গণতন্ত্রকে হত্যা করে দেশে টেকসই উন্নয়ন সম্ভব নয়: মোশাররফ

বৃহস্পতিবার, ফেব্রুয়ারি ২০, ২০২০

ঢাকা: ‌বিএন‌পির স্থায়ী কমিটির সদস্য ড. খন্দকার মোশাররফ হোসেন বলেছেন, ‘গণতন্ত্রকে হত্যা করে দেশে প্রকৃত উন্নয়ন যদি হতো তাহলে সেটা বিশ্বের অনেক দেশেই হতো। আর সেটা হয় নাই বলেই দেশে টেকসই উন্নয়ন সম্ভব নয়।’

তি‌নি ব‌লেন, ‘পাকিস্তানের সময় আইয়ুব খান উন্নয়নের নামে নতুন ডেফিনেশন দিয়েছিল। কিন্তু সেই উন্নয়ন তার পতন ঠেকাতে পারেনি। আজকে আমরা দেখতে পাচ্ছি সরকার প্রধান এটাকে উন্নয়নে রূপান্তর করলো।’

বৃহস্পতিবার (২০ ফেব্রুয়ারি) সুপ্রিম কোর্ট বার কাউন্সিল মিলনায়তনে বিএন‌পির উদ্যোগে একুশে ফেব্রুয়ারি মহান শহীদ ও আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস উপলক্ষে আলোচনা সভায় এ কথা বলেন।

খন্দকার মোশাররফ বলেন, ‘বাংলাদেশের সর্বত্র ওপর থেকে নিচ পর্যন্ত পচন লেগেছে। শিক্ষাঙ্গন, অর্থনীতি, ব্যবসা-বাণিজ্য সর্বক্ষেত্রে। দ্রব্যমূল্য ক্রয় ক্ষমতার বাইরে রেখে সিন্ডিকেট করছে ব্যবসায়ীরা। প্রতিবাদ করার কেউ নেই।

দেশনেত্রীকে যদি বাঁচাতে হয় আমাদেরকে গণতন্ত্র ফিরিয়ে আনতে হবে। গণতন্ত্র আওয়ামী লীগ ফিরিয়ে দেবে না। এর আগে ৭৫ সালে তারা গণতন্ত্রকে হত্যা করেছে এবারও করছে বলেও মন্তব্য করেন তি‌নি ।

খন্দকার মোশাররফ আরও বলেন, ‘সরকার ভালো করে জানে জনগণ তাদের ভোট দেবে না। তাই তারা বলতে পারে- কে ভোট দিলো কে ভোট দিলো না তাতে কিছু আসে যায় না। এ কথার মাধ্যমে গণতন্ত্র কোথায় গেছে এটা তাদের চিন্তা করতে হবে।’

তিনি বলেন, ‘৪৮ সালের যুবক ছাত্রদের যদি এতো সাহস থেকে থাকে আজকে ছাত্র সমাজে সেই সাহস নেই কেন? আজকে দেশে গণতন্ত্র নাই। এর বিরুদ্ধে সাহসের সাথে মাথা উঁচু করে দাঁড়ানো আমাদের ঈমানি দায়িত্ব। কিন্তু আমরা পারছি না। আজকে আমরা যারা মঞ্চে এবং সামনে যারা ছাত্র যুবক আমরা প্রত্যেকেই এ ব্যাপারে ব্যর্থ হচ্ছি। আমাদের শিক্ষা নিতে হবে সেই সময়ের ছাত্র-যুবক নেতাদের কাছ থেকে। তারা যদি পারে আমরা পারছি না কেন?’

বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরের সভাপতিত্বে আলোচনা সভায় আরও উপ‌স্থিত ছি‌লেন বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ব্যারিস্টার জমির উদ্দিন সরকার, ব্যারিস্টার মওদুদ আহমেদ, আমীর খসরু মাহমুদ চৌধুরী, বেগম সেলিমা রহমান, ভাইস-চেয়ারম্যান শামসুজ্জামান দুদু, যুগ্ম-মহাসচিব খায়রুল কবির খোকন, ব্যারিস্টার মাহবুব উদ্দিন খোকন, মোয়াজ্জেম হোসেন আলাল, হাবিব-উন-নবী খান সোহেল, স্বনির্ভর বিষয়ক সম্পাদক শিরিন সুলতানা, সাংগঠনিক সম্পাদক মো. সেলিমুজ্জামান সেলিম, সহ-জলবায়ু বিষয়ক সম্পাদক মোস্তাফিজুর রহমান বাবুল, মহিলা দল সভানেত্রী আফরোজা আব্বাস, ছাত্রদলের সাধারণ সম্পাদক ইকবাল হোসেন শ্যামল, সাংগঠনিক সম্পাদক সাইফ মাহমুদ জুয়েল, ঢাকা মহানগর দক্ষিণ যুবদলের সাধারণ সম্পাদক গোলাম মাওলা শাহিন, মহিলা দলের যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক হেলেন জেরিন খান, ছাত্রদলের দফতর সম্পাদক আবদুস সাত্তার পাটোয়ারী প্রমুখ।