সাময়িক কষ্ট হলেও বিদ্যুতের বাড়তি দাম মেনে নিতে হবে: কাদের

শুক্রবার, ফেব্রুয়ারি ২৮, ২০২০

ঢাকা : আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক, সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের জনগণের প্রতি আহ্বান জানিয়ে বলেছেন, ‘বিদ্যুতের দীর্ঘস্থায়ী সমস্যা সমাধানের জন্য মূল্য বাড়ানো হচ্ছে। ৩ টাকা বিদ্যুতের দাম বাড়লে এতে হয়তো আপনাদের সাময়িক কষ্ট হবে কিন্তু তারপরও মেনে নিতে হবে।’

শুক্রবার (২৭ ফেব্রুয়ারি) বিকেলে রাজধানীর হাতিরপুলে ফিকামলি সেন্টারে শহীদ সেলিম-দেলোয়ারের স্মরণে এক আলোচনা সভা ও মিলাদ মাহফিলে তিনি এসব কথা বলেন। শহীদ দেলোয়ার সেলিম স্মৃতি পরিষদ আয়োজিত এ সভায় সভাপতিত্ব করেন স্মৃতি পরিষদের সভাপতি ড. আবদুল ওয়াদুদ। বিশেষ অতিথির বক্তব্য দেন আওয়ামী লীগের প্রেনিডিয়াম সদস্য জাহাঙ্গীর কবির নানক।

বৃহস্পতিবার (২৭ ফেব্রুয়ারি) বিকেলে এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে বিদ্যুতের দাম বাড়ানোর কথা জানায় বাংলাদেশ এনার্জি রেগুলেটরি কমিশন, যা মার্চ মাস থেকে কার্যকর হবে।

ওবায়দুল কাদের বলেন, বিএনপির আমলে বিদ্যুতের লোডশেডিংয়ে মানুষ অতিষ্ঠ ছিল। ঘণ্টার পর ঘণ্টা দিনের পর দিন বিদ্যুৎ থাকত না। আমি বলতে চাই, শেখ হাসিনা সরকারের আমলে বিদ্যুৎ আর পানির জন্য আপনাদের কোন অসুবিধা হচ্ছে না। এই শহরে পানি আর বিদ্যুতের হাহাকার লেগে থাকতো।

‘এই মুজিববর্ষে এখন ৯৬ ভাগ মানুষ বিদ্যুৎ সুবিধা পাবে। মুজিববর্ষে সরকার ১০০ ভাগ লোকের ঘরে বিদ্যুৎ পৌঁছে দেবে, ইনশাআল্লাহ। এডজাস্টমেন্টের জন্যই বিদ্যুতের দাম কিছু বাড়াতে হচ্ছে। এটা সাময়িক। শতভাগ বিদ্যুৎ পৌঁছানোর জন্য একটু কষ্ট হবে। এরপরও বিদ্যুতের জন্য সরকারকে সাড়ে তিন হাজার কোটি টাকা ভর্তুকি দিতে হবে। এই দুর্ভোগ সাময়িক, এটা জনগণ মেনে নেবেন, এটা আমার অনুরোধ।’

তিনি বলেন, আজকের স্মরণসভা বাংলাদেশের রাজনৈতিক ইতিহাসের একটি রক্তাক্ত ঘটনা। যেখানে দুজন দেশমাতৃকার তরুণ বীর, যারা রক্ত দিয়ে স্বৈরশাসনের বিরুদ্ধে জনতার আন্দোলনকে সেদিন পরিচালিত করেছিলেন বঙ্গবন্ধুর রক্তেভেজা মাটিতে বঙ্গবন্ধু কন্যা শেখ হাসিনা গণতন্ত্রের অভাব মিটিয়ে মুক্তির আন্দোলনে নেতৃত্ব দিয়েছিলেন। সেই আন্দোলনকে এসব খণ্ড-খণ্ড রক্তাক্ত আন্দোলন সামনের দিকে এগিয়ে নিয়ে গেছে। স্বৈরশাসনের পতন ঘটিয়েছে।