য রক্ষায় দ্রুত পাখির প্রতি সহানুভুতিশীল এবং পাখি সংরক্ষণে আরো কার্যকর ব্যবস্থা নেয়া প্রয়োজন।

সারি সারি বক। আকাশে ঝাঁকে ঝাঁকে ডানা মেলে উড়াছে আর বিচিত্র ঢংযে নেমে আসছে জলাশয়ের পাশের চরের মতো এক চিলতে জমিতে ও গাছে গাছে। এ দৃশ্যে মুগ্ধ প্রকৃতিপ্রেমীদের অনেকে। প্রকৃতির আর পাখির নিবিড় বন্ধন দেখতে অনেকেই ছুটে আসেন সেখানে।

সাভারের আশুলিয়ার গণ বিশ্ববিদ্যালয়ে যাবার পথেই ডান দিকে এনায়েতপুর গ্রাম অতিক্রমের সময় পাখির কিচিরমিচির চোখ নেয়ে যায় বকের রাজ্যে। আর চোরা শিকারীদের হাত থেকে নিরাপদ হওয়ায় দূর দূরান্ত থেকেও বক প্রজাতির অনেকে ঠাঁই নিয়েছে এখানে। সারিবদ্ধভাবেই চলছে খাবার সংগ্রহ। মাঠি থেকে উড়ে যা”েছ বাঁশ ঝাড় ও বিভিন্ন গাছে। নিজেদের অভযারণ্য গড়ে চলছে প্রজনন আর বংশবিস্তার।

স্থানীয়রা জানায় গত কয়েক বছর ধরে এই গ্রামে বক আসছে। নিরাপদ হওয়ায় বক গুলো এখানে বাসা বেধেছে বলে জানান জাহাঙ্গীরনগর বিশ^বিদ্যালয়ের প্রাণিবিদ্যা বিভাগের অধ্যাপক মনোয়ার হোসেন।