ভেজাল প্রতিরোধে বাজারে পরীক্ষা কেন্দ্র ও ফুড কোড তৈরি করবেন ইশরাক

মঙ্গলবার, জানুয়ারি ২৮, ২০২০

ঢাকা : আধুনিক ও বাসযোগ্য ঢাকা গড়তে ১৩ দফা এবং ১৪৪টি প্রতিশ্রুতি দিয়ে ইশতেহার ঘোষণা করেছেন ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশন নির্বাচনে বিএনপির মনোনীত মেয়র প্রার্থী প্রকৌশলী ইশরাক হোসেন। মঙ্গলবার (২৮ জানুয়ারি) বেলা সকাল ১১টায় জাতীয় প্রেসক্লাবে ইশরাক হোসেন তাঁর নির্বাচনী ইশতেহার উপস্থাপন করেন।

দুর্নীতিমুক্ত প্রাতিষ্ঠানিক সেবা সামাজিক ও মানবিক মূল্যবোধ গণতন্ত্র পুনরুদ্ধার, মানবাধিকার রক্ষা এবং ঐতিহ্য ও আধুনিকতার সম্মেলনে আধুনিক ঢাকা গড়ার প্রত্যয় ব্যক্ত করে ১৩টি দফা ও ১৪৪টি প্রতিশ্রুতি তুলে ধরেন ধানের শীষের এই প্রার্থী।

নাগরিক সেবা, নাগরিক বিনোদন, যানজট নিরসন ও যোগাযোগ ব্যবস্থার টেকসই উন্নয়ন, নাগরিক স্বাস্থ্যসেবা, শিক্ষাব্যবস্থা, পরিবেশ-উন্নয়ন বনায়ন ও বজ্র ব্যবস্থাপনা, তথ্য প্রযুক্তির ব্যবহার, সমাজসেবা কার্যক্রম, জননিরাপত্তা ব্যবস্থা, প্রাকৃতিক দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা নৈতিকতার শক্তি পুনরুদ্ধার, গ্রন্থাগার ও জাদুঘর, নগর পরিকল্পনা ও প্রশাসন।

তিনি বলেন, ‘পার্ক ও ব্যায়ামাগারে অত্যাধুনিক প্রাইমারি হেলথ চেকআপ সেন্টার স্থাপন করা হবে। প্রাতঃ ও সান্ধ্যকালীন ওয়ার্কারদের সুবিধার্থে পার্ক ও উন্মুক্ত স্থানগুলোতে অধিকতর পরিকল্পিত আধুনিক অপরিচ্ছন্ন ওয়াকওয়ে নির্মাণ করা হবে। ভেজাল তথা ফরমালিনমুক্ত খাদ্যসামগ্রীর নিশ্চিত করতে প্রতিটি বাজারে ভেজাল বীজ পরীক্ষা কেন্দ্র স্থাপন করা হবে। বিভিন্ন সম্ভাব্য জনসমাগমস্থলে ফুড কোড তৈরি করা হবে।

নগর পরিকল্পনা ও প্রশাসনিক পরিকল্পনা তুলে ধরে বিএনপির মেয়র প্রার্থী বলেন, ‘নগরীর সমস্যার গুরুত্ব অনুসারে স্বল্প মধ্যম এবং দীর্ঘমেয়াদি পরিকল্পনা গ্রহণ করে তা বাস্তবায়ন করা হবে। পরিকল্পিত নগর গড়ে তুলতে বিশিষ্ট নগর পরিকল্পনাবিদ স্বদেশে বিদেশে কর্মরত বাংলাদেশি নগর পরিকল্পনাবিদদের পরামর্শ গ্রহণ করা হবে। নগরের সমস্যা চিহ্নিত করতে এবং কার্যকর সমাধান পরিকল্পনাবিদদের কাজের পরিধি বৃদ্ধি এবং অংশগ্রহণ নিশ্চিত করা হবে। বিশেষজ্ঞ অর্থনীতিবিদদের মতামতের ভিত্তিতে ওয়ার্ডভিত্তিক বাজেট প্রণয়ন করা হবে যাতে এই বিকেন্দ্রীকরণের সুফল দ্রুত তৃণমূল পর্যায়ে পৌঁছানো যায়। নগর ব্যবস্থাপনায় সুশাসন নিশ্চিত করে সেবার মানোন্নয়ন করা হবে। সমন্বিত কার্যক্রম নগর সরকার ধরনের বাস্তবায়নে সক্রিয় উদ্যোগ গ্রহণ করা।’

