জাতির কাছে ক্ষমা চাইলেন মোদী

রবিবার, মার্চ ২৯, ২০২০

আন্তর্জাতিক ডেস্ক : ভারতজুড়ে ২১ দিনের লকডাউন চলছে। এ অবস্থায় দেশটির বিভিন্ন শহরে আটকা পড়েছে লাখ লাখ খেটে খাওয়া মানুষ। সবকিছু বন্ধ থাকায় তারা গ্রামেও ফিরতে পারছেন না। সৃষ্ট এই পরিস্থিতিতে লকডাউনের কঠোর সিদ্ধান্ত গ্রহণের জন্য জাতির কাছে ক্ষমা চেয়েছেন ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী।

রবিবার (২৯ মার্চ) মাসিক রেডিও বক্তৃতা ‘মন কি বাত’ এ মোদী এমনটি বলেছেন বলে তাঁর উদ্ধৃতি দিয়ে জানিয়েছে দেশটির শীর্ষ সংবাদমাধ্যম এনডিটিভি।

মোদী বলেন, ‘কঠিন পরিস্থিতিতে আমাকে কিছু কঠোর সিদ্ধান্ত নিতে হয়েছে, যা অনেক মানুষের অসুবিধার কারণ হয়েছে। এ জন্য আমি জাতির কাছে ক্ষমাপ্রার্থী। তবে মানুষের সুরক্ষা নিশ্চিত করার জন্যই আমাকে এমন পদক্ষেপ নিতে হয়েছে।’

এর আগে বিশ্বজুড়ে ছড়িয়ে পড়া মহামারি করোনা ভাইরাসের বিস্তার ঠেকাতে গেল সোমবার ভারতজুড়ে ২১ দিনের লকডাউন ঘোষণা করেন মোদী।

এ ঘোষণার পর ধীরে ধীরে বন্ধ হয়ে যায় ভারতে সব ধরনের গণপরিবহন, শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান, বিপণিবিতান, জিম, সুইমিংপুল, পার্ক, অফিস-আদালত।

দেশজুড়ে লকডাউন ঘোষণা হওয়ায় কাজের সন্ধানে গ্রাম থেকে বড় বড় শহরগুলোতে উঠে আসা লাখ লাখ শ্রমিক বেকার হয়ে পড়েছেন। অনেকেই অর্থাভাবে এখন তিনবেলা খেতেও পারছে না। রাজ্য সরকারগুলো এই দিনমুজুরদের খাদ্যসামগ্রী সরবরাহের ঘোষণা দিলেও এখনও তা মানুষের হাতে পৌঁছুচ্ছে না।

অনেক শ্রমিক উপায় না পেয়ে পরিস্থিতির চাপে পায়ে হেটেই দূরবর্তী গ্রাম বা ছোট শহরগুলোতে বাড়ির পথে রওনা দিচ্ছে। এভাবে মালপত্র ও ছোট ছোট বাচ্চাদের কোলে-কাঁধে তুলে শত শত মাইল পথ পাড়ি দেয়ার সংগ্রামে যুক্ত হয়েছে দেশটির লাখ লাখ নিম্নবিত্ত মানুষ।

ভারতে এখন পর্যন্ত করোনা ভাইরাসে আক্রান্তের সংখ্যা ৯৮৭ জন। এর মধ্যে মারা গেছেন ২৫ জন আর সুস্থ হয়েছেন ৮৭ জন।