ইরানে করোনার থাবায় মৃত্যু বেড়ে ১৫

মঙ্গলবার, ফেব্রুয়ারি ২৫, ২০২০

আন্তর্জাতিক ডেস্ক : ইরানে প্রাণঘাতী করোনা ভাইরাসের থাবায় মৃত্যুর সংখ্যা বেড়ে দাঁড়িয়েছে ১৫ জনে। এখন পর্যন্ত আক্রান্ত হয়েছে ৬১ জন। খবর আল জাজিরা।

ইরানের স্বাস্থ্য কর্মকর্তাদের বরাতে দেশটির সরকারি গণমাধ্যম জানিয়েছে, নতুন করে মারা যাওয়া দুইজন বৃদ্ধ মহিলা। নিহতদের একজন উত্তর আলব্রুজ প্রদেশে এবং অন্যজন সেন্ট্রাল মারকাজি প্রদেশে।

আক্রান্তদের অধিকাংশই দেশটির শিয়াদের পবিত্র শহর কোমে। এরই মধ্যে দেশজুড়ে সর্বোচ্চ জরুরি অবস্থা ঘোষণা করেছে সরকার। লোকজনকে জনসমাগম এড়িয়ে চলতে, কোলাকুলি ও হ্যান্ডশেক না করতে বলা হয়েছে। এছাড়াও আরও বিভিন্ন ধরনের স্বাস্থ্য সতর্কতা জারি করা হয়েছে।

এদিকে করোনা ভাইরাসে চীনে মৃতের সংখ্যা বেড়ে ২ হাজার ৬৬৪ জনে দাঁড়িয়েছে। এছাড়া চীনের বাইরে নিহত হয়েছে ৪১ জন। এর মধ্যে ইরানে ১৫, দক্ষিণ কোরিয়ায় ১০, জাপান ৫, হংকং ২, ইটালিতে ৭, ফিলিপাইন, তাইওয়ান ও ফ্রান্স ১ জন করে মোট ২ হাজার ৭০৬ জন নিহত হয়েছে। গত ২৪ ঘণ্টায় নিহত হয়েছে ৮০ জন।

এ ভাইরাসে চীনে আক্রান্তের সংখ্যা ৭৭ হাজার ৬৬০ জন এবং চীনের বাইরে ২ হাজার ৫৮৯ জন। সবমিলিয়ে পুরো বিশ্বে আক্রান্তের সংখ্যা ৮০ হাজার ২৪৯ জনে দাঁড়িয়েছে। এখন পর্যন্ত মোট ২৭ হাজার ৭৬৮ জন সুস্থ হয়েছে।

মঙ্গলবার সকালে চীনের জাতীয় স্বাস্থ্য কমিশন জানায়, চীনে নতুন করে গত ২৪ ঘণ্টায় আক্রান্ত হয়েছে ৫১০ জন এবং মারা গেছে ৭২ জন। এ পর্যন্ত মোট আক্রান্ত ৭৭ হাজার ৬৬০ জন এবং মারা গেছে ২ হাজার ৬৬৪ জন। আক্রান্তদের মধ্যে ৯ হাজার ২১৫ এর বেশি মানুষের অবস্থা আশঙ্কানক। এছাড়া চিকিৎসকদের পর্যবেক্ষণে রয়েছে কয়েক লাখ মানুষ।

হুবেই প্রদেশের রাজধানী উহান, সেখানাকার একটি সামুদ্রিক খাদ্য ও মাংসের বাজার থেকে এই করোনা ভাইরাসটির উৎপত্তি হয়েছে বলে ধারণা করা হচ্ছে।ভাইরাসটি যাতে ছড়িয়ে না যায়, সেজন্য চীন হুবেই প্রদেশকে পুরো দেশ থেকে বিচ্ছিন্ন করে দিয়েছে।ওই অঞ্চলের সাথে সকল ধরনের যোগাযোগ বন্ধ রয়েছে চীনসহ বাইরের বিশ্ব থেকে।

মঙ্গলবার দেশটির জাতীয় স্বাস্থ্য কমিশন এক প্রতিবেদনে জানিয়েছে, এখন পর্যন্ত ২৭ হাজার ৭৬৮ জন সুস্থ হয়েছে এবং তারা হাসপাতাল থেকে বাড়ি ফেরার ছাড়পত্র পেয়েছে।