তিনি বলেন, ‘গণতন্ত্র আজ নির্বাসিত কিন্তু জনগণের দল হিসেবে বিএনপি গণতন্ত্র গণতান্ত্রিক ব্যবস্থায় ভিন্নভাবে বিশ্বাস করে নির্বাচনের একমাত্র আমাদের দল গণতন্ত্র পুনরুদ্ধার ও বিএনপি চেয়ারপারসন দেশনেত্রী খালেদা জিয়াকে মুক্ত করার চলমান আন্দোলনের অংশ হিসেবে আসন্ন সিটি করপোরেশন নির্বাচনে অংশ নেয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছে। আমরা বিশ্বাস করি- গণতন্ত্র বাকস্বাধীনতা ও খালেদা জিয়ার মুক্তির জন্য ধানের শীষে ভোট দিন।’

ইশরাক হোসেন বলেন, ‘আমি ঢাকার সন্তান। আপনাদের সন্তান আপনাদেরই আপনজন। আপনাদের সুখ-দুঃখের সাথে আমার জীবন ওতপ্রোতভাবে জড়িয়ে আছে। ঢাকা আমাদের আনন্দ-বেদনা হাসি-কান্না মমতামাখা গর্বের মহানগরী। এই ঐতিহাসিক নগরীর সন্তান হিসেবে আমার নির্বাচনী প্রতিশ্রুতি হচ্ছে ঐতিহ্য ও আধুনিকতার সমন্বয়ে বিশ্বমানের আধুনিক ঢাকা-গড়ে তোলা। এ লক্ষ্যে আমার নিজস্ব চিন্তা চেতনা ভাবনা ও প্রত্যাশার কাঠামো আপনাদের সামনে তুলে ধরলাম। আপনাদের সহযোগিতা পেলে তা আরও বাস্তব প্রায়োগিক ও নাগরিকবান্ধব করে গড়ে তোলা সম্ভব হবে ইনশাল্লাহ। আমি একান্ত ভাবে আশা করি- আসন্ন সিটি করপোরেশন নির্বাচনে ধানের শীষ প্রতীকে আপনাদের মূল্যবান ভোটটি দিয়ে আমাকে আপনাদের সেবা করার সুযোগ দেবে।’

ইশ‌তেহার ঘোষণার সময় উপ‌স্থিত ছি‌লেন বিএন‌পি মহাস‌চিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক ভিসি ড. এমাজউদ্দীন আহমদ, স্থায়ী ক‌মি‌টির সদস্য ড. খন্দকার মোশাররফ হোসেন, মির্জা আব্বাস, গ‌য়েশ্বর চন্দ্র রায়, নজরুল ইসলাম খান, ইকবাল হাসান মাহমুদ টুকু, ভাইস-চেয়ারম্যান আবদুল্লাহ আল নোমান, আলতাফ হোসেন চৌধুরী, মেজর জেনারেল অব. রুহুল আলম চৌধুরী, মো. শাহজাহান।

জেএস‌ডির সভাপ‌তি আ স ম আব্দুর রব, গণস্বাস্থ্য কেন্দ্রের প্রতিষ্ঠাতা ডা. জাফরুল্লাহ চৌধুরী, জাতীয় পার্টির (কাজী জাফর) চেয়ারম্যান মোস্তফা জামাল হায়দার, নাগরিক ঐক্যের আহ্বায়ক মাহমুদুর রহমান মান্না, গণফোরামের নির্বাহী সভাপতি অ্যাডভোকেট সুব্রত চৌধুরী, সাধারণ সম্পাদক রেজা কিবরিয়া, বিকল্পধারার সভাপতি নুরুল আমিন বেপারী, লেবার পার্টির চেয়ারম্যান মোস্তাফিজুর রহমান ইরান, বিএনপির চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা আবদুস সালাম, যুগ্ম মহাসচিব খায়রুল কবির খোকন, হাবিব-উন-নবী সোহেল, সাংগঠনিক সম্পাদক ফজলুল হক মিলন, নজরুল ইসলাম মঞ্জু, শ্যামা ওবায়েদ, সৈয়দ এমরান সালেহ প্রিন্স, প্রচার সম্পাদক শহীদ উদ্দিন চৌধুরী এ্যানি, বিএনপি নেতা হাসান জাফির তুহিন, আফরোজা আব্বাস, আব্দুস সালাম আজাদ, শহীদুল ইসলাম বাবুল, আবু নাসের মোহাম্মদ রহমতুল্লাহ প্রমুখ।