করোনায় মৃত্যু হারে দ্বিতীয় স্থানেই বাংলাদেশ, শীর্ষে ইতালি

শনিবার, এপ্রিল ৪, ২০২০

ঢাকা : দেশে নতুন করে আরও ৯ জন করোনা রোগী শনাক্ত করা হয়েছে। ফলে দেশে করোনা ভাইরাসে আক্রান্তের সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ৭০ জন। ৭০ জনের মধ্যে ৩০ জন সুস্থ হয়ে বাড়ি ফিরলেও মারা গেছেন ৮ জন।

বাংলাদেশে মোট আক্রান্ত থেকে মৃত্যুর হার ১১ দশমিক ৪৩ শতাংশ। আর সুস্থ থেকে মৃত্যুর হার ১১ দশমিক ৪৩ শতাংশ ২৬.৬৭ শতাংশ। আক্রান্ত থেকে মৃত্যুর হারেই বিশ্বের দ্বিতীয় স্থানে আছে বাংলাদেশ। প্রথম স্থানে আছে মৃত্যুপরী ইতালি। আর বাংলাদেশের পর তৃতীয় অবস্থানে রয়েছে স্পেন।

সফটওয়্যার সল্যুশন কোম্পানি ডারাক্সের পরিসংখ্যানভিত্তিক ওয়েবসাইট ওয়ার্ল্ডোমিটার এই তথ্য প্রকাশ করেছে। করোনা ভাইরাস আক্রান্ত ২০৫ দেশের মধ্যে রয়েছে বাংলাদেশও।

বাংলাদেশে মৃত্যুর হার ১১.৪৩ শতাংশ যেখানে ভাইরাসটির উৎপত্তিস্থল চীনে মৃত্যুর হার ৪.০৪%। মৃত্যুর হারে বাংলাদেশ থেকে এগিয়ে থাকা একমাত্র দেশ ইতালিতে। দেশটিতে এই হার ১২.২৫ শতাংশ। ইতালির পর মৃত্যুপুরি হিসেবে বিবেচিত স্পেনেও এই হার বাংলাদেশের চেয়ে কম। স্পেনে মৃত্যুর হার ৯.৩৯ শতাংশ। আক্রান্তের দিক থেকে প্রথম অবস্থানে থাকা যুক্তরাষ্ট্রে মৃত্যু হার মাত্র ২.৬৭ শতাংশ।

এশিয়ার দুই দেশ দক্ষিণ কোরিয়া এবং মালয়েশিয়াতেও মৃত্যু হার যৎসামান্য, যথাক্রমে ১.৭৪ % ও ১.৫৯%। প্রতিবেশী ভারতে (২.৭৯%) তাদের থেকে কিছুটা বেশি হলেও পাকিস্তানে (১.৪৮%) তুলনামূলকভাবে অনেক কম। অন্যদিকে দক্ষিণ এশিয়ার আরেক দেশ শ্রীলঙ্কায় মৃত্যুহার ৩.১৪%।

তবে বাংলাদশে সরকার মৃত্যুর হার কমিয়ে আনতে নানা পদক্ষেপ নিয়েছে। নাগরিকদের সচেতনতা করতে সরকারের শীর্ষ পর্যায় থেকে প্রচার-প্রচারণা চালানো হচ্ছে।

বিষেজ্ঞরা বলছেন, যেখানে বিশেষজ্ঞদের দেওয়া পরামর্শই এই প্রাণঘাতী ভাইরাস থেকে রক্ষা পাওয়ার একমাত্র উপায়, সেখানে নিজের এবং নিজ পরিবারের কথা চিন্তা করে সবাইকে সচেতন হতে হবে। জনসমাগম এবং শারীরিক দূরত্ব যথাসম্ভব বজায় রাখতে হবে, সবসময় পরিষ্কার-পরিচ্ছন্ন এবং জীবাণুমুক্ত থাকতে চেষ্টা করতে হবে।