এদিকে স্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞরা বলছেন, প্রতিদিন যে পরিমাণ আক্রান্তের খবর আসছে, তাতে আক্রান্তের আসল খবর জানা যাচ্ছে না।কারণ, ভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে যারা হাসপাতালে ভর্তি হচ্ছে, শুধু তাদের হিসেব পরিসংখ্যানে ধরা হচ্ছে।তাই এর প্রকৃত হিসেব বের করা বা জানা খুবই কঠিন ব্যাপার, যা আরেকটি আশঙ্কার কারণ।

চীনের সবগুলো প্রদেশসহ বিশ্বের ৩৭টি দেশে করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত রোগী শনাক্ত হয়েছে। চীনের বাইরে এ পর্যন্ত ২ হাজার ৫৮৯ জন শনাক্ত করা হয়েছে। এর মধ্যে জাপানে ৮৫১ এবং দক্ষিণ কোরিয়ায় ৯৭৭ জন।

ভাইরাস সংক্রমণের কারণে চীন ভ্রমণে সতর্কতা, নিষেধাজ্ঞা জারি এবং কড়াকড়ি আরোপ করেছে অনেক দেশ।ভারত, সিঙ্গাপুর, শ্রীলঙ্কাসহ অনেক দেশ চীন থেকে আগত যাত্রীদের ভিসা বাতিল করেছে।ভাইরাসের কারণে, বিশ্বের অনেক দেশ তাদের নাগরিকদের চীন ভ্রমণে নিষেধাজ্ঞা দিয়েছে।চীনে অধিকাংশ বিমান সংস্থার ফ্লাইট বাতিল করা হয়েছে।যুক্তরাষ্ট্র, ব্রিটেন, কানাডা, ফ্রান্সসহ আরও অনেক দেশ তাদের নাগরিকদের চীন থেকে সরিয়ে নিচ্ছে।

এছাড়া, করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে (কোভিড-১৯) চীনে ৮ স্বাস্থ্যকর্মীর মৃত্যু হয়েছে। এছাড়া চীনে ৩ হাজার স্বাস্থ্যকর্মী এই ভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছে। রবিবার দেশটির জাতীয় স্বাস্থ্য কমিশন এ তথ্য জানিয়েছেন।

চীনের জাতীয় স্বাস্থ্য কমিশনের সহকারী পরিচালক জেং ইজিন জানান, ভাইরাসটিতে আক্রান্ত হয়ে এরইমধ্যে ৮ জন স্বাস্থ্যকর্মী নিহত হয়েছেন। এছাড়া ৩ হাজার জন স্বাস্থ্যকর্মী আক্রান্ত হয়েছেন। যা ভাইরাসটিতে মোট আক্রান্ত রোগীদের ৩ দশমিক ৮ শতাংশ। এর মধ্যে হুবেই প্রদেশে রয়েছে ২ হাজার ৫০২।

গত ডিসেম্বরে চীনে উদ্ভূত করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে প্রতিদিনই বাড়ছে মৃত্যু ও আক্রান্তের সংখ্যা।এখন পর্যন্ত চীনের বাইরে বিশ্বের ৩৭টি দেশে ২ হাজার ৫৮৯ জন করোনা আক্রান্ত রোগী শনাক্ত হয়েছে। শুধু চীনেই আক্রান্তের সংখ্যা ৭৭ হাজার ৬৬০ জন।

যেসব দেশে করোনা ভাইরাস আক্রান্ত রোগী শনাক্ত হয়েছে-

চীন- ৭৭ হাজার ৬৬০ জন, দক্ষিণ কোরিয়া- ৯৭৭, জাপান- ৮৫১, ইটালি- ২৩২, সিঙ্গাপুর- ৯০, হংকং- ৮১, ইরান- ৬১, যুক্তরাষ্ট্র- ৫৩, থাইল্যান্ড- ৩৭, তাইওয়ান- ৩১, অস্ট্রেলিয়া- ২২, মালয়েশিয়া- ২২, জার্মানি- ১৬, ভিয়েতনাম- ১৬, যুক্তরাজ্য- ১৩, আরব আমিরাত- ১৩, ফ্রান্স- ১২, কানাডা- ১১, ম্যাকাও- ১০, কুয়েত- ৮, ফিলিপাইন- ৩, ভারত- ৩, স্পেন- ৩, বাহরাইন-৮, ইজরাইল- ২, ওমান- ২, রাশিয়া- ২, আফগানিস্তান-১, বেলজিয়াম- ১, কম্বোডিয়া- ১, মিশর- ১, ফিনল্যান্ড- ১, ইরাক- ১, লেবানন- ১, নেপাল- ১, শ্রীলঙ্কা- ১ ও সুইডেন- ১ জন।