স্মার্টফোন দিয়ে যেভাবে যৌনক্ষমতা হ্রাস করছেন আপনি

সোমবার, মার্চ ৩০, ২০২০

প্রতিদিন ব্যবহার করছেন মোবাইল ফোন। আবারও অনেকে এই মোবাইলে ইন্টারনেট ব্যবহারে আসক্ত হয়ে পড়ছেন। তারুণ্যকে ক্রমেই ফেসবুক সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম বা ইন্টারনেট আসক্তির দিকে নিয়ে যাচ্ছে। জিএসএমএ ইন্টেলিজেন্স প্রকাশিত বৈশ্বিক তথ্যানুযায়ী, সারাবিশ্বে মোবাইল ব্যবহারকারীদের মোট পরিসংখ্যান ইতোমধ্যে পাঁচ বিলিয়নের মাইলফলকে পৌঁছে গেছে। বাংলাদেশে ২০১৯ সালে ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত ১৫ কোটি ৮৪ লাখ ৩৮ হাজার মোবাইল নম্বর নিবন্ধিত হয়েছে, যা দেশের মোট জনসংখ্যার ৯৭.২৩ শতাংশ।

স্মার্টফোনের অতিরিক্ত ব্যবহার আমাদের মানসিকতাকে যে বিপর্যস্ত করেছে, সে কথা আমরা সকলেই জানি, কিন্তু তার প্রভাব পড়ছে আপনার যৌনজীবনেও। সেকথা জানেন কি? এক নতুন গবেষণার প্রতিবেদনে জানানো হয়েছে এমন কঠোর সত্য। মরক্কোর কাসাব্লাঙ্কায় শেখ খলিফা বেন জায়েদ আন্তর্জাতিক বিশ্ববিদ্যালয় হাসপাতালের যৌন স্বাস্থ্য বিভাগ জানিয়েছে, যে সমস্ত মানুষের ওপর এমন গবেষণা হয়েছে তাদের মধ্যে ৬০ শতাংশ মানুষ স্মার্টফোনের কারণে তাদের যৌনজীবনের সমস্যাগুলির কথা স্বীকার করেছেন।

বৃহস্পতিবার মরক্কো ওয়ার্ল্ড নিউজের প্রকাশিত এক প্রতিবেদনে বৈজ্ঞানিক গবেষণার ফলাফল অনুসারে বলা হয়েছে, অংশগ্রহণকারী ৬০০ জনের কাছেই স্মার্টফোন ছিল এবং তাদের মধ্যে ৯২ শতাংশই রাতে ফোন ব্যবহার করার বিষয়টি স্বীকার করেছেন।

তাদের মধ্যে মাত্র ১৮ শতাংশ ব্যক্তি ফোনগুলি শয়নকক্ষে ফ্লাইট মোডে রাখেন বলে, জানিয়েছেন। সমীক্ষায় দেখা গেছে যে স্মার্টফোনেই অতিরিক্ত ব্যবহার ২০ থেকে ৪৫ বছর বয়সী প্রাপ্তবয়স্কদের ক্ষেত্রে নেতিবাচক প্রভাব ফেলেছে, তার মধ্যে ৬০ শতাংশ মানুষ জানিয়েছে, স্মার্টফোন তাদের যৌন ক্ষমতাকে বিশেষ রূপে প্রভাবিত করেছে। প্রতিবেদনে উল্লেখ করা হয়েছে যে প্রায় ৫০ শতাংশ মানুষ এই কথা স্বীকার করেছেন যে, স্মার্টফোন অতিরিক্ত ব্যবহারের জন্য তাদের যৌন জীবন বিশেষ ভাবে ব্যাহত।

আমেরিকার একটি সংস্থা শ্যুরকলের সমীক্ষায় বলা হয়েছে যে প্রায় তিন-চতুর্থাংশ লোকেরা জানিয়েছেন, যে তারা রাতে তাদের স্মার্টফোন গুলিকে বিছানায় বা তার পাশে রেখে ঘুমিয়ে থাকেন। এবং যাদের ফোন কাছে রেখে ঘুমানোর অভ্যাস, তাদের থেকে ফোন দূরে থাকলে তারা নিজেদের মধ্যে অশান্তি বোধ করেন, বিচলিত হয়ে পড়েন। গবেষণায় জড়িত এক তৃতীয়াংশ অংশগ্রহণকারীদের বিশ্বাস করেন যে ইনকামিং কলগুলির উত্তর দেওয়াতা তাদের কাছে অনিবার্য বলে মনে হয়, যা তাদের যৌন জীবনকে বিশেষ ভাবে প্রভাবিত করে।