আশুলিয়ায় পোশাক শ্রমিক গণধর্ষণের ঘটনায় ২ বখাটে গ্রেফতার

মঙ্গলবার, ফেব্রুয়ারি ২৫, ২০২০

জাহিন সিংহ, সাভার থেকে : সাভারের আশুলিয়ায় এক পোশাক শ্রমিক তরুনীকে (১৯) ডেকে নিয়ে গণধর্ষণের অভিযোগে প্রেমিকসহ তিনজনের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করা হয়েছে। এঘটনায় পুলিশ দুই জনকে গ্রেফতার করলেও ওই তরুনীর প্রেমিক সামিউল ইসলাম পলাতক রয়েছে।

মঙ্গলবার দুপুরে ভুক্তভোগী ওই তরুণী বাদী হয়ে প্রেমিক সামিউল ইসলামসহ তিন জনের বিরুদ্ধে গণধর্ষণের অভিযোগে থানায় একটি মামলা দায়ের করেছেন। পরে ভুক্তভোগী নারীকে স্বাস্থ্য পরীক্ষার জন্য ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের ওয়ানস্টপ ক্রাইসিস সেন্টারে পাঠানো হয়েছে।

গ্রেফতারকৃরা হলেন- আশুলিয়ার নরসিংহপুর এলাকার মৃত জলিল সরকারের ছেলে রানা সরকার (২৫) ও একই এলাকার মৃত জামাল মোল্লার ছেলে আরিফ হোসেন (২৯)।

মামলা সূত্রে জানা যায়, আশুলিয়ার নরসিংহপুর এলাকার হামীম গ্রুপ কারখানার শ্রমিক ওই তরুণীর সাথে প্রেমের সম্পর্ক গড়ে তোলে স্থানীয় পোশাক কারখানার শ্রমিক সামিউল। গত ২৩ ফেব্রুয়ারি সোমবার রাতে ওই তরুনী নরসিংহপুর এলাকায় তার বান্ধবীর বাড়িতে বেড়াতে যায়। পরে বাসায় ফেরার পথে প্রেমিক সামিউল তাকে নরসিংহপুর এলাকায় তার ভাড়া বাসায় ডেকে নেয়।

এরপর কৌশলে ওই তরুনীকে নিজের রুমে নিয়ে দরজা আটকে দেয় সামিউল। সেখানে আগে থেকেই সামিউলের বন্ধু আরিফ ও রানা অবস্থান করছিল। পরে প্রেমিক সামিউল, তার বন্ধু আরিফ ও রানা ওই তরুনীকে জোরপূর্বক পালাক্রমে ধর্ষণ করে। এসময় ওই নারী চিৎকার করলে তাকে মেরে ফেলার হুমকি দেয় বখাটেরা। পরে রাত সাড়ে ১০টার দিকে ওই নারীকে ছেড়ে দেয় তারা।

আশুলিয়া থানার পরিদর্শক (ইন্টিলিজেন্স) ফজলুল হক জানান, ওই নারীকে গণধর্ষণের অভিযোগে দুই আসামীকে গ্রেফতার করা হয়। এঘটনায় পলাতক সামিউলকে গ্রেফতারের চেষ্টা চলছে।

মামলার প্রধান আসামী পলাতক পোশাক শ্রমিক সামিউল ইসলাম মৃধা ওরফে সোহান (২২) আশুলিয়ার নরসিংহপুর এলাকার মঞ্জুরুল ইসলামের বাড়ির ভাড়াটিয়া। তার বাড়ি নাটোর জেলার লালপুরে।